ইতিহাস গড়ল বার্সেলোনা
ইতিহাস গড়ল বার্সেলোনা

ইতিহাস গড়ল বার্সেলোনা

নয়া দিগন্ত অনলাইন

আগের ম্যাচের হতাশা ছেড়ে ফেলল বার্সেলোনা চমকপ্রদ এক রেকর্ড গড়ে। সেইসাথে লা লিগা শিরোপা জয়ও এখন হাতের নাগালে বলে মনে হচ্ছে। শনিবার এরনেস্তো ভালভেরদের দলের সামনে টিকতেই পারেনি ভ্যালেন্সিয়া। জয় তুলে নিয়েছে ২-১ গোলে।

স্পেনের সর্বোচ্চ লিগে এই নিয়ে টানা ৩৯ ম্যাচে অপরাজিত রইল বার্সেলোনা। আগের ম্যাচে রিয়াল সোসিয়েদাদের গড়া ৩৮ ম্যাচের রেকর্ড ছুঁয়েছিল এরনেস্তো ভালভেরদের দল। বাকি ছয় ম্যাচে আর ৭ পয়েন্ট পেলেই কোনো হিসাব ছাড়াই শিরোপা নিশ্চিত হবে বার্সেলোনার।

গত সপ্তাহে রোমার কাছে হেরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে ছিটকে পড়া বার্সেলোনার রক্ষণে ম্যাচের প্রথম মিনিটে বেশ চাপ সৃষ্টি করে ভালেন্সিয়া। চতুর্থ মিনিটে জোরালো শটে মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেনের পরীক্ষাও নেন পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড গনসালো।

তবে দ্রুতই নিজেদের গুছিয়ে নেয় রেকর্ড গড়ার হাতছানিতে মাঠে নামা বার্সেলোনা। ১৫তম মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোল পেয়ে যায় তারা। ফিলিপে কৌতিনিয়োর থ্রু-বল ছয় গজ বক্সে পেয়ে পোস্ট ঘেঁষে জালে পাঠান সুয়ারেস।
চলতি লিগে সুয়ারেসের এটা ২৩ নম্বর গোল।

২৩তম মিনিটে টের স্টেগেনের ভুলে বিপদে পড়তে পারতো বার্সেলোনা। তার বাড়ানো বল ভালেন্সিয়ার কার্লোস সোলের ধরে পাঠান রদ্রিগোকে। তবে স্প্যানিশ এই ফরোয়ার্ডের শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান জার্মান গোলরক্ষক। বল তার হাতে লেগে ক্রসবারে বাধা পায়।

দ্বিতীয়ার্ধের চতুর্থ মিনিটে সমতায় ফেরার সহজ সুযোগ নষ্ট করে অতিথিরা। সামুয়েল উমতিতির পিছলে পড়ে যাওয়ার সুযোগে সান্তি মিনা বল পায়ে এগিয়ে বাড়ান বাঁয়ে রদ্রিগোকে। তার শটে বল টের স্টেগেনকে ফাঁকি দিয়ে জালে ঢুকে যাচ্ছিল; কিন্তু শেষ মুহূর্তে রুখে দেন জেরার্দ পিকে।

৫১তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে বার্সেলোনা। ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার কৌতিনিয়োর কর্নারে হেডে বল জালে পাঠিয়ে খানিক আগের ভুলের প্রায়শ্চিত্ত করেন ফরাসি ডিফেন্ডার উমতিতি।
৬৫তম মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে মেসির জোরালো ভলি অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। পাঁচ মিনিট পর তার দারুণ ক্রসে আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার ভলি ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক নেতো। ৭৮তম মিনিটে আর্জেন্টিনা অধিনায়কের আরেকটি প্রচেষ্টা হয় লক্ষ্যভ্রষ্ট।

৮৭তম মিনিটে স্পট কিকে ব্যবধান কমান দানিয়েল পারেহো। স্প্যানিশ এই মিডফিল্ডারকেই বদলি হিসেবে নামা উসমান দেম্বেলে ফাউল করলে পেনাল্টিটি পায় ভালেন্সিয়া।

যোগ করা সময়ে দেনিস সুয়ারেসের শট গোলরক্ষক নেতো ঠেকিয়ে দিলে ব্যবধান আর বাড়েনি।

৩২ ম্যাচে ২৫ জয় ও সাত ড্রয়ে শীর্ষস্থান আরও মজবুত করা বার্সেলোনার পয়েন্ট ৮২। ৬৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে এক ম্যাচ কম খেলা আতলেতিকো মাদ্রিদ।

তৃতীয় স্থানে থাকা ভালেন্সিয়ার পয়েন্ট ৩২ ম্যাচে ৬৫। এক ম্যাচ কম খেলা রিয়াল মাদ্রিদ ১ পয়েন্ট কম নিয়ে আছে চতুর্থ স্থানে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.