মহাজোটেও চলছে নানা বিশ্লেষণ
মহাজোটেও চলছে নানা বিশ্লেষণ

মহাজোটেও চলছে নানা বিশ্লেষণ

খালেদা জিয়ার কারাবাস
মনিরুল ইসলাম রোহান

বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কারাবাস নিয়ে আওয়ামী লীগের লাভ-ক্ষতির হিসাব-নিকাশের পাশাপাশি ক্ষমতাসীন ১৪ দলীয় মহাজোটেও চলছে নানা বিশ্লেষণ। জোটপ্রধান আওয়ামী লীগের সাথে তাল মিলিয়ে চললেও দেশের অন্যতম একটি বড় দলের প্রধানকে সাজা দিয়ে কারাগারে রাখায় আগামী নির্বাচনে এর প্রভাব কতটুকু পড়বে বা আদৌ পড়বে কি না তা খুঁটিয়ে দেখছে শরিক দলগুলো। বিএনপিপ্রধান কারাগারে গেলেও তার দল বিএনপি কোনো উগ্র কর্মসূচিতে না গিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করায় নতুন করে ভাবতে হচ্ছে ক্ষমতাসীন জোটকে। বিশেষ করে খালেদা জিয়া কারাগারে থাকলে সরকারের জন্য সুবিধা নাকি কারাগারের বাইরে থাকলে বেশি সুবিধা সেই বিষয়টিও গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে জোট ও সরকারের নীতিনির্ধারণী মহল।

জোটের একাধিক নেতার মতে, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২০ দলীয় জোট অংশ নিচ্ছে- এটি মাথায় রেখেই মহাজোট পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

ইতোমধ্যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপিপ্রধান কারাগারে রয়েছেন, এটাও সরকারের বড় সাফল্য হিসেবে দেখছে মহাজোট। যদিও এই রায়ে সরকারের কোনো হাত নেই বলে জোটপ্রধান আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা বলে আসছেন। একাধিক নেতা জানান, মহাজোট চেয়েছিল নির্বাচনের আগেভাগে বিএনপিকে মাঠে নামাতে। আর তুরুপের তাস হিসেবে ছিল খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের মামলা। মামলায় বিএনপিপ্রধানের সাজা হলেও নেতাকর্মীরা চরমপন্থায় প্রতিবাদের রাজনীতি থেকে বিরত রয়েছে। এ ঘটনা হতবাক করে দিয়েছে জোট ও সরকারকে। খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর দেশের জনগণের সহানুভূতি পাচ্ছেন।

অন্য দিকে বিভিন্ন মহলের বিরূপ সমালোচনার মুখোমুখি হতে হচ্ছে সরকারকে- যা নিয়ে ইতোমধ্যে ভাবিয়ে তুলেছে ক্ষমতাসীন জোটকে। ফলে মহাজোটকে নতুন করে হিসাব-নিকাশ কষতে হচ্ছে।

জোটের এক শীর্ষ নেতা আলাপকালে এ প্রতিবেদককে জানান, সমীকরণ এখনো শুরু হয়নি। শিগগিরই শুরু হবে। বিএনপি কোনো কর্মসূচি না দিয়ে ঘরে বসে মনে করছে, এমনি এমনিতেই হয়ে যাবে। আসলে কি তাই? নির্বাচনের কিছু দিন আগে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে একটা কিছু করে ফেলবে, বিএনপি এই আশায় আছে। বিএনপি হয়তো এটাও ভাবছে, এখনই আন্দোলন শুরু করলে দীর্ঘ সময় টেনে নিয়ে যেতে পারবে কি না।

ওই নেতা আরো জানান, খালেদা জিয়া জামিন চাইলে পাবেন। তবে তিনি জামিন এখনই নেবেন কি না তা-ও তো দেখার বিষয়। যেহেতু নির্বাচনী বছর চলছে, ফলে সরকারও ভাবছে খালেদা জিয়াকে জেলের বাইরে রাখলে সুবিধা হবে, নাকি ভেতরে রাখতে পারলে সুবিধা হবে, তা নিয়েও বিশ্লেষণ করার বিষয় আছে। আর এটা বিশ্লেষণ করেই সামনের দিকে এগোতে চায় ক্ষমতাসীনেরা।
এ প্রসঙ্গে ক্ষমতাসীন মহাজোটের অন্যতম শরিক জেপির চেয়ারম্যান ও পানিসম্পদমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু নয়া দিগন্তকে বলেন, উত্থান-পতন সঙ্ঘাত আগে যেভাবে চলে আসছে সেভাবে চলবে। তবে এগুলো কোনো-না-কোনো পর্যায়ে শেষ হতে হবে।

জোটের আরেক শরিক গণ আজাদী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট এস কে শিকদার বলেন, ওয়ান-ইলেভেন সরকারের সময় দায়ের করা মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আদালত খালেদা জিয়াকে শাস্তি দিয়েছেন। একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে আমি দুঃখিত। তবে দুর্নীতির দায়ে সাবেক একজন প্রধানমন্ত্রীর সাজা হয়েছে, এ জন্য আমার লজ্জাবোধ হয়।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা নিয়ে সরকারের শাসনকাল তুলনা করা যায় না। তবে তুলনামূলক বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় নজিরবিহীন উন্নয়নসহ বিভিন্ন সূচকে এই দেশ স্থান করে নিয়েছে। আর এ কারণে জনগণ আগামী নির্বাচনে সরকারের পক্ষে থাকবে। এস কে শিকদার বলেন, বিএনপি আগে যে জ্বালাও-পোড়াওয়ের রাজনীতি করেছে খালেদা জিয়ার কারাদণ্ড পরবর্তী সময়ে তা আর দেখা যায়নি। কিন্তু অতীতের মতো জ্বালাও-পোড়াও করার সক্ষমতা তাদের আছে কি না তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে অহিংস রাজনীতিতে তারা ফিরে এলে সাধুবাদ জানাব।

এ প্রসঙ্গে ক্ষমতাসীন মহাজোটের অন্যতম শরিক ন্যাপের সহসাধারণ সম্পাদক মো: ইসমাঈল হোসেন নয়া দিগন্তকে বলেন, খালেদা জিয়া কারাগারে গেছেন, এ নিয়ে দেশের জনগণের ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া কী, টকশোবিদ, রাজনীতিকেরা এটাকে কিভাবে নেন, সরকার সেই প্রতিক্রিয়া দেখছে। আমার ধারণা, খালেদা জিয়াকে বাইরে রাখলে সুবিধা হয়, নাকি ভেতরে থাকলে সুবিধা হয় নির্বাচনের আগে সরকার সেই বিষয়টাও পর্যবেক্ষণ করছে। এরপর হয়তো পরিস্থিতি বুঝে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, শরিকদলগুলো সরকারের অবস্থান সমর্থনযোগ্য বলে মনে করে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ইতোমধ্যে বলেছেন, খালেদা জিয়ার কারাগারে যাওয়া নেতা-মন্ত্রীদের জন্য শুধু সতর্কবার্তা। তবে এটা শুধু সতর্কবার্তা নয়, এটার অর্থ হলো দুর্নীতিবাজ কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।

তবে সরকারকে প্রমাণ করতে হবে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকার নিরপেক্ষ অবস্থানে আছে। আইন সবার জন্য সমান। নিজ দলের ভেতরে যারা আছেন, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে। আর এটা প্রমাণ করতে না পারলে সব ঘটনা প্রবাহ বিরোধী দলের পক্ষে যাবে। মানুষ তো বোকা নয়। বাস্তবায়ন না করতে পারলে সরকার বিপদে পড়বে। খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার ঘটনা সরকারের বিপক্ষে যাবে।

তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজ ভাণ্ডারী বলেন, বিএনপি নেত্রী কারাগারে যাওয়ার পর তাদের নেতাকর্মীরা জ্বালাও-পোড়াও করেনি, হরতাল দেয়নি, এটা ভালো দিক। এটা অব্যাহত থাকুক, আমরাও চাই। তিনি বলেন, আগামীতে বিএনপিকে বাইরে রেখে নির্বাচন করার চিন্তা ও পরিকল্পনা আমাদের নেই। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা মনে করি না আগামী নির্বাচনে এই ঘটনায় সরকারের ওপর কোনো প্রভাব পড়বে। জনগণ অনেক সচেতন। দেশে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। ওনাদের ভোট ওনারা পাবেন, আমাদের ভোট আমরা পাবো। এখানে ভাসমান ভোট আছে। এই ভোট যারা পাবে তারাই জিতবে।

ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, আমরা মনে করি আমাদের দেশ দুর্নীতির দুর্বৃত্তায়নে ভরা। দুর্নীতির দায়ে খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের মাধ্যমে একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন হলো, আইন সবার জন্য সমান। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। তবে এটা সবার ক্ষেত্রে বাস্তবায়ন করা উচিত। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই ঘটনায় আগামী নির্বাচনে সাধারণ জনগণের মধ্যে নেতিবাচক কোনো প্রভাব পড়বে বলে আমি মনে করি না। জনগণ অনেক সচেতন, তারা দুর্নীতির বিরুদ্ধে রায় দেবে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.