কুমিল্লায় খালেদা জিয়ার জামিন নামঞ্জুর
কুমিল্লায় খালেদা জিয়ার জামিন নামঞ্জুর

কুমিল্লায় খালেদা জিয়ার জামিন নামঞ্জুর

কুমিল্লা সংবাদদাতা

কুমিল্লায় বাসে পেট্রোল বোমা হামলায় ৮জন নিহতের মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্তবর্তীকালীন জামিন নামঞ্জুর করেছে আদালত। সোমবার কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা এই আবেদন করেন। জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক জেসমিন আরা বেগম। বিচারক ২৩ এপ্রিল মামলার পরবর্তী শুনানীর দিন ধার্য করেন। খালেদার আইনজীবী অ্যাডভোকেট কাজী নাজমুস সাদত বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

১০ এপ্রিল খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা কুমিল্লার ৫নং আমলী আদালতে জামিন আবেদন করলে বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রয়ারি ভোরে ২০দলীয় জোটের অবরোধের সময় চৌদ্দগ্রামের জগমোহনপুরে একটি বাসে পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মারে দুর্বৃত্তরা। এতে আটজন যাত্রী দগ্ধ হয়ে মারা যান, আহত হন ২০ জন।

এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই নুরুজ্জামান বাদী হয়ে ৭৭জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলায় খালেদা জিয়াসহ বিএনপির শীর্ষস্থানীয় ছয়জন নেতাকে হুকুমের আসামি করা হয়। ৭৭জন আসামির মধ্যে তিনজন মারা যান, পাঁচজনকে চার্জশিটকে থেকে বাদ দেয়া হয়।

খালেদা জিয়াসহ অপর ৬৯ জনের বিরুদ্ধে কুমিল্লা আদালতে তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির পরিদর্শক ফিরোজ হোসেন চার্জশিট দাখিল করেন।

বন্দি মুক্তি আন্দোলন করবে বিএনপি : নোমান

বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে বিএনপি 'বন্দি মুক্তি' আন্দোলনে যাবে বলে জানিয়েছেন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান। সোমবার দুপুরে রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির স্বাধীনতা হলে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম আয়োজিত এক যুব সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন। আয়োজক সংগঠনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরী'র সভাপতিত্বে ‘বিএনপি নেতা এম ইলিয়াস আলী নিখোঁজের ৬ বছর অতিবাহিত হওয়ার প্রতিবাদ ও সন্ধানের দাবি' শীর্ষক এ সমাবেশ হয়।

আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেন, দেশে একটি নির্বাচন হবে। আর সেই নির্বাচনে আমরা অংশগ্রহণ করব এবং সেই নির্বাচনের পূর্বে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও কারাগারে আমাদের হাজার হাজার নেতাকর্মীরা যে আছেন, তাদেরকে আমরা মুক্ত করব। বন্দি মুক্তি আন্দোলন করব। তবে আমরা সহজে নির্বাচনকে বাদ দিয়ে এগিয়ে যেতে চাই না।

তিনি বলেন, সংবিধান সংশোধন করার ফলে নির্বাচন অর্থবহ হবে না। তাই এটা আমাদের আদায় করে নিতে হবে। একারণে সংশোধনী সংবিধান আবারও সংশোধন করে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে গিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে বা দেশের সকল রাজনৈতিক দলের সাথে আলোচনার মাধ্যমে দেশে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করতে হবে। এটাই আমরা চাই।

জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে নোমান বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমরা সেনা বাহিনী মোতায়েনের দাবি জানাচ্ছি। একইসাথে আসন্ন গাজীপুর ও খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও আমরা সেনা বাহিনী মোতায়েন চাই। এটা আজ জাতির দাবি নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলে আওয়ামী লীগ পরাজিত হবে- জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের এ বক্তব্যে উল্লেখ করে নোমান বলেন, একটি দেশের প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত তিনি। আর এরশাদ আমাদের চেয়ে একটু ভালো জানবেন। কারণ কয়েক দিন আগে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তিনি আলাদাভাবে মিটিং করেছেন। আর সেই মিটিংয়ে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এরশাদ উপলব্ধি করতে পেয়েছেন, হাসিনা অনেক দুর্বল হয়ে গেছেন। এই দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে ক্ষমতার শেয়ার নিতে হবে। আর শেয়ারটা এবার যথাপযুক্তভাবে নিবেন বলে এরশাদ আশা ব্যক্ত করেছেন।

বিএনপিও কিছুটা বিপদে আছে মন্তব্য করে দলটির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, বর্তমান সরকারের আচারণ ও নির্যাতন কারণে আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। আমরা আর পিছনে যেতে পারব না। আমরা পিছনে না গেছে আওয়ামী লীগ সামনের দিকে আসবে। আর সামনের দিকে এলে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে। আমরা সেই সাংঘর্ষিক পরিস্থিতিকে এড়িয়ে যেতে চাই। তাই আমরা বারবার আন্দোলন ও ভোটের কথা বলি। কিন্তু আমাদের আন্দোলন ভোট থেকে বিচ্ছিন্ন নয়।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.