লম্বা চুলের যতœ

রূপ কথা
ফাহমিদা জাবীন

লম্বা কালো চুল দেখতে ভালো লাগে এতে কারো দ্বিমত নেই। লম্বা চুল অনেকেরই পছন্দ। কিন্তু লম্বা চুলের যতœও নিতে হয় বেশ ধৈর্য ধরে। ধুলো-ময়লা, ঘাম, পলিউশনের জন্য সোজা ও লম্বা চুল খুব সহজেই নেতিয়ে পড়ে। তাই সময়মতো যতœ না নিলে চুল নিয়ে পরে নানা সমস্যায় পড়তে হবে। কিভাবে চুলের পরিচর্যা করবেন সে বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন রূপবিশেষজ্ঞ আমেনা হক
ধুলো, ময়লা, বাতাসে চুল সহজেই রুক্ষ হয়ে যায়। এ ছাড়া গরমে ঘেমেও চুল নোংরা হয়ে যায় তাড়াতাড়ি। তাই চুল বারবার শ্যাম্পু করার প্রয়োজন পড়ে। আর লম্বা-সোজা চুল তাড়াতাড়ি নেতিয়ে পড়ে। তাই শ্যাম্পু করার আগে কিছু নিয়ম মেনে চলুন, যাতে চুল অনেকটা সময় ভালো থাকে। চুল শ্যাম্পু করার আগে রাতে চুলে তেল লাগান। নারকেল তেল, অলিভ অয়েল বা তিলের তেল হালকা গরম করে চুলের গোড়ায় সার্কুলেশন মুভমেন্টে ম্যাসাজ করুন। তারপর চুলের আগায় লাগান। এতে চুল ও স্কাল্প ভালো থাকবে। সপ্তাহে চার দিন চুলে শ্যাম্পু করবেন। বেশি করে পানি দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে নেবেন, যেন চুলে শ্যাম্পু লেগে না থাকে। শ্যাম্পুর পর কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। তাহলে চুল ঝরঝরে হবে। চুল ধুয়ে তোয়ালে জড়িয়ে রাখুন। ভেজা চুল খুব বেশি জোরে ঘষে মুছবেন না। শুকনো তোয়ালে দিয়ে হালকা হাতে মুছুন। না হলে চুলের গোড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ভেজা চুল কখনো আঁচড়াবেন না। আঁচড়ালেও মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে আঁচড়াবেন। তা না হলে চুল ছিঁড়বে। সোজা চুল ঘন হলেও ভলিউম বেশি দেখায় না। তাই চুল শ্যাম্পু করার পর এক মগ পানিতে একটা লেবুর রস মিশিয়ে সেই পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। চুল শুকালে ঝরঝরে হবে। এতে ভলিউমও বেশি মনে হবে। আর চুলও ন্যাতানো থাকবে না। আর চুল ঝলমলে দেখাবে। চুলের আগাফাটা ও চুল ভেঙে পড়ার সমস্যা দেখা দিলে বুঝবেন চুলে পুষ্টির অভাব হয়েছে। এমন হলে চুলে প্রোটিন ট্রিটমেন্ট করাতে হবে।
প্রোটিন ট্রিটমেন্ট ভালো কোনো পার্লারে গিয়েও করাতে পারেন। আবার ঘরে একটু সময় নিয়ে নিজেও করতে পারেন। নিয়মিত চুলে কন্ডিশনার ও হেয়ার সেরাম ব্যবহার করুন। হট অয়েল ম্যাসাজ করুন সপ্তাহে দুইবার। এতে চুল প্রয়োজনীয় পুষ্টি পাবে। চুল রোদ থেকে রক্ষা করতে স্কার্ফ বা ছাতা ব্যবহার করুন। কারণ, কড়া রোদে চুলের সানবার্ন হয়। সরাসরি গরম তাপ চুলের অনেকটাই পুড়িয়ে ফেলে। এতে চুল রুক্ষ ও দুর্বল হয়ে যায়। স্বাভাবিকভাবেই ফ্যানের বাতাসে চুল শুকিয়ে নিন। লম্বা চুলের জন্য সব ধরনের চিরুনি ও ব্রাশ ব্যবহার করবেন না। এক্সপার্টের পরামর্শ নিয়ে চুলের জন্য ভালো মানের চিরুনি ব্যবহার করুন। আর সপ্তাহে এক দিন মেথিগুঁড়া, টকদই একসাথে মিশিয়ে চুলের গোড়ায় ও মাথার ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। এতে চুলের খুশকির সমস্যাও দূর হবে। গরমে ঘামে চুল ভিজে গেলে বাতাসে শুকিয়ে নিন। বৃষ্টিতে চুল ভিজে গেলে শ্যাম্পু করে ফেলুন। ভালো বিউটি পার্লার থেকে হেয়ার এক্সপার্টের কাছ থেকে হেয়ার কাট ও চুলের রঙ করুন। এ ছাড়া পরিমিত পুষ্টিকর খাদ্যাভ্যাস ও পরিচ্ছন্ন জীবন যাপন করুন।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.