শিশুদের তথ্য সংগ্রহ করছে ইউটিউব

আহমেদ ইফতেখার

অবৈধভাবে শিশুদের তথ্য সংগ্রহের অভিযোগ উঠেছে গুগল নিয়ন্ত্রিত ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইউটিউবের বিরুদ্ধে। কয়েক বছর ধরে প্রতিষ্ঠানটি অবৈধভাবে কোটি কোটি মার্কিন শিশুর তথ্য সংগ্রহ করছে। এর মাধ্যমে ইউটিউব বিপুল মুনাফা করছে। অপ্রাপ্তবয়স্ক গ্রাহকদের তথ্য সংগ্রহ করায় ২০টি অ্যাডভোকেসি গ্রুপ প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ফেডারেল ট্রেড কমিশনে অভিযোগ করেছে। ঐ অভিযোগে বলা হয়েছে, শিশুদের তথ্য সংগ্রহ করায় চাইল্ড অনলাইন প্রাইভেসি প্রটেকশন অ্যাক্ট (সিওপিপিএ) লঙ্ঘন করেছে ইউটিউব। 

১৩ বছরের নিচে শিশুদের তথ্য সংগ্রহ বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে সিওপিপিএ আইনে। প্রতিটি মার্কিন কোম্পানির জন্য এ আইন মানা বাধ্যতামূলক। তবে কোনো কারণে শিশুদের তথ্য সংগ্রহের প্রয়োজন পড়লে মা-বাবার অনুমতি নেয়া-সাপেক্ষে তা সংগ্রহের সুযোগ রয়েছে। ইউটিউবের নীতিমালায় বলা আছে, ১৩ বছরের নিচে কেউ এ প্লাটফর্ম ব্যবহারের সুযোগ পাবে না। গুগল অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে ইউটিউব সংশ্লিষ্ট গ্রাহকের বয়স ১৩ বছরের অধিক কিনা, তা যাচাই করে। বয়স যাচাইয়ের পরে গ্রাহককে ইউটিউব ব্যবহারের সুযোগ দেয়। তবে শিশুরা নিজেদের অ্যাকাউন্ট লগ ইন না করেও ইউটিউবের ভিডিও দেখার সুযোগ পায়। এক্ষেত্রে মা-বাবার অ্যাকাউন্ট ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে ট্রেনডেরার গবেষণার তথ্যমতে, ৮-১২ বছর বয়সী ৪৫ শতাংশ শিশুর ইউটিউব অ্যাকাউন্ট রয়েছে। গত বছরের শেষের দিকে গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, রায়ান নামে একটি শিশু মাত্র চার বছর বয়সে পরিবারের সহায়তায় ‘রায়ান টয়রিভিউ’ নামে ইউটিউব চ্যানেল চালু করেছিল। তার চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা কোটি ছাড়িয়েছে। ছয় বছর বয়সী রায়ানের আয় পৌঁছেছে ১ কোটি ১০ লাখ ডলারে। এ রকম একটি শিশুর চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন নিয়ে অনেকে ইউটিউবের সমালোচনা করেছেন। 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.