বাংলাদেশ দল (ফাইল ফটো)
বাংলাদেশ দল (ফাইল ফটো)

ত্রিদেশীয় সিরিজ : বাংলাদেশের খেলা কবে-কখন

ক্রিকইনফো

জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আগামীকাল থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের লড়াই। ত্রিদেশীয় সিরিজে ফাইনাল বাদে মোট খেলা হবে ছয়টি। সবগুলো ম্যাচই হবে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে।

আগামীকাল থেকে শুরু হবে সিরিজ। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে। দ্বিতীয় ম্যাচ তিন দিন পরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।

বাংলাদেশ চতুর্থ ম্যাচ খেলবে আবার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২৩ জানুয়ারি। এক দিন পর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আবার মাঠে নামবে।

সবগুলো ম্যাচই হবে দুপুর আড়াইটায়।

দেখুন সূচি -

দল-------------------- প্রতিপক্ষ-------তারিখ ------------- সময়
বাংলাদেশ-------------জিম্বাবুয়ে------১৫ জানুয়ারি---------দুপুর ২.৩০ মিনিট
শ্রীলঙ্কা----------------জিম্বাবুয়ে-------১৭ জানুয়ারি---------দুপুর ২.৩০ মিনিট
বাংলাদেশ-------------শ্রীলঙ্কা---------১৯ জানুয়ারি---------দুপুর ২.৩০ মিনিট
শ্রীলঙ্কা----------------জিম্বাবুয়ে-------২১ জানুয়ারি---------দুপুর ২.৩০ মিনিট
বাংলাদেশ------------জিম্বাবুয়ে--------২৩ জানুয়ারি---------দুপুর ২.৩০ মিনিট
বাংলাদেশ-------------শ্রীলঙ্কা----------২৫ জানুয়ারি---------দুপুর ২.৩০ মিনিট
ফাইনাল---------------------------------২৭ জানুয়ারি---------দুপুর ২.৩০ মিনিট

বাংলাদেশ স্কোয়াড : মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, এনামুল হক বিজয়, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মোহাম্মদ মিঠুন, মেহেদি হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, আবুল হাসান রাজু, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন ও সানজামুল ইসলাম।

শ্রীলঙ্কা স্কোয়াড : অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ (অধিনায়ক), উপুল থারাঙ্গা, দানুসকা গুনাথিলাকা, কুসাল মেন্ডিস, দিনেশ চান্ডিমাল, কুসাল পেরেরা, থিসারা পেরেরা, আসেলা গুনারত্নে, নিরোসান ডিকভেলা, সুরাঙ্গা লাকমাল, নুয়ান প্রদিপ, দাশমান্তথা চামিরা, শেহান মাদুশাঙ্কা, আকিলা ধনাঞ্জয়া, লাকসান সান্দাকান ও ওয়িনিন্দু হাসারঙ্গা।

জিম্বাবুয়ে স্কোয়াড : গ্রায়েম ক্রেমার (অধিনায়ক), হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, সলোমন মিরে, ক্রেইগ আরভিন, ব্রেন্ডন টেলর, সিকান্দার রাজা, পিটার মুর, ম্যালকম ওয়ালার, রায়ান মুরে (উইকেটরক্ষক), টেন্ডাই চিসোরো, ব্রেন্ডন মাভুতা, ব্লেসিং মুজারাবানি, ক্রিস্টোফার এমপোফু, টেন্ডাই চাতারা ও কাইল জার্ভিস।

 

ত্রিদেশীয় সিরিজকে সামনে রেখে যা বললেন সাব্বির

ওয়ানডে, টেস্ট কিংবা টি-২০। সব ফরম্যাটেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করতে চান সাব্বির রহমান। ইতোমধ্যে আগ্রাসনের প্রমাণ দিয়েছেন সীমিত ওভারের ক্রিকেটে বেশ কিছু মারকুটে ইনিংস খেলে। কিন্তু পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেননি ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। আগ্রাসী হতে গিয়ে উইকেটে থিতু হয়েও বিলিয়ে দিয়েছেন উইকেট। ইনিংস বড় করতে না পারার মূল অন্তরায় আগ্রাসী ভূমিকা হলেও আক্রমণাত্মক ব্যাটিংটাই তার শক্তির জায়গা বলে উল্লেখ করলেন সাব্বির।

আগামীকাল থেকে শুরু হতে যাওয়া ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে পৌঁছেছে জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলঙ্কা। ১৫ জানুয়ারি উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে। এই টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে প্রস্তুত হচ্ছে বাংলাদেশ। মাঠে নামার আগে সাব্বির জানালেন নিজের ভাবনা। আবারও মনে করিয়ে দিলেন সব সময়ের মতো আক্রমণাত্মকই থাকতে চান তিনি। গতকাল শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে সাব্বির বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি ভালোভাবেই প্রস্তুত। যদিও গত কয়েকটা ম্যাচ আমার খারাপ গেছে। এই ক’দিনে আমি দুর্বল জায়গাগুলো নিয়ে কাজ করেছি। সামনে ম্যাচ আসছে। ভালো করার চেষ্টা করব ইনশা আল্লাহ। সাব্বির আগ্রাসীই থাকবে সবসময়।’

শেষ ১০ ওয়ানডেতে সাব্বিরের ব্যাট থেকে এসেছে ২৩৫ রান। স্বাভাবিকভাবেই সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন উঠেছে সেট হওয়ার পর তার আউট হওয়া নিয়ে। এ নিয়ে সাব্বিরের সহজ স্বীকারোক্তি, ‘এটা টেম্পারামেন্টের ব্যাপার না। আমার খেলাই আসলে এমন। আগে যখন তিন নম্বরে খেলতাম, তখন ব্যাপারটা অন্য রকম ছিল। এখন ছয়-সাত বা পাঁচ-ছয়ে খেলব। এটা টিম ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার। আমি যখন যেখানে খেলার সুযোগ পাব, চেষ্টা করব পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলার। এখন আমি চিন্তা করছি, কখন, কিভাবে খেলা উচিত তা নিয়ে। যদি উইকেটে থাকি, ম্যাচ শেষ করে আসব- ইনশা আল্লাহ।’

নিজের দুর্বল জায়গাগুলো নিয়ে কাজ করেছেন সাব্বির। ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে প্রস্তুত হয়েই খেলতে চান তিনি, ‘স্পিন, ফ্রন্টফুট নিয়ে কাজ করেছি। নেটে একাই এ ব্যাপারগুলো নিয়ে সময় দিয়েছি। ম্যাচে রান পাওয়া আসলে কপালের ব্যাপার। রান না পেলে ব্যাটিং টেকনিক ভালো না, আর রান পেলেই ব্যাটিং টেকনিক ভালো। ব্যাপারটা মোটেও তেমন না।’

২০১৪ সালে ওয়ানডেতে অভিষেকের পর ৪৫টি ম্যাচ খেলেছেন সাব্বির। ৪১ ইনিংসে ব্যাট করে ৫ হাফ সেঞ্চুরিতে ২৬.৬২ গড়ে রান করেছেন ৯৮৫। মারকুটে ব্যাটিং করলেও সেঞ্চুরির দেখা এখনো পাননি। ওয়ানডেতে এক ইনিংসে তার সর্বোচ্চ সংগ্রহ ৬৫। এটা নিয়ে সাব্বির নিজেও হতাশ। ‘আমি আসলে এটা নিয়েই হতাশ। চেষ্টা করছি সেঞ্চুরি করার। চেষ্টা করছি, যাতে আগ্রাসী রূপ নিয়ে নিজের খেলাটা খেলতে পারি।’

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.