ডিআইইউতে এন্ট্রাপ্রিনারশিপ প্রোগ্রামে ক্যারিয়ার

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে প্রথমবারের মতো এন্ট্রাপ্রিনারশিপ প্রোগ্রাম স্প্রিং সেমিস্টার-২০১৫ থেকে চালু হয়েছে। চার বছর মেয়াদি এ প্রোগ্রামটি ইউজিসি কর্তৃক অনুমোদনপ্রাপ্ত। নিজের পায়ে দাঁড়াতে সাহায্য করার লক্ষ্য নিয়ে, বেকার না থেকে স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে এবং প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশে একজন তরুণ-তরুণী স্বীয় মেধা-মনন ও শ্রম দিয়ে তার অস্তিত্বকে কেবল সুসংহত করবে না বরং সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় কল্যাণে দৃঢ়তার ও
ন্যায়নিষ্ঠার সাথে উদ্যোক্তা হিসেবে যাতে গড়ে উঠতে পারেন, সে জন্যই এ প্রোগ্রামটি চালু করা হয়েছে। এর সিলেবাসে তত্ত্ব এবং বাস্তবসম্মত ব্যবসা-বাণিজ্যিক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সব ধরনের শিক্ষা-প্রশিক্ষণ ও বাস্তবতা রয়েছে। বস্তুত উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য যেসব বৈশিষ্ট্যের প্রয়োজন সেগুলোর স্বতঃস্ফূর্তভাবে স্ফুরণ ঘটানো, উদ্ভাবনী শক্তির বিকাশ, দীর্ঘমেয়াদে পরিবর্তনশীলতার সাথে প্রতিযোগিতা করে স্বীয় অস্তিত্বকে টিকিয়ে রাখার পাশাপাশি সম্প্রসারণ করা এবং সামাজিক দায়বদ্ধতা পূরণ করার মাধ্যমে ব্যবসা-বাণিজ্য ও উৎপাদন ব্যবস্থায় আধুনিকতা আনয়ন করা, প্রযুক্তির ব্যবহার সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা এবং প্রায়োগিক কলা-কৌশলের দিক নিদর্শন করে বাস্তবায়নের ব্যবস্থা করাই হচ্ছে এ প্রোগ্রামের উদ্দেশ্য। প্রতিযোগিতামূলক বাজারব্যবস্থার কারণেই উদ্যোক্তা তৈরি হওয়া, দক্ষতা ও কার্যকারিতা বৃদ্ধি কেবল নিজের কর্মসংস্থান নয়, অন্যের কর্মের সুযোগ করে দেয়ার জন্য এ প্রোগ্রামের পাঠ্যক্রম হোলিস্টক অ্যাপ্রোচ হিসেবে প্রণয়ন করা হয়েছে। বাংলাদেশ যেভাবে ২০২১ সালের আগেই মধ্যম আয়ের রাষ্ট্রে পরিণত হতে যাচ্ছে, সে ক্ষেত্রে শিক্ষিত বেকাররা যেন সমাজের বোঝা না হয় সে জন্যই এ পাঠ্যক্রম প্রণয়ন করা হয়েছে। প্রায় তিন-চার শ’ বছর আগে যুক্তরাজ্যে উচ্চশিক্ষায় বেশির ভাগ ছাত্রছাত্রী অধ্যয়ন করত ঞযবড়ষড়মু-তে। অথচ আজ থিওলজি পড়ে এমন ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা নগণ্য। এ দিকে দুই শ’ বছর আগে চিকিৎসাবিজ্ঞানে অধ্যয়নের কথা আনেকেই ভাবতে পারত না। কিন্তু বর্তমানে চিকিৎসাবিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখা-প্রশাখায় ঊীঢ়বৎঃ তৈরি হচ্ছে। এমনকি অর্থনীতি চর্চার ক্ষেত্রেও আলাদা আলাদা ফিল্ড রয়েছে যেমনÑ সামষ্টিক অর্থনীতিবিদ, কৃষি অর্থনীতিবিদ, আর্থিক অর্থনীতিবিদ, নগর উন্নয়ন অর্থনীতিবিদ, বাণিজ্য অর্থনীতিবিদ, শিল্প অর্থনীতিবিদ, গ্রামীণ অর্থনীতিবিদ প্রভৃতি। আবার দেড় শ’ বছর আগে প্রকৌশল বিষয়ে পড়ার কথা বিবেচিত হতো উদ্ভাবনী শক্তি হিসেবে। ষাট বছর আগে খুব কম লোকেই কম্পিউটার সায়েন্স পড়ার কথা ভাবত। আর এখন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়ার পাশাপাশি হার্ডওয়্যার, নেটওয়্যার, সফটওয়্যার এমনকি মাল্টিমিডিয়ার ওপর চার বছর মেয়াদি প্রোগ্রাম চালু রয়েছে। এ পাঠ্যক্রম পরিচালনার জন্য দেশী-বিদেশী শিক্ষকদের একটি প্যানেল কাজ করেছে। পাশাপাশি দেশী-বিদেশী উদ্যোক্তারাও এ পাঠ্যক্রমের সাথে জড়িত রয়েছেন। দেশী উদ্যোক্তাদের মধ্যে রয়েছেন ড্যাফোডিল গ্রুপের চেয়ারম্যান ড. মো: সবুর খানসহ অনেকেই। এ পাঠ্যক্রমটি পরিচালনার জন্য ক্যাম্পাসে ইনকিউবেটর স্থাপন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ভেঞ্চার ক্যাপিটেল লিমিটেড, ড্যাফোডিল স্টার্ট আপ মার্কেট যেখানে উদ্ভাবনী শক্তির বিকাশ ঘটাবে, সেটি স্থাপন করা হয়েছে হাতে-কলমে শিক্ষার জন্য। আবার আইএমএসএমই ফাউন্ডেশন ইন বাংলাদেশের সদস্য-সদস্যা যারা ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠিত উদ্যোক্তাদের সাথে শিক্ষানবিস উদ্যোক্তাদের সাহচার্য পাবেন, যা তাদের ভবিষ্যৎ জীবনকে সাফল্যের দিকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করবে। এ প্রোগ্রামে বিদেশে শিক্ষা সফরের ব্যবস্থা পাঠ্যক্রমের আওতায় রয়েছে। দেশে লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণে এ প্রোগ্রাম সহায়তা করবে। যোগাযোগ : ১০২, শুক্রাবাদ, মিরপুর রোড, ধানমন্ডি, ঢাকা। ফোন : ৯১৩৮২৩৪-৫, ৯১৩৬৬৯৪, ০১৭১৩-৪৯৩১০৩, ০১৭১৩-৪৯৩০৫০-১
হ মো: সাইফুল ইসলাম খান

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.