রাবাদা ইস্যু ভুলে তৃতীয় টেস্টের লড়াইয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া

নয়া দিগন্ত অনলাইন

সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট থেকেই দক্ষিণ আফ্রিকার ডান-হাতি পেসার ও বিশ্বসেরা বোলার কাগিসো রাবাদা ইস্যু নিয়ে সরগরম ক্রিকেট বিশ্ব। দক্ষিণ আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়দের সাথে ক্রিকেটপ্রেমিদের উৎসাহের কমতিও ছিল না। তবে কেপটাউনে তৃতীয় টেস্ট শুরুর একদিন আগে রাবাদা ইস্যু ভুলতে বসেছে সকলে। কারণ তৃতীয় টেস্ট নিয়ে এখন মনোযোগি খেলোয়াড়রা। প্রথম দুই টেস্ট শেষে সিরিজে ১-১ সমতা। তাই তৃতীয় টেস্টে জয় তুলে নিয়ে সিরিজে লিড নেয়ার প্রত্যাশায় দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া উভয় দলেরই। কেপটাউনের নিউল্যান্ডসে আগামীকাল বাংলাদেশ সময় দুপুর আড়াইটায় শুরু হবে সিরিজে তৃতীয় টেস্ট।

পোর্ট এলিজাবেথে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসে দলটির অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথকে আউট করার পর কাঁধে ধাক্কা মারেন রাবাদা। এখানেই রাগ থামিয়ে ফেলেননি তিনি। এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকে আউট করে মাঠ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। যা অন-ফিল্ড আম্পায়ার ও ম্যাচ রেফারির চোখ এড়ায়নি। ফলে আইসিসির আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে দুই ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা পান রাবাদা। পাশাপাশি ম্যাচ ফির ৫০ শতাংশ জরিমানা করা হয় তাকে।
তবে এমন শাস্তি মেনে নিতে পারেনি রাবাদা। তাই গত বৃহস্পতিবার নিষেধাজ্ঞার বিপক্ষে আপিল করেন তিনি। আপিলে সুংসবাদ পান রাবাদা। আপিলে জয়ী হন তিনি। পুরো সিরিজ থেকেই তার উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে যায়। ফলে সিরিজের তৃতীয় ও চতুর্থ টেস্টে খেলতে রাবাদার আর কোন বাধা নেই।

তাই সেখানেই শেষ হয়ে যায় রাবাদা ইস্যু। সিরিজের তৃতীয় টেস্ট দরজায় কড়া নাড়ায় ক্রিকেটের মাঠের বাইরের সকল ইস্যুকে ভুলে গিয়ে এবার ব্যাট-বলের লড়াইয়ে অপেক্ষায় দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়া। এমনটা অকপটে স্বীকার করলেন প্রোটিয়া কোট ওটিস গিবসন। তিনি বলেন, ‘গেল কয়েকদিন আমরা আসলেই ক্রিকেট থেকে দূরে ছিলাম। কারন দল ও বিশ্বসেরা বোলার নিষেধাজ্ঞার কবলে। তাকে খেলানোর জন্য আমরা উদগ্রীবই ছিলাম। অবশ্য কোন কিছুই আমাদের হাতে ছিলো না। অবশেষে আমাদের ইচ্ছা পূরণ হয়েছে। রাবাদার নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় আমরা খুশি। এবার ক্রিকেট লড়াইয়ে নিজেদের শামিল করার পালা।’

ডারবানে সিরিজের প্রথম টেস্ট ১১৮ রানে জিতে দুর্দান্ত শুরু করে সফরকারী অস্ট্রেলিয়া। তবে সিরিজে সমতা আনতে সময়ক্ষেপন করেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। পোর্ট এলিজবেথ টেস্টেই ঘুরে দাঁড়ায় তারা। রাবাদার বোলিং নৈপূন্য দক্ষিণ আফ্রিকাকে সিরিজে সমতা আনতে বড় ভূমিকা রাখে। ১৫০ রানের বিনিময়ে ১১ উইকেট শিকার করেন তিনি। ফলে ৬ উইকেটের জয়ে সিরিজে সমতা আনতে পারে দক্ষিণ আফ্রিকা।

সিরিজের তৃতীয় টেস্টও জিততে চান গিবসন। কেপটাউন টেস্ট জিতে সিরিজে লিড নেয়ার লক্ষ্যের কথা বললেন গিবসন, ‘সিরিজে পিছিয়ে পড়লেও খেলোয়াড়রা দুর্দান্তভাবে ঘুড়ে দাঁড়িয়েছে। পোর্ট এলিজবেথে এবি ডি ভিলিয়ার্স ও রাবাদার পারফরমেন্স ছিলো চোখে পড়ার মতো। প্রথম ইনিংসে ডি ভিলিয়ার্সের সেঞ্চুরি ম্যাচে আমাদেরকে লিডের সুযোগ করে দেয়। পাশাপাশি রাবাদার দুরন্ত বোলিং আমাদের জয়ের স্বাদ দেয়। তাই জয়ের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখে এবার আমরা লিড নিতে চাই।’

সিরিজে লিড নিতে চাইছে অস্ট্রেলিয়াও। কাজটি সহজ হবে না বলে মনে করেন অসিদের কোচ ড্যারেন লেহম্যান। তবে সিরিজে লিড নেয়ার সাহস ঠিকই পাচ্ছেন তিনি। সিরিজের প্রথম টেস্ট জয় অস্ট্রেলিয়াকে উদ্দীপ্ত করছে জানিয়ে লেহম্যান বলেন, ‘যেভাবে আমরা সিরিজ শুরু করেছি, এটি সত্যিই প্রশংসনীয়। প্রথম টেস্টে এতটা সহজে জিতবো আমরা তা ভাবিনি। কিন্তু পরের ম্যাচেই আমাদের হেরে যেতে হয়েছে। তবে আমাদের আত্মবিশ্বাসে কোন প্রকার চিড় ধরেনি। আমরা এখনো জয়ের জন্য মুখিয়ে আছি। নিজেদের সেরা পারফরমেন্স দিয়েই সেরা সাফল্য অর্জন করতে চাই আমরা। এজন্য ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। কেপটাউনের স্মৃতি দ্রুত ভুলে যাওয়াই ভালো। এতে দলেরই উপকার হবে। সবকিছু ভুলে ক্রিকেট খেলায় মনোযোগি হতে পারলে আমাদের লক্ষ্য পূরণ হবে।’

গেল জানুয়ারিতেই এই ভেন্যুতেই টেস্ট খেলেছিলো দক্ষিণ আফ্রিকা। ভারতের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে জয় দিয়ে শুরু করে তারা। ৭২ রানে জয় পায় তারা। তাই ঐ জয়ও টোটকা হিসেবে কাজ করবে প্রোটিয়াদের। ভারতের বিপক্ষে ঐ টেস্টের মতই পিচের কন্ডিশন হবে বলে জানিয়েছেন নিউল্যান্ডসের গ্রাউন্ডসম্যান। তাই খুশি দক্ষিণ আফ্রিকার কোচ গিবসন, ‘ গ্রাউন্ডসম্যান জানিয়েছেন পিচ কন্ডিশন সর্বশেষ ম্যাচের মতোই হবে। আশা করছি, আমরা আগের মত এবারও ভালো পারফরমেন্স করতে পারবো।’
দক্ষিণ আফ্রিকা দল : ফাফ ডু-প্লেসিস (অধিনায়ক), হাশিম আমলা, তেম্বা বাভুমা, থিউনিস ডি ব্রুন, কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), এবি ডি ভিলিয়ার্স, ডিন এলগার, হেনরিচ ক্লাসেন, কেশব মহারাজ, আইডেন মার্করাম, মরনে মরকেল, ক্রিস মরিস, উইলেম মুল্ডার, লুঙ্গি এনগিডি, ডুয়াই ওলিভার, ভারনন ফিলান্ডার ও কাগিসো রাবাদা।

অস্ট্রেলিয়া দল : স্টিভেন স্মিথ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, ক্যামেরন বেনক্রফট, প্যাট কামিন্স, পিটার হ্যান্ডসকম্ব, জশ হ্যাজেলউড, জন হল্যান্ড, উসমান খাজা, নাথান লিঁও, মিচেল মার্শ, শন মার্শ, টিম পাইন (উইকেটরক্ষক), জে রিচার্ডসন, চাঁদ শ্রেয়াস ও মিচেল স্টার্ক।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.