লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগ নেতা হত্যার আসামীরা ২বছরেও আটক হয়নি

লক্ষ্মীপুর সংবাদদাতা

লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগ নেতা এমরান হোসেন হত্যা মামালার আসামীরা হত্যার ২বছর পার হলেও ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছেন।
লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার তেয়ারীগঞ্জ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও নোয়াখালী সরকারী কলেজের বিএসএস-এ অধ্যায়নরত ছাত্র এমরান হোসেন গত ২০১৫ সালের ২৩ ডিসেম্বর কলেজের উদ্যেশ্যে বাড়ী থেকে বের হয়ে আর বাড়ী ফিরে আসেনি।
এমরান হোসেন নিখোঁজের ছয় দিন পর ২৯ ডিসেম্বর পার্শ্ববর্তী চর মনসা গ্রামের একটি পুকুরে তাঁর লাশ ভাঁসতে দেখে স্থানীয় লোকজন পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। খবর পেয়ে এমরান হোসেনের পরিবারের লোকজন লাশটি এমরান হোসেনের বলে শনাক্ত করে। তখন লাশের গলায়, মাথায় ও চোখে আঘাতের চিহ্ন ছিল বলে জানান ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকগণ।
পরে এমরান হোসেনের পিতা রিয়াজ উদ্দিন বাবুল বাদী হয়ে লক্ষ্মীপুর সদর থানায় জাহাঙ্গীর হোসেন দিলনসহ ১০জনের নাম উল্লেখ করে ও আরো ৫/৬জনকে অজ্ঞাত আসামী করে ১টি হত্যা মামলা দায়ের করতে গেলে অজ্ঞাত কারনে থানা মামলাটি গ্রহন করেনি।
পরে বাদী আদালতে এজাহার দাখিল করলে আদালত মামলা না নেয়ার ব্যাখ্যা চেয়ে মামলাটি নিয়মিত মামলা হিসেবে গ্রহন করার নির্দেশ প্রদান করে। আদালতের নির্দেশে লক্ষ্মীপুর সদর থানা মামলাটি গ্রহন করে প্রায় ৬ মাস তদন্ত করে কোন ব্যবস্থা না করে মামলাটি সিআইডিতে হস্তান্তর করে।
বর্তমানে মামলাটি সিআইডিতে তদন্তাধিন। উক্ত মামলার বাদী অভিযোগ করে বলেন, প্রধান আসামী জাহাঙ্গীর হোসেন দিলনসহ অন্য আসামীদের বিরুদ্ধে স্থানীয় ও জাতীয় পত্র-পত্রিকায় রিপোর্ট প্রকাশ হলেও এবং আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ আসামীদের ধরছে না।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.