অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের মুখের সামনে গিয়ে বার বার চিৎকার করছিলেন কাগিসো রাবাদা
অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের মুখের সামনে গিয়ে বার বার চিৎকার করছিলেন কাগিসো রাবাদা

সেই কাণ্ডে 'নির্দোষ' রাবাদা! আইসিসির কোড অব কন্ডাক্ট স্রেফ তামাশা

নয়া দিগন্ত অনলাইন

আপিলে জয়ী হলেন কাগিসু রাবাদা। মুক্তি পেলেন দুই টেস্টে নিষিদ্ধ হওয়ার খড়গ থেকে। মঙ্গলবার এক অফিসিয়াল বিবৃতিতে আইসিসি জানায়, কোড অব কন্ডাক্ট ভঙের শাস্তির বিরুদ্ধে আপিলে জয়ী হয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার পেসার কাগিসো রাবাদা। তার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার দারুণ সুখবর স্বাগতিকদের জন্য। কারণ তৃতীয় টেস্টে অংশ নিতে কোনো বাধা রইল না রাবাদার।

চার ম্যাচের সিরিজে আফ্রিকানদের ১-১ ব্যবধানে সমতায় ফেরাতে মুখ্য অবদান রাখেন এই তরুণ পেসার। পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টে তার একার বোলিং তাণ্ডবেই হার নিশ্চিত অস্ট্রেলিয়ার। দুই ইনিংস মিলিয়ে রাবাদার ১১ উইকেট এক্স ফ্যাক্টর ভূমিকা পালন করেছে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের ফলাফল নির্ধারণে। তরুণ পেসারের আপিল সফল হওয়ায় উচ্ছ্বসিত আফ্রিকানদের সাথে প্রকাশ্য দ্বিমত প্রকাশ করেছেন বর্ষীয়ান ক্রিকেট সাংবাদিক রবার্ট ক্রাডক।

গতকাল দ্য ব্যাক পেজ লাইভ গ্রোগ্যোমে অংশ নিয়ে তিনি বলেন, ‘রাবাদার আপিল সফল হওয়ার ঘটনা ক্রিকেটের জন্য সুখবর নয়। এই ঘটনার মধ্য দিয়ে আইসিসির কোড অব কন্ডাক্ট স্রেফ তামাশার বিষয়ে পরিণত হয়েছে।’

গতকাল আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে রাবাদার আপিল সফল হওয়ার ঘোষণা দেয় আইসিসি। বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, ‘কোড অব কন্ডাক্ট ভঙের অভিযোগে দোষী প্রমাণিত হননি রাবাদা। শুনানিতে স্টিভেন স্মিথের সাথে রাবাদার ইচ্ছাকৃত অশোভন আচরণের অভিযোগের সপক্ষে কোনো প্রমাণ শুনানিতে অংশ নেয়া প্যানেলের সদস্যরা দেখতে পারেননি।’

আইসিসির শুনানিতে হালকা ধরনের অপরাধে অভিযুক্ত হয়েছেন রাবাদা। এই ক্যাটাগরির অন্তর্ভুক্ত কোড অব কন্ডাক্টকে ক্রিকেটের স্পিরিটের সাথে সম্পর্কযুক্ত হিসেবে দেখা হয়। ফলে পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টে রাবাদার তিন ডিমেরিট পরিণত হয ১ পয়েন্টে, যা সরাসরি প্রভাব রেখেছে তার সিরিজের সম্মিলিত ডিমেরিট হজমের সংখ্যা ৭-এ অবনমনে। কোনো ক্রিকেটার ৮ ডিমেরিট পয়েন্ট হজম করলেই দুই ম্যাচের অটোম্যাটিক নিষেধাজ্ঞা হজমের ফাঁদে আটকা পড়বেন। রাবাদা রক্ষা পেয়েছেন সব মিলিয়ে ১ ডিমেরিট পয়েন্ট কম হজমের আওতায়। ফলে তৃতীয় টেস্টে তার অংশ্রগ্রহণেও কোনো বাধা রইল না।

আগামীকাল কেপটাউনে শুরু হবে অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার চার ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় টেস্ট।

 

মাঠের সেই কাণ্ডে 'নিষিদ্ধ' রাবাদা

এলিজাবেথে অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে ব্যাট-বলের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে পুরো মাঠেই। কখনো মাঠের বাইরে। প্রথম টেস্টে অসি ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নারের সাথে প্রোটিয়া ডি ককের বাক-বিতণ্ডা। ফলাফল ওর্য়ানারের জরিমানা ও ডিমেরিট পয়েন্টযুক্ত। আর দ্বিতীয় টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার বিধ্বংসী বোলার কাগিসো রাবাদার আক্রমণাত্মক উদযাপনের ফলাফল দুই ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা।

দ্বিতীয় টেস্টে ১১ উইকেট শিকার করেছেন রাবাদা। প্রথম ইনিংসে নিয়েছিলেন পাঁচটি উইকেট। সেদিন তার প্রথম শিকার ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। তাকে সাজঘরে ফেরানোর সময় রাবাদার উদযাপন ছিল খুবই দৃষ্টিকটু। স্মিথের মুখের সামনে এসে বার বার আগ্রাসী উদযাপন করেন এই প্রোটিয়া পেসার। শুধু তা-ই নয়, ক্রিজ ছাড়ার সময় স্মিথের গায়ে জোরে ধাক্কা লাগে তার। সাথে সাথেই ফিরে তাকান স্মিথ।

পুরো ঘটনায় রাবাদা এতটাই আক্রমণাত্মক ছিলেন যে, তার শাস্তি প্রায় নিশ্চিত ছিল। সেটাই হয়েছে। সোমবার টেস্ট শেষ হওয়ার পরই আইসিসি ঘোষণা দেয়, পরের দুটি টেস্টে নিষিদ্ধ রাবাদা।

শাস্তি ঘোষণা করেন ম্যাচ রেফারি জেফ ক্রো বলেন, 'আমার মনে হয় রাবাদার আচরণ ঠিক ছিল না। তিনি ইচ্ছে করলে ধাক্কা এড়াতে পারতেন। আমি এমন কোনো প্রমাণ পাইনি যে এটা অনিচ্ছাকৃত ছিল।'

অপরদিকে শাস্তি মেনে নিয়ে রাবাদা বলেছেন, 'আমি দলের ক্ষতি করছি, নিজেরও ক্ষতি করছি। এসব থামাতেই হবে। আমি বারবার নিজের দলকে ডুবিয়ে দিতে চাই না।'

তবে এই সিদ্ধান্তকে মেনে নিতে পারছেন না দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। বলেন, 'ডেভিড ওয়ার্নার যদি কুইন্টন ডি ককের সাথে ঝামেলা করে নিষিদ্ধ না হন, তা হলে রাবাদাকে কেন হবে?'

এই সিরিজের দুটি টেস্ট এখনো বাকি। দুই দলের খেলোয়াড়দের এই দ্বন্দ্ব পরে আরো উত্তেজনা ছড়ায় কিনা তা-ই এখন দেখার বিষয়। (১৩ মার্চ প্রকাশিত সংবাদ)

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.