পাইলটের সাথে ট্রাফিক কন্ট্রোলারের কথোপকথন

নিজস্ব প্রতিবেদক
ইউএস বাংলার বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার আগে পাইলটের সাথে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের যে কথোপকথন হয় তার রেকর্ড সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেছে।
এ কথোপকথন থেকে স্পষ্ট বোঝা যায়, এটিসির ভুল নির্দেশনায় পাইলট বিভ্রান্ত হয়েছেন। কথোপকথনে প্রথমে ট্রাফিক কন্ট্রোল ইউএস বাংলাকে বলছে রানওয়ে ২০ বরাবর অ্যাপ্রোচ না করতে। (রানওয়ের এক পাশের নম্বর ২০, অন্যপাশের ০২) কারণ ট্রাফিক আছে ওই পাশে, ২৭০ ডিগ্রির মতো টার্ন নিতে বলেছে। পাইলট তখন বলেছেন, ওকে। এর কিছুণ পরে ট্রাফিক কন্ট্রোল বলেছে ইউএস বাংলাকে রানওয়ে ২০ কিয়ার, এখন অ্যাপ্রোচ করতে পারো ২০ বরাবর। তখনো পাইলটের কাছে রানওয়ে ভিজিবল না। এর একটু পরে ট্রাফিক কন্ট্রোলের আরেকজন (গলা শুনে বোঝা গেছে যে প্রথমে কথা বলেছে সে না) জিজ্ঞেস করে ইউএস বাংলাকে, রানওয়ে কি দেখা যাচ্ছে? পাইলট প্রথমে না বললেও কয়েক সেকেন্ড পরেই বলে হ্যাঁ রানওয়ে দেখা যাচ্ছে এবং পাইলটের পাশ থেকে ০২ প্রান্তটা দেখা যাচ্ছিল। 
কারণ শুরুতে ২০-এর দিকে অ্যাপ্রোচ না করতে বলার কারণে কিন্তু অন্য পাশে আগেই ঘুরে গিয়েছিল ইউএস বাংলা। ০২ নজরে পড়ে পাইলটের এবং তিনি বলেন , ০২ বরাবর তিনি ল্যান্ড করতে যাচ্ছেন। তখন ট্রাফিক কন্ট্রোল বলে, ঠিক আছে করো ০২ বরাবর ল্যান্ড। এর একটু পরেই প্রথমে ট্রাফিক কন্ট্রোলের যে কথা বলেছিল সে আরেকটা প্লেনকে বলে যে, ইউএস বাংলা ২০ বরাবর ল্যান্ড করছে। কারণ শুরুতে ইউ এস বাংলাকে সে ওই বরাবর কিয়ার করে দিয়েছে। অন্য ট্রাফিক কন্ট্রোলার যে নিজের মতো করে আন্দাজে ০২ বরাবর ল্যান্ড করতে বলেছে ইউএস বাংলাকে তা সে শোনেনি। এই ০২ বরাবর ল্যান্ড করতে গিয়েই দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে ইউএস বাংলা। অরতি ০২ বরাবর ল্যান্ড করতে যাবে এমন অবস্থায় সম্ভবত প্রথম ট্রাফিক কন্ট্রোলারের নজরে জিনিসটা আসে এবং তাকে পরে বলতে শোনা যায়, ইউএস বাংলা ডানে টার্ন করো। কিন্তু ততণে অনেক দেরি হয়ে গেছে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.