ads

রোবোটিক সার্জারি থেকে সাবধান
রোবোটিক সার্জারি থেকে সাবধান

রোবোটিক সার্জারি থেকে সাবধান, মৃত্যু ১৪৪ জনের

হামিম উল কবির

রোবোটিক সার্জারি থেকে সাবধান। গত ১৩ বছরে বিশ্বব্যাপী রোবটের মাধ্যমে অস্ত্রোপচার করতে গিয়ে মারা গেছে ১৪৪ জন এবং আহত হয়েছে এক হাজার ৩৯১। রোবটের মাধ্যমে অস্ত্রোপচার করে নানা ধরনের সমস্যায় আক্রান্ত হয়েছেন এমন ১০ হাজার অভিযোগ থেকে এ পরিসংখ্যানটি পাওয়া গেছে। ২০০০ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত প্রাপ্ত রিপোর্টের ভিত্তিতে গবেষণা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ এডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) এই ফলাফল তুলে ধরেছে।

সম্প্রতি ঢাকার একজন বিশিষ্ট গ্যাস্ট্রোএন্টেরোলজির চিকিৎসক অধ্যাপক ডা: মজিবুর রহমান ভূঁইয়া সিঙ্গাপুরে রোবোটিক সার্জারি করাতে গিয়ে মারা গেছেন। তিনি ইউরোলজিসংক্রান্ত জটিলতায় ভুগছিলেন। ঢাকার অনেক ইউরোলজিস্ট দৈনিক এ ধরনের অস্ত্রোপচার করে থাকেন সফলতার সাথে। মরহুম অধ্যাপক মজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠজনেরা জানিয়েছেন, অধ্যাপক মজিব অধিকতর সূক্ষ্ম অস্ত্রোপচারের জন্য গিয়েছিলেন সিঙ্গাপুরে রোবোটিক অস্ত্রোপচার করতে। কিন্তু রোবটের ভুল প্রগ্রামিংয়ের কারণে অস্ত্রোপচার করতে গিয়ে মুজিবুর রহমানের একটি প্রধান আর্টারি কেটে ফেলে। ফলে তার পেট মুহূর্তেই রক্তে ভরে যায় এবং তিনি রক্ত স্বল্পতায় দ্রুত মারা যান।

চিকিৎসকদের সূত্রে জানা গেছে, সিঙ্গাপুরে যাওয়ার আগে ঢাকার একজন বিশিষ্ট ইউরোলজিস্ট অধ্যাপক মজিবুর রহমানকে অনুরোধ করেছিলেন যেন অস্ত্রোপচারটি ওই অধ্যাপকের কাছেই সম্পন্ন করেন কিন্তু তিনি আগে থেকেই মনস্থির করেছিলেন যে, তিনি ইউরোলজিস্টের হাতে করবেন, সিঙ্গাপুরে গিয়ে রোবোটিক অস্ত্রোপচারই করবেন। চিকিৎসকদের সূত্রে জানা গেছে, ‘অধ্যাপক মজিবুর রহমান আরসিসি রেনাল সেল কার্সিনোমা’ রোগে ভুগছিলেন। এটা এক ধরনের ক্যান্সার।

এ ছাড়া বাংলাদেশ সামরিক বাহিনীর এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা প্রতিবেশী দেশে রোবোটিক সার্জারি করতে গিয়ে সমস্যায় আক্রান্ত হন বলে জানা গেছে। পরে তাকে দ্রুত হেলিকপ্টারে করে বাংলাদেশে নিয়ে আসা হয় এবং সমস্যা আক্রান্ত স্থানটি ওপেন করে দ্রুততার সাথে সার্জারি করে তাকে বাঁচিয়ে তোলা হয়।

রোবোটিক সার্জারি বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ^বিদ্যালয়ের শিশু সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক এবং এ বিশ^বিদ্যালয়ের সার্জারি অনুষদের সাবেক ডিন অধ্যাপক ডা: মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে নৈপুণ্য ও উৎকর্ষতা না থাকলে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। দুর্ঘটনা ঘটলে অনেক সময় হয়তো রোগী জীবনের জন্য বেঁচে গেলেও শারীরিক অথবা মানসিকভাবে পঙ্গুতের শিকার হতে পারেন। অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম বলেন, মেশিন বলুন অথবা রোবটই বলুন এর চালকের অতি উচ্চ মাত্রার প্রশিক্ষণ ও মেশিন নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা থাকতে হবে এবং একই সাথে জবাবদিহিতা না থাকলে এসব থেকে কল্যাণের চেয়ে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।
এফডিএ তাদের গবেষণায় বলেছে, রোবোটিক সার্জারিতে মৃত্যুসংক্রান্ত রিপোর্ট এলেও এ সম্বন্ধে তথ্য খুব কমই পাওয়া যায়। ফলে ‘চিকিৎসকের ভুলের কারণে রোগী মারা গেছে, না মেশিনের ভুল ছিল অথবা সার্জারির পর অন্য কোনো কারণে মারা গেছে’ এ সম্বন্ধে খুব বেশি তথ্য জানা যায় না।

এফডিএ’র গবেষণায় বলা হয়েছে ১০ হাজার রোবোটিক সার্জারির তথ্য থেকে জানা গেছে, আট হাজার ৬১টি অস্ত্রোপচারের সময় রোবটের ভুলের কারণে রোগীরা সুস্থ হওয়ার পরিবর্তে আরো বেশি সমস্যা আক্রান্ত হয়েছে। এফডিএ বলেছে, গাইনি ও ইউরোলজির অস্ত্রোপচারে অপেক্ষাকৃত কম সমস্যা হয়ে থাকে। সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে অথবা অন্যান্য সমস্যার অভিযোগ এসেছে কার্ডিওথোরাসিক, মাথা ও ঘাড়ের অস্ত্রোপচারে।

তবে যুক্তরাজ্যের রয়াল কলেজ অব সার্জনসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, রোবোটিক সার্জারি ইনফেকশনের ঝুঁকি কমায় এবং রোগীকে দ্রুত সুস্থ করে দেয়। তবে এ ক্ষেত্রে তারা রোবট ব্যবহারে সাবধানতা অবলম্বনের কথা বলেছেন।

ads

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.