ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড ফাইনালে অতিথিদের সাথে বিজয়ীরা : নয়া দিগন্ত
ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড ফাইনালে অতিথিদের সাথে বিজয়ীরা : নয়া দিগন্ত

আগামী জাতীয় নির্বাচনে বিএনপিও অংশ নেবে : তোফায়েল

নিজস্ব প্রতিবেদক

আগামী জাতীয় নির্বাচন অবাধ, নিরপে ও গ্রহণযোগ্য হবে জানিয়ে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, সব দলের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়েই আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ওই নির্বাচনে বিএনপিও অংশ নেবে।
গতকাল রাজধানীর এফডিসিতে ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্টের গ্র্যান্ড ফাইনালে ছায়া সংসদ বিতর্ক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। ডিবেট ফর ডেমোক্র্যাসি ও এটিএন বাংলা যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ডিবেট ফর ডেমোক্র্যাসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন এটিএন বাংলার চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমান, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান এম এ সবুর, এটিএন বাংলার উপদেষ্টা নওয়াজিশ আলী খান ও এটিএন বাংলার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট তাশিক আহমেদ। অতীতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারও বিতর্কিত হয়েছে উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন নিয়ে সব দেশেই কমবেশি বিতর্ক হয়। ২০০১ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচন নিয়ে আমরাও নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ভূমিকা ও নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলাম। বিএনপিও ’৯৬ ও ২০০৮ সালে অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল। তবে সর্বশেষ ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন নিয়ে বিতর্ক থাকলেও এই সরকার বৈধ।
সভাপতির বক্তব্যে হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, নির্বাচনে যারা জয়লাভ করে তাদের মধ্যে সবকিছুই নিয়ে নেয়ার প্রবণতা সৃষ্টি হয়েছে। এই প্রবণতায় বিজয়ীরা ব্যবসা-বাণিজ্য, সরকারি সুযোগ-সুবিধাসহ সবকিছু তাদের নিয়ন্ত্রণে নেন। অন্য দিকে পরাজিতরা হয়রানি জেলজুলুমের শিকার হন। যে কারণে নির্বাচনে কেউ পরাজিত হতে চান না। তাই একাদশ নির্বাচন নিয়ে এখনো কোনো জাতীয় ঐকমত্য গড়ে তোলা সম্ভব হয়নি। এ অবস্থান থেকে দেশের মানুষ পরিত্রাণ চায়। শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রেখে অংশগ্রহণমূলক এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য যত দ্রুত সম্ভব প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে মতৈক্য দূর করে প্রয়োজনীয় আলোচনা করা উচিত। তা না হলে কোনো ধরনের সঙ্ঘাত-সংঘর্ষ ও অস্থীতিশীলতার দায় রাজনৈতিক দলগুলোকেই বহন করতে হবে।
প্রতিযোগিতায় ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি চ্যাম্পিয়ন হয়। রানারআপ ও তৃতীয় স্থান অধিকার করে যথাক্রমে বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি এবং প্রাইম ইউনিভার্সিটি। ২০১৭ সালের এই প্রতিযোগিতায় দেশের সরকারি-বেসরকারি ৩২টি বিশ^বিদ্যালয় অংশগ্রহণ করে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.