পঞ্চগড় জেলা সদরের ধনদেবপাড়ায় শিলাবৃষ্টিতে ঝরে পড়েছে গাছের টমেটো : নয়া দিগন্ত
পঞ্চগড় জেলা সদরের ধনদেবপাড়ায় শিলাবৃষ্টিতে ঝরে পড়েছে গাছের টমেটো : নয়া দিগন্ত

পঞ্চগড়ে দ্বিতীয় দফা শিলাবৃষ্টিতে দিশেহারা টমেটোচাষিরা

পঞ্চগড় সংবাদদাতা

পঞ্চগড়ে দ্বিতীয় দফায় শিলাবৃষ্টিতে উঠতি ফসলের ব্যাপক ক্ষয় হয়েছে। গত শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে জেলার কিছু এলাকায় ব্যাপক শিলাবৃষ্টি হয়। বড় আকারের শিলাতে মাটিতে মিশে যায় কৃষকের ফসল। বিশেষ করে নাবী টমেটো চাষিদের ক্ষতি হয়েছে সবচেয়ে বেশি। কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, শিলাবৃষ্টিতে জেলার প্রায় ২৫ হেক্টর জমির বিভিন্ন ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে কৃষকদের দাবি ক্ষতিগ্রস্ত জমির পরিমাণ আরো অনেক বেশি।
কৃষকেরা জানান, শুক্রবার বিকেল থেকে আকাশ ভারী হতে শুরু করলেও সন্ধ্যার দিকে শুরু হয় ব্যাপক শিলাবৃষ্টি। পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাফিজাবাদ ইউনিয়নের উত্তর দিক থেকে শুরু করে হাড়িভাসা ও চাকলাহাট ইউনিয়ন হয়ে শিলাবৃষ্টি চলে যায় ভারতের দিকে। তাদের দাবি, আগের চেয়ে এবার শিলার আকার ছিল অনেক বড়। তাই ক্ষতিও হয়েছে অনেক বেশি। এই শিলাবৃষ্টিতে হাইব্রিড টমেটো, ভুট্টা, মরিচ, তরমুজ, বাদামসহ উঠতি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় টমেটোক্ষেত। গাছ থেকে সব টমেটো ঝরে মাটিতে পড়ে যায়। সেই সাথে গাছের ডালপালা ভেঙে মাটিতে শুয়ে পড়ে।
সদর উপজেলার ধনদেবপাড়া গ্রামের কৃষক আজিজার রহমান বলেন, এই মওসুমে আমি ও আমার দুই ছেলে মিলে এক একর জমিতে টমেটো আবাদ করেছিলাম। এতে আমাদের খরচ হয়েছিল ৭০ থেকে ৭৫ হাজার টাকা। গাছে ফল আসার সময় হয়ে এসেছিল; কিন্তু শুক্রবারের শিলাবৃষ্টিতে আমার সব ক্ষেত ধ্বংস হয়ে গেছে। গাছের টমেটো সব মাটিতে পড়ে শিলার আঘাতে নষ্ট হয়েছে। গাছের কাণ্ড ছিঁড়ে মাটিতে পড়ে গেছে। এখন এই গাছ থেকে আর ফল তোলার সুযোগ নেই। শুধু টমেটো নয়; পাশাপাশি করা এক একর জমির ভুট্টা ও মরিচেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি জানান। একই গ্রামের কৃষক আশরাফুল ইসলাম জানান, তারও এক বিঘার জমির টমেটোক্ষেত নষ্ট হয়েছে। তিনি জানান, আমাদের এলাকার প্রধান আবাদ হাইব্রিড টমেটো। সবাই কমবেশি জমিতে টমেটো আবাদ করে। বড় আকারের শিলায় সবার ক্ষেত নষ্ট হয়েছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিফতরের উপপরিচালক শামছুল হক বলেন, দ্বিতীয় দফায় শিলাবৃষ্টিতে পঞ্চগড়ে ২৫ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ১৫ হেক্টর জমির নাবী টমেটো, ৫ হেক্টর জমির তরমুজ ও ৫ হেক্টর জমির শাকসবজি ক্ষেত। ভুট্টাক্ষেত ক্ষতিগ্রস্ত হলেও আগামী কয়েক দিনের মধ্যে নতুন পাতা এলে কোনো সমস্যা হবে না। তিনি আরো বলেন, আমরা শিলাবৃষ্টিতে আক্রান্ত ফসলের ক্ষয়ক্ষতির হিসাব মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। সহায়তা পাওয়া গেলে কৃষকদের মধ্যে বিতরণ করা হবে।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.