নিজের বিবেক নেই বলে

ইকবাল কবীর মোহন

বসন্তের এক সুন্দর সকাল। এক কৃষক ও তার ছেলে তাদের একটি গাধা নিয়ে বাজারে যাচ্ছিল। অর্থের দরকার। তাই গাধাটিকে তারা বিক্রি করতে বাজারে নিয়ে যাচ্ছিল।
পিতা-পুত্র বাজারে হেঁটে যাচ্ছে আর গাধাটি তাদের অনুসরণ করছে। বাজার বেশ খানিকটা দূরে। কিছুদূর অগ্রসর হতেই তাদের সামনে পড়ল একদল বালিকা। তারা বিপরীত দিক থেকে এগিয়ে আসছিল।
বালিকাদের একজন পিতা-পুত্র ও গাধাকে দেখে হেসে বলল,
‘এই দেখ দেখ, এই কৃষক কেমন বোকা! সে ছেলেসহ হেঁটে যাচ্ছে আর গাধাকেও হাঁকিয়ে নিচ্ছে। অথচ তারা গাধার পিঠে চড়েই যেতে পারত। লোকগুলো কেমন বোকা তাই নারে!
বালিকাদের হাসাহাসি দেখে কৃষক বিব্রতবোধ করল। তাই বৃদ্ধ কৃষক তার ছেলেকে গাধার পিঠে বসিয়ে দিলো, আর সে হেঁটে একসাথে এগিয়ে চলল বাজারের দিকে। কিছুদূর এগিয়ে গিয়ে কৃষক দেখতে পেল রাস্তার পাশে একদল লোক বসে গল্প করছে।
এসব লোকের মধ্যে একজন কৃষকের ওপর নজর পড়তেই বলে উঠল,
‘কী অবাক ব্যাপার বলতো! এই ছোকরাটার তার বৃদ্ধ বাবার প্রতি যে মোটেও শ্রদ্ধাবোধ নেই।’
সে ছেলেটাকে ধমকের সুরে বলল,
‘এই অলস ছোকরা, গাধার পিঠ থেকে নেমে পড়ো। তোমার বাবা বৃদ্ধ মানুষ। তাকে তো গাধার পিঠে চড়ে একটু আরাম করতে দাও।’
এই কথা শুনে কৃষকের ছেলে গাধার পিঠ থেকে নেমে পড়ল এবং তার বাবাকে সেখানে বসিয়ে দিলো। তারপর তারা সামনে এগিয়ে চলল। কিছুদূর গিয়ে তারা কিছু মহিলা এবং ছেলেমেয়ের পাশ দিয়ে পথ চলছিল। তাদের একজন বৃদ্ধ কৃষককে গাধার পিঠে এবং ছোট্ট বালককে গাধার পেছনে হাঁটতে দেখে বলে উঠল,
‘কী নিষ্ঠুর লোক এই বেটা! বৃদ্ধ গাধার পিঠে বসে আরামে দ্রুত ছুটছে আর গরিব বালকটি তার সাথে হাঁটতে গিয়ে হাঁপাচ্ছে।’
এ কথা কৃষকের কানে গেল। তাই কৃষক থামল এবং বালকটিকে তার পেছনে গাধার পিঠে তুলে নিলো। যেতে যেতে তারা এখন বাজারের প্রায় কাছাকাছি গিয়ে পৌঁছল। তবে বাজারের আগেই একজন দোকানদারের সাথে তাদের দেখা হয়ে গেল।
দোকানদার জিজ্ঞেস করল,
‘এটি কি তোমার নিজের গাধা?’
কৃষক বলল, ‘হ্যাঁ, ঠিক ধরেছেন। এই গাধা আমার।’
কৃষকের জবাব শুনে দোকানদার বলল,
‘আমি অবাক হচ্ছি তোমাদের কাণ্ড দেখে। কেননা, তোমরা গাধাটির সাথে ভালো ব্যবহার করোনি। একটি গাধার পিঠে দু’জন লোকের চড়ে বসা মোটেই ঠিক হয়নি। এটা গাধাটির জন্য বেশ কষ্টকর হয়েছে। এতক্ষণ গাধাটির ওপর দিয়ে যে চাপ গেছে, তাতে গাধাটি মারা যেতে পারে। অতএব, তুমি গাধাটিকে বহন করে নিয়ে যাও।’
এ কথা শুনে কৃষক তার ছেলেকে নিয়ে গাধাটিকে ভালো করে ধরল এবং এর পাগুলো দড়ি দিয়ে বাঁধল। তারপর তারা একটি দীর্ঘ দণ্ড নিয়ে এর সাথে দড়ি বেঁধে গাধাটিকে উপরে উঠানোর চেষ্টা করল। কিন্তু গাধাটিকে উঠানো গেল না। গাধাটি জোরে লাথি মেরে পায়ের দড়ি ছিঁড়ে ফেলল। এরপর গাধাটি রাস্তার পাশে নদীর পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ল। নদীতে ছিল অনেক পানি। ফলে গাধাটি পানিতে ডুবে গেল।
এ অবস্থায় কৃষক অসহায় হয়ে পড়ল। সে শূন্য হাতে বাড়ি ফিরে গেল।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.