হানিমুন করা হলো না আঁখি-মিনহাজ দম্পতির
হানিমুন করা হলো না আঁখি-মিনহাজ দম্পতির

হানিমুন করা হলো না আঁখি-মিনহাজ দম্পতির

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

মাত্র ১৩ দিন আগে ব্যাপক আয়োজনে দাম্পত্য জীবনে পা রেখেছিল আঁখি মনি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর রুপসদী গ্রামের রফিকুল ইসলামের (পেশকার মিয়া) মেয়ে সে। নব দোলা রাজধানী ঢাকা মহাখালীর মিনহাজ বিন নাসির। বিয়ের পর দুই পরিবারের সম্মতিতেই নেপালে হানিমুন করতে যাচ্ছিল এই নব দম্পতি। কিন্তু সোমবারের বিমান দুর্ঘটনায় ভেঙ্গে গেল দুটি পরিবারের স্বপ্ন, আনন্দ পরিণত হলো বিষাদে।

বিমান দুর্ঘটনায় নিহত হলো আঁখি মনি ও তার স্বামী মিনহাজ বিন নাসির।
মঙ্গলবার নিহত আঁখি মনির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ ফেব্রুয়ারি গায়ে হলুদ, ১ মার্চ বিয়ে আর ৩ মার্চ বিবাহোত্তর সংবর্ধনা হয় আঁখি মনি ও মিনহাজ বিন নাসির দম্পতির। জাঁক-জমকপূর্ণ ওই অনুষ্ঠানের পর পরিবারের উদ্যোগেই তাদের নেপালে হানিমুনে পাঠানো হয়েছিল।

ঢাকার শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমানে নেপাল যাচ্ছিলেন তারা। বিমানটি সময়মতো কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরেও পৌঁছলেও অবতরণের সময় বিধ্বস্ত হয় যায়। বিমানেই প্রাণ হারান এ নবদম্পতি।

কাঠমান্ডুতে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্ত হবারর পর আঁখি ও মিনহাজের মোবাইল ফোন থেকেই দেশে তাদের মৃত্যুর খবর আসে। বর্তমানে কাঠমান্ডুর হাসপাতালের মর্গে এ নবদম্পতির নিথর লাশ পড়ে রয়েছে।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.