কুলাউড়ায় নির্মাণাধীন কালভার্টে পড়ে ৬ মাসে আহত ১২

ময়নুল হক পবন কুলাউড়া (মৌলভীবাজার)

কুলাউড়ার গাজীপুর চা বাগানের ৭ নং লাইন নাজির মার্কেটসংলগ্ন মেইন সড়কে এলজিএসপির মাধ্যমে বাস্তবায়নকৃত কালভার্টটি যেন মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। গত ছয় মাসে কালভার্টটি অসম্পূর্ণভাবে ফেলে রাখা হয়েছে। বিকল্প চলাচলের কোনো সুযোগ না থাকায় প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। প্রায়ই মোটরসাইকেল, বাইসাইকেল আরোহী ও এ সড়কে চলাচলকারী লোকজন কালভার্টে পড়ে আহত হচ্ছেন। গত ছয় মাসে সাতটি দুর্ঘটনা হয়েছে এখানে। এতে হানিফ মিয়া, জালাল, ডিডাল সান্ডিম্যান, লছমি নারায়ণ, মনু মিয়া, মালেক মিয়াসহ কমপক্ষে ১২ জন আহত হয়েছেন।
গাজীপুর পঞ্চায়েত সদস্য ফরিদ মিয়া, ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদিন, পঞ্চায়েত সদস্য আকবর আলী, বাগানের লাইন চৌকিদার চাঁন মিয়া বলেন, গাজীপুর বাগানের ইউপি সদস্য রাম বিলাস দুষাদ নানকা প্রথমে তিন ফুট বাই ১০ ফুট কালভার্টের কিছু অংশ কাজ করে দুই মাস বন্ধ রাখেন। পরে এলাকাবাসী এ নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করলে কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক শাহজাহান গিয়ে কালভার্টটি ভেঙে বড় করে নির্মাণের নির্দেশ দিয়ে আবার কাজ শুরু করান। চেয়ারম্যানের কথামতো ছয় ফুট বাই ১২ ফুট কালভার্টটি দুই দিকের ওয়াল তৈরির পর ঢালাইয়ের কাজ করা হয়নি।
এ বিষয়ে কুলাউড়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ছালিক আহমদ বলেন, গাজীপুরের কালভার্টের ঢালাই কয়েকদিনের মধ্যে সম্পন্ন করা হবে।
এ বিষয়ে কুলাউড়া এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী শরীফুল ইসলাম বলেন, আমরা শুধু প্রকল্প প্রণয়ন ও তদারকি করি। মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ দেয়া হয় চেয়ারম্যান ও সচিবের নামে। চাইলেই আমরা বিল আটকাতে পারি না। গাজীপুরে কালভার্টের ঢালাই না হওয়ার বিষয়টি আমি চেয়ারম্যানকে অবহিত করব।
এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব (মৌলভীবাজার) রোকন উদ্দিন বলেন, এলজিএসপির কাজে কোনো গাফলতি পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গাজীপুর চা বাগানের কালভার্টের বিষয়টি দ্রুত তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.