ads

২০১৮ সাল বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্ববহ : মেনন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি, সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ২০১৮ সাল বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্ববহ। এবারে নির্ধারিত হবে দেশ উন্নয়নের ধারায় এগুবে নাকি আবার ৫০ বছরের জন্য পিছিয়ে যাবে।

আজ শনিবার কুমিল্লা সদরে ছাতিপট্টিতে কর্মসংস্থান ব্যাংক ভবন মিলনায়তনে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি কুমিল্লা জেলা আয়োজিত পার্টির ২১ দফা কর্মসূচিকে এগিয়ে নিতে এক মতবিনিময় সভায় সমাজকল্যাণ মন্ত্রী একথা বলেন।

মেনন আরো বলেন, বিএনপি চুরি করতে পারবে কিন্তু চোর বলা যাবে না, ধরাও যাবে না। সেই দল যদি কোনোক্রমে আবার ক্ষমতায় আসে তাহলে গাছের শেকড় শুদ্ধ উপড়ে খেয়ে ফেলবে। দেশের মানুষকে বিএনপির দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়ন সাম্প্রদায়িকতা জঙ্গিবাদের রাজনীতিকে আরেকবার পরাজিত করে এদেশ থেকে তাদেরকে চিরতরে বিদায় করতে হবে।

মেনন বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন নিয়ে কোনো বিতর্ক নেই। কিন্তু এই উন্নয়নকে অন্তর্ভুক্তিকরণ করা না গেলে এই উন্নয়নে জনগণের অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করা না গেলে তার সুফল বয়ে আনবে না।

তিনি বলেন, উন্নয়নের পাশাপাশি আয় বৈষম্য, ধন বৈষম্য, গ্রাম-শহরের বৈষম্য দূর করতে হবে। তরুণদের উদ্দেশে তিনি বলেন, এদেশের তরুণরাই বিভিন্ন সময় তাদের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যকে উৎসর্গ করে দেশের মানুষকে আন্দোলন-সংগ্রামে সংগঠিত করেছে। সেই তারুণ্যই যদি মাদকাসক্তে আচ্ছন্ন হয়, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের পথ অনুসরণ করে সেটা হবে দেশের জন্য সবচেয়ে দুঃখের কারণ।

তিনি তরুণদের আধুনিক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখতে আহ্বান জানিয়ে বলেন, ওয়ার্কার্স পার্টির ২১ দফা দেশের মানুষের কাছে আধুনিক জনগণতান্ত্রিক বাংলাদেশের কর্মসূচিকে তুলে ধরেছে।

কুমিল্লা জেলা সম্পাদক আহসানুল্লার সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় আরো বক্তব্য দেন পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য কামরূল আহসান।

তিনি ৩ মার্চের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশকে সফল করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সমাবেশকে জনগণের সমাবেশে পরিণত করতে হবে।

সভায় আরো বক্তব্য দেন, ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা কমিটির সদস্য কমরেড রুস্তম আহমেদ, কমরেড সাজ্জাদুর রহমান মাসুম, চলচ্চিত্র সংগঠক রায়হান, যুব মৈত্রী যুগ্ম আহ্বায়ক ডা. তুহিন, তাপস চন্দ্র দাস।

সভা পরিচালনা করেন যুব মৈত্রীর আহ্বায়ক আবু বক্কর সিদ্দিক মামুন।

ads

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.