পুরান ঢাকার ধুপখোলা খেলার মাঠের একটি চিত্র (ফাইল ছবি)
পুরান ঢাকার ধুপখোলা খেলার মাঠের একটি চিত্র (ফাইল ছবি)

দেশের সব খেলার মাঠ জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করার দাবি পরিবেশবাদিদের

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা মহানগরীসহ সারাদেশের সকল খেলার মাঠ-উন্মুক্ত স্থান ও পার্কসমূহ পুনরুদ্ধার, উন্নয়ন ও সুষ্ঠু রক্ষণাবেক্ষণ নিশ্চিত করে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন পরিবেশবাদিরা। পাশাপাশি তারা প্রতিটি খেলার মাঠ ও পার্ক ব্যবহারের নির্দেশনা ও দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের যোগাযোগের বিস্তারিত তথ্য সম্বলিত সাইনবোর্ড নির্দিষ্ট মাঠ বা পার্কের প্রবেশ পথে স্থাপনের দাবি জানান।

বাপা, ডবিøউবিবি ট্রাস্ট, পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগ-স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, গ্রীনভয়েসসহ বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংগঠনের উদ্যোগে আজ শুক্রবার শাহবাগস্থ জাতীয় জাদুঘরের সামনে সমাবেশে তারা এ দাবি জানান।

‘মধুবাগ খেলার মাঠে মেলার আয়োজন বন্ধ করা এবং ঢাকা মহানগরীর সকল মাঠ দখলমুক্ত ও জনসাধারণের জন্য উন্মুুক্ত করার দাবিতে’ এ নাগরিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বাপা’র সাধারণ সম্পাদক ডা: মো: আব্দুল মতিনের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য রাখেন বাপা’র যুগ্ম সম্পাদক মিহির বিশ্বাস ও আলমগীর কবির, স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আহমেদ কামরুজ্জামান মজুমদার, ডবিøউবিবি ট্রাস্টের প্রোগ্রাম ম্যানেজার মারুফ হোসেন, গ্রীন ভয়েসের আব্দুস সামাদ প্রধান ও আব্দুস সাত্তার, গোলাপবাগ মাঠ রক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক হাসনাত জোবায়ের প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, মগবাজারের মধুবাগ মাঠটি দখল করে এই মুহূর্তে চলছে মেলার আয়োজন। সেখানে বিভিন্ন ধরনের দোকান, ম্যাজিক নৌকা, চরকিসহ খাবারের দোকান নির্মাণ চলছে। গত কয়েকদিনে স্টল তৈরীর জন্য মাটি খোঁড়াখুঁড়ি করে মাঠটি খেলাধুলার অনুপযুক্ত করে ফেলা হয়েছে। তছনছ হয়ে যাচ্ছে এই এলাকার জনপ্রিয় বৃহৎ এই খেলার মাঠ। নিয়মিত খেলাধুলা, হাটাহাটি, শরীরচর্চার জন্য সকল পর্যায়ের শিশু-কিশোর-যুবা-বয়স্কসহ এলাকার জনসাধারণ ব্যবহার করতো। সেই মাঠটিতে হঠাৎ করে এধরনের মেলা আয়োজনের কারণে তাদের খেলাধুলা, বেড়ানো বন্ধ হয়ে গেছে। এতে এলাকার শিশু-কিশোরসহ এলাকাবাসী মাঠটির এই অবস্থা দেখে খুবই হতাশ।

সভাপতির বক্তব্যে ডা: মো: আব্দুল মতিন বলেন, খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থান, উদ্যান এবং প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণে ২০০০ সালে বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক সদিচ্ছায় তার সরকার একটি শক্তিশালী আইন প্রণয়ন করে। এই আইন অনুযায়ী মাঠে খেলাধুলা ব্যতীত অন্যকোন কার্যক্রমে মাঠকে ব্যবহার করা যাবে না। অথচ আমরা লক্ষ্য করছি, তাদের দলীয় নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা আজ আইনটি উপেক্ষা ও ভঙ্গ করছে।

জনগণের আকাক্সক্ষা ও অধিকার রক্ষায় এবং আইনের কার্যকর বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মধুবাগমাঠসহ ঢাকা মহানগরীর সকল খেলার মাঠ পুনরুদ্ধার, উন্নয়ন ও সুষ্ঠু রক্ষণাবেক্ষণ ও জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত রাখা নিশ্চিত করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

মিহির বিশ্বাস বলেন, মাঠ দখল করে মেলা আয়োজন সাধারণ জনগণ আশা করে না। ঢাকা শহরে ছোট-বড় ও সমাজের সকলস্তরের জনগণের জন্য পর্যাপ্ত দোকান, শপিংমল ও মার্কেট রয়েছে। তাই খেলাধুলার পরিবেশে বিঘœ ঘটিয়ে মাঠ বিনষ্ট করে কোনো মেলা আমরা চাই না।

ড. আহমেদ কামরুজ্জামান বলেন, খেলার মাঠে খেলার জন্য সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত রাখার আইনগত সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয় দায়িত্বের কথা ভুলে গিয়ে আজ শিশু-কিশোরসহ খেলাধুলা, তরুণদের সুস্বাস্থ্য বিনির্মাণ, অসুস্থ ও বয়স্ক নাগরিকদের হাঁটার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। সামাজিক পরিবেশ সমুন্নত রাখা এবং এলাকার সুষ্ঠু পরিবেশ সংরক্ষণ ও একটি সুস্বাস্থ্যবান মেধাবী ভবিষ্যত প্রজন্ম গঠনের স্বার্থে মগবাজার মধুবাগ মাঠের চলমান মেলার আয়োজন অবিলম্বে বন্ধ করে, মাঠটিকে খেলাধুলার উপযোগী করে পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে দেয়ার জন্য তিনি দাবি জানান।

সমাবেশ থেকে সারাদেশের সকল খেলার মাঠ ও পার্ক চিহ্নিত করে তা রক্ষার জন্য স্থানীয় নাগরিক কমিটি গঠনের দাবি জানান হয়। নতুন আবাসন প্রকল্প গ্রহণের সময় সংশ্লিষ্ট নক্শায় বসতি অনুযায়ী খেলার মাঠ ও পার্ক নিশ্চিত রাখারও দাবি উঠে সমাবেশ থেকে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.