চার ঘণ্টায় পথে বসলেন ৩৪ প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়ীরা
চার ঘণ্টায় পথে বসলেন ৩৪ প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়ীরা

চার ঘণ্টায় পথে বসলেন ৩৪ প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়ীরা

রাঙ্গবালী (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলা সদর বাহেরচর বন্দরে ভয়াবাহ অগ্নিকাণ্ডে ৮ মর্কেটে নানা ধরনের ৩৪টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভস্মিভুত হয়েছে। সোমবার গভীর রাতে সবুজ প্যাদার মুদি দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয় বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় অন্তত সাড়ে তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেন ক্ষতিগ্রস্থরা।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ক্ষতিগ্রস্থ্য ব্যবসায়ীরা জানান, সোমবার রাত ১টায় বাহেরচর বন্দরে আগুন লেগেছে এমন খবরে প্রতিবেশীদের ঘুম ভেঙে যায়। এসময় স্থানীয় একটি মসজিদের মাইক দিয়ে সকলকে অবহিত করা হয়। খবর শুনে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ছুটে আসেন এবং আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করেন। এসময় কৃষিকাজে ব্যবহার যোগ্য পাওয়ার পাম্প দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণের ব্যাপক চেষ্টা করা হয়। ৪ ঘন্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। ততক্ষণে ৮টি মার্কেটের ৩৪টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সকল পণ্য-দ্রব্য পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থরা হলো, রকমারী ব্যাবসায়ী আব্বাস হাওলাদার, মুদি ও মনোহরি সবুজ মোল্লা, আবুল বশার হাওলাদার ও ফজলেআলী, কসমেটিক ব্যবসায়ী সালাম সরদার, বাদল মাতব্বর, শহিদুল কবিরাজ, মোবাইল মেকার সাকিল আহম্মেদ, ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায়ী ইয়াকুব আলী, চায়ের দোকানী পরি দাস, মামুন বয়াতি, ননি গোপাল দাস সহ ৩৪ জন ব্যবসায়ী।

খবর শুনে ঘটনাস্থলে আসেন স্থানীয় সাংসদ মাহাবুবুর রহমান তালুকদার, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেন প্রমূখ। রাঙ্গাবালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজী আলীম উল্লাহ জানান, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে প্রাথমিক ভাবে ৭ হাজার টাকা, ৩০ কেজি করে চাল এবং ৩ বান ঢেউটিন প্রদান করা হবে।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.