৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস এডিবির
৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস এডিবির

৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস এডিবির

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক

প্রবৃদ্ধি নিয়ে সরকারের পূর্বাভাসের সাথে মিলছে না আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) পূর্বাভাস। এডিবি বলছে, চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছর এই প্রবৃদ্ধি হবে ৭ শতাংশ। যেখানে সরকারের পরিকল্পনন্ত্রী ঘোষনা করেছিলেন ৭ দশমিক ৬৫ শতাংশ।

আজ আগারগাওস্থ এডিবির ঢাকা অফিসে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক প্রকাশ করতে গিয়ে এ পূর্বাভাস দেয় সংস্থাটি। এতে বক্তব্য রাখেন কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ। উপস্থাপনা তুলে ধরেন সংস্থার অর্থনীতিবিদ সুন চ্যান হং।

এডিবি বলছে, আগামী অর্থবছর প্রবৃদ্ধি হবে ৭.২ শতাংশ। তবে টেকসই উচ্চ প্রবৃদ্ধির জন্য অর্থনৈতিক বহুমূখীকরন অত্যাবশ্যক। রফতানিকে সম্প্রসারন করতে হবে। বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়াতে অব্যাহত রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা প্রয়োজন।

এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন ব্যবসায় ব্যয় কমানো, অবকাঠামো খাতের দুর্বলতা দুর করতে এই খাতে বিনিয়োগ প্রয়োজন, অর্থনৈতিক বহুমুখীকরণ ও বিশ্বপ্রতিযোগীতায় টিকতে কারিগরি ও ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বাড়াতে হবে এবং রাজস্ব খাতের সংস্কার অবকাঠামো ও দক্ষতা বাড়ানোয় অধিক অর্থায়নে সহায়তা করবে।

বিশ্বব্যাংকের সংশয় ঘোচাতে বিবিএসের সাথে বসতে বললেন মন্ত্রী

চলতি অর্থবছর বিবিএস ৭.৬৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এই হার নিয়ে প্রশ্ন তুলে সংশয় প্রকাশ করেছে বিশ্বব্যাংক। বিশ্বব্যাংকের সংশয় দূর করতে তাদেরকে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর সাথে বসার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, এই প্রবৃদ্ধি আরো বেশি হবে চলতি বছর। আর এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের কাছে সব তথ্য না থাকার তারা ৭ শতাংশ হবে বলেছে। তারা চার-পাচ মাসের তথ্য দিয়ে এটা বলছে।

বুধবার বিকেলে শেরেবাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলনকক্ষে এক ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, উন্নয়ন প্রকল্প কমিয়ে দেয়ার যে কথা বিশ্বব্যাংক বলেছে সেটার সাথে আমরা একমত না। আই এ্যাম সরি ওয়ার্ল্ড ব্যাংক। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংক বিভিন্ন দেশকে এই ধরনের পরামর্শ দিয়েছে।

তিনি বলেন, কোনো উন্নয়ন সহযোগী বিবিএসের তথ্য নিয়ে বিতর্ক তোলেনি। আগামী মে মাস পর্যন্ত সময় দিলাম ব্যুরোর সাথে বসে তাদের সংশয় দূর করে তাদের পূর্বাভাস সংশোধন করতে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.