নেপালে বিধ্বস্ত বিমানের যাত্রী ছিলেন খুলনার আলিফ

খুলনা ব্যুরো

নেপালের কাঠমান্ডুতে দুর্ঘটনায় বিধ্বস্ত বিমানে খুলনার আলিফুজ্জামান আলিফ (২৬) নামে এক যুবক রয়েছেন। দুর্ঘটনার পর থেকে তার সাথে পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তার ভাগ্যে ঠিক কী ঘটেছে, তাও বলতে পারছেন না পরিবারের সদস্যরা। তবে আলিফের বন্ধুদের ফেসবুকে বিষয়টি ভাইরাল হলে জানা যায়, আলিফুজ্জামান আলিফ খুলনার রূপসা উপজেলার আইচগাতি বারোপোল গ্রামের মো: আসাদুজ্জামানের ছেলে। তিনি খুলনার সরকারি বি এল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে এবার মাস্টার্স পরীক্ষা দিয়েছেন। তিনি খুলনা জেলা প্রজন্ম লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ছিলেন।
আলিফের নিকটাত্মীয় মো: সাব্বির খান দ্বীপ জানান, আলিফ নেপাল ভ্রমণের জন্য সোমবার সকালে বাড়ি থেকে বের হয়। যশোর থেকে প্রথম ফ্লাইটে বেসরকারি এয়ারওয়েজ নভো এয়ারে ঢাকায় যায়। বেলা পৌনে ১টার দিকে ইউএস-বাংলার (ফ্লাইট বিএস ২১১) ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রওনা হয় নেপালের উদ্দেশে। আলিফ বিমানের সর্বশেষ আসনে ছিল। নেপালের স্থানীয় সময় বেলা ২টা ২০ মিনিটে কাঠমান্ডুতে নামার সময় পাইলট নিয়ন্ত্রণ হারালে বিমানটি রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে এবং আগুন ধরে যায়। বিমানে উড্ডয়নের আগে তার ফেসবুক আইডি থেকে বেশ কয়েকটি ছবি আপলোড করে, যা তার বন্ধুরা দুর্ঘটনার পরপরই ফেসবুকে ছড়িয়ে দেন।
আলিফের বড় ভাই আশিকুজ্জামান হামিম ও ছোট ভাই ইয়াসিন আরাফাত বলেন, তারা তাদের ভাইয়ের সঠিক কোনো তথ্যই এখনো পাননি। যোগাযোগের চেষ্টা করছেন। এর বেশি কিছু বলতে পারেননি তারা।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.