সংবাদ সম্মেলনে চীনা অভিনেত্রী ঝাও তাও
সংবাদ সম্মেলনে চীনা অভিনেত্রী ঝাও তাও

নির্যাতনের প্রতিবাদ জানালেন ১০০ নারী

আলমগীর কবির কান, ফ্রান্স থেকে

সময় যত বাড়ছে কান চলচ্চিত্র উৎসবের রঙ তত গাঢ় হচ্ছে। তারাদের ঝলকানিতে চকমকিয়ে উঠছে রেড কার্পেট। শুধু মূল ভেনু নয়, কান শহরজুড়েই উৎসবের জৌলুস উপচে পড়ছে। নয়া দিগন্তের প্রতিবেদক যে হোটেলে থাকেন, সেখান থেকে অনুষ্ঠান স্থলের দূরত্ব বাসে ৪০ মিনিট আর ট্রেনে ৯ মিনিট। আসা-যাওয়ার মধ্যে বাহনগুলোর পেছনে এবং রাস্তার মোড়গুলোতে বিখ্যাত সব ছবির পোস্টার দিয়ে উৎসবকে স্বাগত জানানো হয়েছে।
প্রযোজক, পরিচালক, তারকার আর সাংবাদিকদের জন্য আলাদা যোগাযোগের ব্যবস্থা রাখা হলেও মাঝে মধ্যে সবার একসাথে দেখা হয়ে যাওয়ারও সুযোগ রয়েছে। কানের মূল সৌন্দর্য বোধ হয় এখানেই।
এত সৌন্দর্যের মধ্যেও রয়েছে প্রতিবাদ। যার আনুষ্ঠানিক শুরুটা হয়েছিল ২০১৭ সালের ১৫ অক্টোবর। ওই দিন অভিনেত্রী অ্যালিসা মিলানো হলিউডে পেশাজীবী নারীদের যৌন নিগ্রহের ব্যাপারে ুব্ধ-অপমানিত স্বরে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে লিখলেন, ‘আপনিও যদি এমন যৌন নিগ্রহ ও নির্যাতনের শিকার হয়ে থাকেন কখনও, তবে এই টুইটের উত্তরে স্রেফ লিখুন মি ট্রুডো এবং আমিও!’ পরদিন সকালে ঘুম থেকে জেগে মিলানো দেখেন ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তার টুইটে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে দুই লাখ নারী লিখেছেন এই কথা ‘আমিও’! পর দিন সংখ্যাটা হয়ে দাঁড়াল পাঁচ লাখ। কান্নায় ভেঙে পড়লেন মিলানো! এ এক অভাবনীয় ঘটনা!
তারই সূত্র ধরে শনিবার কান উৎসবের লালগালিচায় প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিশ্বের প্রথম সারির ১০০ অভিনেত্রী ও নারী চলচ্চিত্র নির্মাতা। হলিউড মোগল হার্ভি ওয়াইনস্টিন কাণ্ডের পরিপ্রেেিত কর্মস্থলে নারীর প্রতি যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদে ছড়িয়ে পড়া মিটু হ্যাশট্যাগ আন্দোলনকে সমর্থন জানাতে সমবেত হয়েছিলেন তারা।
চলচ্চিত্রে নিবেদিত নারীদের প্রতি উৎসর্গ করা হয়েছে এই সম্মিলন। অভূতপূর্ব দৃশ্যটি দেখা গেছে শনিবার সন্ধ্যায় লালগালিচায়। এবারের আসরের প্রতিযোগিতা বিভাগের বিচারকদের প্রধান কেট ব্ল্যানচেটও এতে যুক্ত ছিলেন।
কানে চারজন নারীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ রয়েছে হার্ভির বিরুদ্ধে। এর মধ্যে ইতালিয়ান অভিনেত্রী এশিয়া আর্জেন্টোকে এক হোটেলে ধর্ষণ করেন তিনি। তখন এশিয়ার বয়স ছিল ২১ বছর। এসব অভিযোগের পরিপ্রেেিত যৌন হয়রানিবিরোধী হটলাইন চালু করেছে কান।
নারীদের পে কান সোচ্চার হলেও এবারের আসরে প্রতিযোগিতা বিভাগে রয়েছে মাত্র তিন নারী নির্মাতার ছবি। এর মধ্যে ১২ মে লালগালিচায় নারীদের প্রতিবাদের পর দেখানো হবে ফ্রান্সের ইভা হুসোর ‘গার্লস অব দ্য সান’। অন্য দু’টি ছবি হলো লেবাননের নাদিন লাবাকির ‘কেপারনম’ ও ইতালির অ্যালিস রোরওয়াচারের ‘ল্যাজারো ফেলিস’।
প্রথম নারী নির্মাতা
কান ক্যাসিকসে থাকছে বিশ্ব চলচ্চিত্রের প্রথম নারী নির্মাতা ফ্রান্সের অ্যালিস গি-ব্লাশের ওপর বানানো প্রামাণ্যচিত্র। এর নাম রাখা হয়েছে ‘বি ন্যাচারাল : দ্য আনটোল্ড স্টোরি অব অ্যালিস গি-ব্লাশে’। এটি পরিচালনা করেছেন মার্কিন নারী নির্মাতা পামেলা বি গ্রিন।
গায়িকাদের জীবন
গানে গানে সুরের মূর্ছনায় বিশ্বব্যাপী শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন এমন দুই গায়িকার জীবন দেখা যাবে কানে। মিডনাইট স্ক্রিনিংয়ে রয়েছে পরলোকগত গায়িকা হুইটনি হিউস্টনের জীবন অবলম্ব^নে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র। ‘হুইটনি’ নামে ছবিটি নির্মাণ করেছেন স্কটিশ পরিচালক কেভিন ম্যাকডোনাল্ড।
এ দিকে আরেক বিখ্যাত গায়িকা টিনা টার্নারের জীবনের ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্রের প্রদর্শনী হবে কানের ফিল্ম বাজারে। এর নাম ‘টিনার টার্নার’।
২০ নারী নির্মাতার অভিষেক
কানের ৭১তম আসরে বিভিন্ন বিভাগে জায়গা করে নিয়েছে অনেক নারী নির্মাতার ছবি। তাদের মধ্যে ২০ জনের অভিষেক হচ্ছে সাগরপাড়ের শহরে। প্রতিযোগিতা বিভাগের তিন নারী নির্মাতার কথা তো ওপরেই রয়েছে।
‘সোফিয়া’আঁ সার্তেন রিগার্দ বিভাগে নির্বাচিত ১৩টি ছবির ছয়টি একাই নির্মাণ করেছেন এসব নারী। এ তালিকায় রয়েছে ভারতের নন্দিতা দাসের ‘মান্টো’, মরক্কোর মরিয়ম বেনেমবারেক পরিচালিত ‘সোফিয়া’, ফ্রান্সের ভ্যানেসা ফিলোর ‘অ্যাঞ্জেল ফেস’, ইতালির ভ্যালেরিয়া গলিনোর ‘ইউফোরিয়া’, কেনিয়ার ওয়ানুরি কাহিয়ুর ‘ফ্রেন্ড’ ও সিরিয়ার গায়া জিজি পরিচালিত ‘মাই ফেবারিট ফেব্রিক’। এছাড়া ‘লিটল টিকেলস’ ছবিটি ফ্রান্সের এরিক মিতায়ের সাথে যৌথভাবে পরিচালনা করেছেন অন্দ্রিয়া বিসকু। আর ‘দ্য ডেড অ্যান্ড দ্য আদারস’ পর্তুগালের জোয়াও সালাভিজারের সাথে যৌথভাবে নির্মাণ করেছে ব্রাজিলের রেনে নাদের মেসোরা।
ক্রিটিকস উইকে রয়েছে পোল্যান্ডের অগনিশকা স্মোজিনস্কার ‘ফিগ’, সুইস নির্মাতা আনিয়া কোফমেলের ‘ক্রিস দ্য সুইস’, ভারতের রোহেনা গেরার ‘স্যার’, হাঙ্গেরির সোফিয়া সিলাগির ‘ওয়ান ডে’।
ডিরেক্টরস ফোর্টনাইটে আছে স্প্যানিশ নির্মাতা আরান্টা ইচেভারিয়া ও ফ্রান্সের মারিয়া মোজের ‘প্লেয়ারস’, আমেরিকার ডেবরা গ্রানিকের ‘লিভ নো ট্রেস’, ব্রাজিলের বিয়াট্রিজ সেইনারের ‘দ্য সাইলেন্সেস’ এবং কলম্বিয়ার সিরো গুয়েরার সাথে ক্রিস্তিনা গাইয়েগো যৌথভাবে পরিচালনা করেছেন ‘বার্ডস অব প্যারাডাইস’।
নির্মাতাবিচারকের আসনে ১২ নারী
এবার প্রতিযোগিতা বিভাগে বিচারকদের সভাপতি অস্ট্রেলীয় অভিনেত্রী কেট ব্ল্যানচেট। তার নেতৃত্বে জুরি প্যানেল নির্বাচন করবে স্বর্ণ পাম জয়ী ছবির নাম। তাদের ৯ জনের মধ্যে পাঁচজন নারী।
আঁ সার্তেন রিগার্দে বিভাগের বিচারক তালিকায়ও নারীদের প্রাধান্য। পুয়ের্তোরিকান অভিনেতা বেনিসিও দেল তোরোর নেতৃত্বে নারীদের মধ্যে কাজ করবেন ফিলিস্তিনি পরিচালক আনমারি জাসির, ফরাসি অভিনেত্রী ভিরজিনি লোদোয়া, টেল্লুরাইড চলচ্চিত্র উৎসবের নির্বাহী পরিচালক জুলি হান্টসিঙ্গার।
ক্যামেরা দ’র বিভাগের সভাপতিও নারী (সুইস পরিচালক উরসুলা মাইয়ের)। তার নেতৃত্বে যে সাতজন থাকবেন তাদের চারজনই নারী। তারা হলেন ফরাসি পরিচালক মারি আমাশুকেলি, ফরাসি-আমেরিকান পরিচালক ইরিস ব্রে, ফরাসি আলোকচিত্রী জেন লাপয়রি।

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.