উৎসবে সাজ : রঙের ঝলক

ফাহমিদা জাবীন

পয়লা ফাল্গুন বসন্তবরণ উৎসব। উৎসব মানেই আনন্দ, সাজসজ্জা এবং ঘুরে বেড়ানো। প্রকৃতির রঙ আর আটপৌরে সাজÑ দুয়ে মিলে অনন্য আপনি। পয়লা ফাল্গুনে বসন্তবরণ করতে কিভাবে সাজবেন সেই বিষয়ে জানাচ্ছেন, বিউটি এক্সপার্ট শারমিন সেলীম তুলি, স্বত্বাধিকারী বেয়ারবিজ বডি ওয়াক্স অ্যান্ড বিউটি স্যালন।
ফাল্গুনের সাজ বলতেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে হলুদ শাড়ি আর খোঁপায় জড়ানো গাঁদা ফুলের মালা, কপালে লাল টিপ, কাচের চুড়ি আর হাতে জড়ানো সাদা ফুলের মালা।
সময়ের সাথে ফাল্গুনের সাজেও চলে এসেছে আধুনিকতার ছোঁয়া। দিনটিতে নিজেদের সাজিয়ে তুলতে চান সৌন্দর্যসচেতন নারীরা। আমাদের নিজস্ব সাংস্কৃতিক উৎসবগুলোতে বাঙালি নারী শাড়িকেই প্রধান্য দিয়ে থাকে। আর বসন্ত উৎসবে হলুদ শাড়িই সেরা। এ ছাড়া বাসন্তি, কমলা, সবুজ, লাল, মেরুন, হলুদ অথবা মাল্টিকালারের শাড়ি পরতে পারেন। মূলত সুতি ও তাঁতজাতীয় শাড়িতে উৎসবের আমেজটা ফুঠে ওঠে। নতুনত্ব আনতে সিল্ক, শিফন ও জামদানি পরতে পারেন। তবে যারা শাড়িতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না কিংবা কর্মক্ষেত্রের সুবিধার জন্য সালোয়ার কামিজ বা ফতুয়া-জিন্স পরতে চাইলে সালোয়ার কামিজের সাথে চুরিদার বা প্লাজো সাথে দোপাট্টা বেছে নিতে পারেন। বাসন্তি রঙা ফতুয়ার সাথে নিন লাল স্কার্ফ বা ওড়না। শাড়ি, সালোয়ার কামিজ যা-ই পরা হোক উজ্জ্বল রঙের ডিজাইন খুব মানিয়ে যায় বসন্তের পোশাকের সাথে।
পয়লা ফাল্গুনে ফুলের ব্যবহারটা সাজে প্রাধান্য পায় যেহেতু বেশি, তাই মেকাপ ন্যাচারাল হওয়াটাই ভালো। ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। ফাউন্ডেশন লাগিয়ে ভালোকরে ফিনিশিং দিন। হালকা ফেস পাউডার লাগান। গালে হালকা পিচ কিংবা গোলাপি ব্লাশন বুলিয়ে নিন। চোখে ওয়াটারপ্রুফ কাজল দিন। আইশ্যাডো দিন ব্রাউন, ব্রোঞ্জ, গোল্ডেন ও কপার, পাপড়িতে ঘন করে মাশকারা দিন। রাতের জন্য চোখে যেকোনো আই শ্যাডো পরতে পারেন। সে ক্ষেত্রে চোখের কোণে একটু কালো শ্যাডো মিশিয়ে নিলেই গভীর হবে চোখ। লেন্সও পরতে পারেন। লিপলাইনার দিয়ে ঠোঁট এঁকে লাল ও কমলা রঙের লিপস্টিক লাগান বেশ ভালো মানাবে। সবশেষে ছোট্ট একটা লাল টিপ। সারা দিনের ঘোরাঘুরিতে সান প্রোটেকটেড ফিল্টারসমৃদ্ধ মেকআপ নির্বাচন করা প্রয়োজন। মনে রাখবেন, অতিরঞ্জিত মেকাপের ব্যবহার দিনের বেলায় দেখতে ভালো লাগে না। তাই সারা দিনের সাজে অবশ্যই স্কিন টোনের সাথে ম্যাচ করে বা এক-দুই শেড উজ্জ্বল মেকআপ নির্বাচন করা প্রয়োজন। হাতে পায়ে সানস্ক্রিন লোশন মেখে তারপর বাইরে বের হবেন। নখটাকেও সাজিয়ে তুলুন বর্ণিল রঙে। বাহারি রঙের নেলপলিশের ব্যবহার এ সময়ের স্টাইল।
শাড়ি পরে যদি উৎসবে যোগ দেন তাহলে ফুলের গয়না পরুন ইচ্ছেমতো। গলায়, কানে গাঁদা , রজনীগন্ধা বা চন্দ্রমল্লিকার গয়না পরতে পারেন এবং হাতে জড়াতে পারেন ফুলের মালা। সাথে রঙিন কাচের চুড়ি। মাথায়ও পরতে পারেন জিপসিও জারবেরার তৈরি ফুলের ক্রাউন। শাড়ির সাথে খোঁপা ভালো মানাবে। খোঁপা সাজাতে পারেন রঙিন জারবেরা, গ্লাডিওলাস কৃষ্ণচূড়া কিংবা হলুদ চন্দ্রমল্লিকায়। লম্বা বেণীতে জড়াতে পারেন হালকা হলুদ রঙের গাঁদা ফুলের মালা, কানের পাশে গুঁজতে পারেন হলুদ রঙের সূর্যমুখী।
সালোয়ার কামিজ ও ফতুয়ার সাথে দু-তিনটি পমপম কানে গুঁজে নিতে পারেন, কিংবা খোলা চুলে জারবেরা কিংবা নানা রঙের গোলাপ। চুলে ওয়েভ কার্ল, স্পাইরাল করে নিতে পারেন। ফেঞ্চ বেণীও ভালো লাগবে। ফুলের গয়না না পরলে কানে ও গলায় এন্টিক, পাট, সুতা, বাঁশ এমনকি মাটির গয়নাও পরতে পারেন। ফতুয়ার সাথে গলায় পরতে পারেন পুঁতির মালা। সব শেষে হালকা পারফিউম লাগাতে পারেন। পথে চলতে আরামদায়ক এবং স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন এমন জুতা অথবা চটি স্যান্ডেল বেছে নিলে ভালো হবে। আর ব্যাগে রাখুন ময়েশ্চারাইজার, সানস্ক্রিন লোশন, চিরুনি, আয়না, রুমাল, ফেসিয়াল টিস্যু, প্রয়োজনীয় কসমেটিকস এবং এক বোতল পানি। এই তো হয়ে গেল ফাল্গুনের সাজ।
ভ্যালেনটাইন ডে : ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস অনেকেই উদযাপন করে থাকেন বিশেষভাবে। অনেকেই বাইরে বের হন, যোগ দেন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। তাই সাজের বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। ভালোবাসা দিবসের মেকআপ পয়লা ফাল্গুনের মতোই হতে পারে। তবে পোশাক হতে হবে বিশেষ দিনের মতো। কারণ, ভালোবাসা দিবসের পোশাক মানেই লাল। লাল, মেরুন, খয়েরি ও লালের বিভিন্ন শেড সাধারণত এই দিনে পোশাকের রঙ হিসেবে বেছে নেয়া হয়। মেয়েরা শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, টপস যেকোনোটা বেছে নিতে পারেন। সেই সাথে অবশ্যই থাকবে ফুল। সেটা চুলেই হোক অথবা ফুলের গয়না। ছেলেরাও উৎসবের সাথে মিলিয়ে তাদের পোশাক বাছাই করে নিন। সেই সাথে পরিচ্ছন্ন একটা লুক আপনাকে করে তুলবে উৎসবের জন্য প্রস্তুত।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.