মাহিয়া মাহি
মাহিয়া মাহি

প্রতারণা বুঝতে পেরে চলে গেলেন মাহি

নয়া দিগন্ত অনলাইন

বলা হয়েছিল চলচ্চিত্র কিন্তু নায়িকা শুটিং স্পটে দিনের অর্ধেক কাজ করার পর বুঝতে পারলেন এটা হচ্ছে মিউজিক ভিডিও।  তারপর যা হওয়ার তাই হলো।  আর এই পুরো ঘটনাটা ঘটেছে মাহিয়া মাহির সাথে।  বলা হয়েছিল, এটা অনন্য মামুনের ‘তুই শুধু আমার’ ছবির কাজও ।   এ ছবিতে তার বিপরীতে রয়েছেন ওপার বাংলার সোহম ও ওম।

ছবির কথা বলেই  মাহির শিডিউল নেন পরিচালক।  সেই অনুযায়ী  শনিবার (২৮ এপ্রিল) এফডিসির ৭ নং ফ্লোরে শুটিং শুরু হয় এবং মাহিও অংশ নেন।

কিন্তু মাহিয়া মাহি পরিচালকের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ করেন এবং শুটিং শেষ না করেই চলে যান। জানা গেছে, এই সিনেমার গানের শুটিংয়ের কথা বলে মাহির সিডিউল নেন পরিচালক।  কিন্তু পরে দেখা যায় সিনেমার গানের কথা বলে মাহিকে দিয়ে মিউজিক ভিডিওর কাজ করানো শুরু করেছিলেন পরিচালক।  বিষয়টি যখন মাহি বুঝতে পারেন তখনই সঙ্গে সঙ্গে শুটিংস্থল ত্যাগ করেন। পরে মাহি আর কাজটি করেননি।

এ প্রসঙ্গে মাহি বলেন, ‘আমাকে সিনেমার গানের শুটিংয়ের কথা বললে আমি সিডিউল দেই। প্রায় গানের অর্ধেক কাজ শেষ হওয়ার পর আমি জানতে পারি এটা সিনেমার গান নয়। আমাকে দিয়ে মিউজিক ভিডিও বানানো হচ্ছে। এরপর আর কাজটি করিনি।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরিচালকের এমন মিথ্যাচার আমার খারাপ লেগেছে। তিনি অন্যায় করেছেন।’

পরিচালক অনন্য মামুন এ বিষয়ে বলেন, ‘পুরো ব্যাপারটাই ভুল বোঝাবুঝি। মাহির সঙ্গে আমি কথা বলব এই নিয়ে। সবকিছু মিটে যাবে শিগগিরই।’

তবে গানটির প্রযোজক ইয়াসির আরাফাত বলেন, ‘অনন্য মামুনের সঙ্গে গানের মিউজিক ভিডিওর কথা হয়। সে আমাকে বলে এটা মাহিকে দিয়ে শুট করাবে। এরকম ঝামেলা হবে আশা করিনি। নাহলে আমি নিজেই মাহির সঙ্গে কথা বলতাম।’

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.