লিভ টু আপিল খারিজ সলিমুল্লাহ এতিমখানাকে ভবন বুঝিয়ে দিতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর আজিমপুরে স্যার সলিমুল্লাহ মুসলিম এতিমখানার জায়গায় তৈরি করা বহুতল ভবন ওই এতিমখানাকে বুঝিয়ে দিতে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কনকর্ডকে নির্দেশ দেয়া হাইকোর্টের রায় বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।
কনকর্ডের দায়ের করা লিভ টু আপিল খারিজ করে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে তিন বিচারপতির আপিল বেঞ্চ গতকাল হাইকোর্টের রায় বহাল রাখেন।
এ আদেশের ফলে এখন দ্রুত ভবনটি এতিমখানাকে বুঝিয়ে দিতে হবে বলে জানিয়েছেন এ মামলায় পক্ষভুক্ত মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) আইনজীবী মনজিল মোরসেদ।
আদালতে লিভ টু আপিলের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, অ্যাডভোকেট এ এম আমিন উদ্দিন, মাহবুব আলী ও এম এ হান্নান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। আর রিটকারীদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এ ওয়াই মশিউজ্জামান ও অনীক আর হক।
মামলার নথিতে বলা হয়, ১৯০৯ সালে ঢাকার নবাব ‘সলিমুল্লাহ এতিমখানা’ স্থাপন করেন। এর পর থেকে সরকারের কাছ থেকে বিভিন্ন সময় জমি ইজারা নিয়ে সম্প্রসারণের মাধ্যমে আজিমপুর সলিমুল্লাহ মুসলিম এতিমখানা পরিচালিত হয়ে আসছে। ২০০৩ সালের ২২ জুলাই এতিমখানার দায়িত্বপ্রাপ্ত সভাপতি বেগম শামসুন্নাহার আহসান উল্লাহ ও সেক্রেটারি জি এ খান এতিমখানার দুই বিঘা জমি আবাসন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কনকর্ডের কাছে হস্তান্তর করে দলিল করে দেন। ওই সম্পত্তি হস্তান্তর নিয়ে বিভিন্ন দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশের পর এতিমখানার চারজন শিক্ষার্থীর পক্ষে ২০১৩ সালে একটি রিট আবেদন করা হয়। এতে মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরপিবি) পক্ষভুক্ত হয়। এ বিষয়ে প্রাথমিক শুনানি শেষে ২০১৩ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট রুল জারির পাশাপাশি নির্মাণকাজে স্থিতাবস্থা জারি করেছিলেন। এতিমখানার সম্পত্তি সংরক্ষণে বিবাদিদের নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না এবং লিজ চুক্তির শর্ত অনুযায়ী তা সংরক্ষণের নির্দেশ কেন দেয়া হবে না তা জানতে চাওয়া হয় রুলে। এই রুলের ওপর শুনানি শেষে গত ১৭ সেপ্টেম্বর হাইকোর্ট এতিমখানার সম্পত্তি হস্তান্তর সম্পর্কিত দলিল বাতিল ঘোষণা করেন। সেই সাথে ওই জমিতে নির্মিত বহুতল ভবন রায়ের অনুলিপি পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে এতিমখানাকে বুঝিয়ে দিতে কনকর্ডকে নির্দেশ দেয়া হয়।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.