অবশেষে শামির বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত হওয়ার আসল কথা ফাঁস করলেন হাসিন!
অবশেষে শামির বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত হওয়ার আসল কথা ফাঁস করলেন হাসিন!

অবশেষে শামির বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত হওয়ার আসল কথা ফাঁস করলেন হাসিন!

নয়া দিগন্ত অনলাইন

ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামির বিরুদ্ধে আবার একরাশ ক্ষোভ উগড়ে দিলেন স্ত্রী হাসিন জাহান। এবার শামি ও তার পরিবারের সদস্যদের গ্রেফতারের দাবি জানালেন হাসিন। সোমবার আলিপুর আদালতে গোপন জবানবন্দী দেন হাসিন।
ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারা অনুযায়ী বিচারক নিজেই এক্ষেত্রে জবানবন্দি গ্রহণ করেন। সেজন্য মামলার ক্ষেত্রে ও পরবর্তী পর্যায়ে গোপন জবানবন্দি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষ্যপ্রমাণ হিসেবে বিবেচিত হয়।

প্রায় ২ ঘণ্টা গোপন জবানবন্দীর পর সাংবাদিকদের সামনে এসে নিজের স্বামী ও পাকিস্তানি মডেল আলিশবার উপর ক্ষোভ উগড়ে দেন হাসিন। তিনি জানিয়েছেন, ‘‌আলিশবাই আমার ঘর ভেঙেছে। জানুয়ারি মাস থেকেই ওরা পরিকল্পনা করে চলেছে।’‌

এরপরই হাসিন বলেন, ‘‌দুবাইয়ে পরিকল্পনা করেই দেখা করেছিল শামি–আলিশবা। ও একজন যৌনকর্মী না শামির গার্লফ্রেন্ড আমি জানি না।’‌ পাকিস্তানী তরুণী দাবি করেছিলেন, তিনি শামির ভক্ত। সে তত্ত্ব উড়িয়ে দিয়ে হাসিন বলেছেন, ‘‌আলিশবা ভক্ত নয়। শামির গার্লফ্রেন্ড।’‌ এরপরই বিস্ফোরণ ঘটান হাসিন। বলে দেন, ‘‌এখুনি শামি ও তার পরিবারের সদস্যদের গ্রেফতার করা হোক। মেয়ে বলে কী সবকিছু আমাকে সহ্য করতে হবে।’‌ ‌‌

সোমবার আলিপুর আদালত থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিল বাড়িতে যান হাসিন। মুখ্যমন্ত্রীর সাহায্য চেয়ে তার সঙ্গে দেখা করার আবেদন জানিয়ে এসেছেন হাসিন। মমতার বাড়ি থেকে বেরিয়ে হাসিন বলেন, ‘‌সবকিছু প্রকাশ্যে আসা উচিত। শামি ও আলিশবা দু’‌জনেই মিথ্যে বলছে। এই পরিস্থিতিতে আমি আর লড়াই করতে পারছি না। আমি তো বলব শামিকে প্রকাশ্যে নিয়ে আসুক সাধারণ মানুষ। ওকে প্রশ্ন করুন, কেন সমানে মিথ্যে কথা বলে চলেছে।’‌ এরপরই হাসিন বলেন, ‘‌আলিশবার বক্তব্য প্রকাশ পেতে অনেকেই শামিকে সমর্থন করছেন। একজন নারী হিসেবে ন্যূনতম সম্মানটা আমার পাওয়া উচিত।’‌ ‌‌

এদিকে, দুবাইয়ে শামির পাক-তরুণী যোগের প্রসঙ্গ তুলে যে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছেন হাসিন, তার প্রেক্ষাপটে কলকাতা পুলিশকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই। কলকাতা পুলিশসূত্রে খবর, বোর্ডের রিপোর্টে জানানো হয়েছে, ১৭ ও ১৮ ফেব্রুয়ারি দুবাইয়েই ছিলেন শামি। তবে, ব্যক্তিগত কাজে তিনি সেখানে গিয়েছিলেন কি না, তার সঙ্গে কেউ ছিল কি না, সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

পাশাপাশি, উত্তরপ্রদেশের আমরোহায় এদিন ফের শামির পৈতৃক ভিটেতে হাজির হয় কলকাতা পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ। জিজ্ঞাসাবাদ করেন বাড়ির মহিলাদের। শামির বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে হাসিনের আনা ধর্ষণের অভিযোগের তদন্তেই আমরোহা গিয়েছেন তারা। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে একজন চিকিৎসককেও। এর মধ্যে মঙ্গলবার শামির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত রিপোর্ট জমা দেবে বোর্ডের দুর্নীতি দমন শাখা। শামি বিতর্কের পানি কোনদিকে গড়ায় সেদিকেই নজর সবার।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.