শরীয়তপুরে বাজারে আগুন ২০ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পুড়ে দেড় কোটি টাকার ক্ষতি

শরীয়তপুর সংবাদদাতা

শরীয়তপুরের গঙ্গানগর বাজারে এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২০টি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পুড়ে গেছে। এতে প্রায় দেড় কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা। বাজারের ব্যবসায়ী, স্থানীয় ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। বৈদ্যুতিক শটসার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে বলে ধারণা করছে প্রশাসন। ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা বলছেন, তদন্ত ছাড়া ক্ষয়ক্ষতির পরিমান এখনই বলা যাচ্ছে না। তবে ব্যবসায়ীদের দাবি প্রায় দেড় কোটি টাকা।
ফায়ার সার্ভিস, স্থানীয় চেয়ারম্যান মো: ইয়াছিন হাওলাদার, বাজারের ব্যবসায়ী কাজী শফিকুর রহমান স্বপন ও গঙ্গানগর বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আলমাস ঢালী জানান, গত শনিবার রাত অনুমান তিনটায় শরীয়তপুর সদর উপজেলার গঙ্গানগর বাজারের ব্যাবসায়ী সমীর কুণ্ডুর মুদি দোকান থেকে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়ে আগুন আশেপাশের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে ছড়িয়ে পড়ে। সাথে সাথেই মসজিদের মাইকে আগুনের বিষয়টি ঘোষণা করা হয়। খবর পেয়ে শরীয়তপুর ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় লোকজন তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। ততক্ষণে দোকানপাট ও মালামাল পুড়ে যায়। এতে প্রায় দেড় কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। অগ্নিকাণ্ডে গঙ্গানগর বাজারের মরন ঘোষের চায়ের দোকান, নন্দশীলের সেলুন, রাসেলের ওয়ার্কশপ, রনজিত ঘোষের হার্ডওয়্যার স্টোর, ফারুক মাদবরের গার্মেন্টস, ছোহরাব হাওলাদারের ফার্মেসিসহ ২০টি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই হয়ে যায়। অগ্নিকাণ্ডের শিকার দোকানদার ফারুক হোসেন মাদবর বলেন, আমরা বিভিন্ন এনজিও ও ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা করে থাকি। আগুনে আমাদের সবকিছু শেষ হয়ে গেছে। এখন আমরা কি করে ঋণ পরিশোধ করবো। আর কি করে পরিবার পরিজন নিয়ে বাঁচবো।
শরীয়তপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা আবদুর রহমান বলেন, আগুন নিয়ন্ত্রণের সময় কোনো দোকানদারকে পাওয়া যায়নি। ক্ষয়ক্ষতির পরিমান তদন্ত ছাড়া তাৎক্ষণিকভাবে বলা যাচ্ছে না। তবে অনেক দোকানপাট ও মালামাল পুড়ে গেছে।
শরীয়তপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান বলেন, পিআইও’র মাধ্যমে সরকারি সাহায্যের জন্য আবেদন ফরম পাঠিয়েছি। ফরম পূরন করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে।
ফুলবাড়ীতে পুড়ে গেছে ৪ বসতঘর
ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা জানান, কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে তিনটি পরিবারের চারটি বসতঘর একটি গরু, একটি ছাগল, হাঁস-মুরগি ও আসবাবপত্র পুড়ে দুই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। সোমবার ভোরে উপজেলার কুটিচন্দ্রখানা একতা উচ্চবিদ্যালয়সংলগ্ন গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই গ্রামের আইয়ুব আলীর গোয়ালঘরে মশা তাড়ানোর কয়েল থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যে আগুন পার্শ্ববর্তী কপিল উদ্দিন ও ফজলুল হকের বসতবাড়িতে ছড়িয়ে পড়ে। পরে স্থানীয় লোকজনের প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।
ফুলবাড়ী সদর ইউপি চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্ত তিনটি পরিবারের মধ্যে ১৫ হাজার টাকা প্রদান করেছেন।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.