কুরআন-হাদিসে জাকাত

এহসান বিন মুজাহির

জাকাত ইসলামের অন্যতম একটি রোকন। নামাজ, রোজার মতোই ফরজ। তবে ঢালাওভাবে সবার ওপর নয়। নিসাব পরিমাণ মালের মালিকের ওপরই শুধু জাকাত ফরজ। মনে রাখতে হবে, জাকাত কারো প্রতি করুণা প্রদর্শন নয়; বরং গরিব দুঃখীর ন্যায়সঙ্গত অধিকার এটি। শরিয়ত নির্ধারিত নিয়মে যথাযথভাবে জাকাত আদায় করা প্রত্যেক সামর্থ্যবান ব্যক্তির ওপর ফরজ দায়িত্ব।
জাকাতের অর্থ: আভিধানিক অর্থে জাকাতের অর্থ হলো, বৃদ্ধি করা, পবিত্রতা, বিশুদ্ধতা ইত্যাদি। জাকাত প্রদানের মাধ্যমে সম্পদ পবিত্র ও পরিশুদ্ধ হয় এবং মালের মধ্যে বরকত বৃদ্ধি পায়। শরয়ী পরিভাষায়, জীবনযাত্রার অপরিহার্য প্রয়োজন মিটানোর পর নির্দিষ্ট পরিমাণ সম্পদ পূর্ণ এক বছর সঞ্চিত থাকলে, শরিয়তের নির্ধারিত সম্পদের একাংশ শরিয়ত নির্ধারিত খাতে কোনো প্রকার বিনিময় ছাড়া মালিকানা হস্তান্তর করাকে জাকাত বলে।
ইসলামে জাকাতের গুরুত্ব : ইসলামে জাকাতের গুরুত্ব অপরিসীম। কুরআন ও হাদিসে জাকাত প্রদানের জন্য তাগিদ দেয়া হয়েছে। পবিত্র কুরআনুল কারীমে আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন, ‘তোমরা নামাজ কায়েম করো, জাকাত প্রদান করো এবং নামাজে অবনত হও তাদের সাথে যারা অবনত হয়’। (সূরা বাকারা: ৪৩)
আল্লাহপাক ইরশাদ করেন, ‘তাদের ধনমালে রয়েছে সুনির্দিষ্ট অধিকার। প্রার্থী ও বঞ্চিত মানুষের জন্য’। (-সূরা মাআরিজ:২৪)
আল্লাহ তায়ালা আরো ইরশাদ করেন, ‘তোমরা নামাজ কায়েম করো, জাকাত প্রদান করো এবং রাসূল সা:-এর আনুগত্য করো, যাতে তোমরা অনুগ্রহপ্রাপ্ত হও’। (-সূরা নূর:৫৬)
আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আরো ইরশাদ করেছেন, ‘আর যারা সোনা ও রুপা সঞ্চিত করে রাখে এবং তা আল্লাহর পথে ব্যয় করে না, তাদেরকে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তির সুসংবাদ প্রদান করুন। সে দিন ওই সব (সোনা-রুপা) দোজখের আগুনে উত্তপ্ত করা হবে এবং তদ্বারা তাদের ললাটে, পার্শ্বদেশ এবং তাদের পৃষ্ঠদেশে দাগ দেয়া হবে। এটা তোমরা নিজেদের জন্য যা সঞ্চয় করেছিলে তার প্রতিফল। সুতরাং যা তোমরা সঞ্চিত করেছিলে তার স্বাদ গ্রহণ করো’। (-সূরা তাওবাহ: ৩৪-৩৫)
অনুরূপভাবে আল্লাহপাক আরো ইরশাদ করেন, ‘তোমাদেরকে কিসে জাহান্নামে নিয়ে এসেছে? তারা বলবে আমরা নামাজ পড়তাম না এবং অভাবগ্রস্তকে আহার্য (জাকাত) দিতাম না’। (-সূরা মুদাসসির: ৪২-৪৪)
শুধু কুরআন নয়, হাদিসেও জাকাত আদায়ে গুরুত্ব ও অনাদায়ে ভয়াবহতা সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়েছে।
হজরত আবু হুরায়রা রা: থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, ‘যেসব স্বর্ণ ও রৌপ্যের মালিক তা হতে তার হক (জাকাত) আদায় করে না, যখন কিয়ামতের দিন আসবে নিশ্চয়ই তার জন্য অনেকগুলো আগুনের পাত তৈরি করা হবে এবং সেগুলোকে জাহান্নামের আগুনে গরম করা হবে। আর তা দ্বারা তার পাঁজরে, ললাটে এবং পিঠে দাগ দেয়া হবে। যখনই পৃথক করা হবে তখনই পুনরায় তা শুরু করা হবে। তার এ শাস্তি অব্যাহত থাকবে সে দিন পর্যন্ত যার পরিমাণ হবে ৫০ হাজার বছরের সমান। যতণ না বান্দাদের সবার বিচার ফয়সালা শেষ করা হবে এবং প্রত্যেকে নিজ নিজ পথ ধরবে, হয় বেহেশতের দিকে না হয় দোজখের দিকে’। (-মুসলিম শরিফ, হাদিস নং-১৬৮১)
জাকাতের ত্রে ও নিসাব : জাকাতের ত্রে খুবই ব্যাপক। প্রায় সব ধরনের ধনসম্পদের ওপরই জাকাত ধার্য করা হয়েছে। নগদ অর্থ, সোনা-রুপা, কৃষিজ উৎপাদন, ব্যবসায়ের পণ্য, গৃহপালিত পশুসহ প্রায় সব কিছুই জাকাতের আওতায় আসে। জাকাতের হার শরিয়তের বিধান দ্বারা নির্দিষ্ট। একে মানুষের ইচ্ছাধীন করে দেয়া হয়নি। জাকাত ত্রে অনুযায়ী জাকাত প্রদানের পদ্ধতিও ভিন্নœ। (জাকাত কোনো েেত্র ২.৫ ভাগ। কোনো েেত্র ৫ ভাগ, কোনো েেত্র ১০ ভাগ)। ফকিহগণের সর্বসম্মতিক্রমে স্বর্ণে জাকাতের নিসাব ২০ মিসকাল বা সাড়ে সাত ভরি, তথা ৮৭.৪৫ গ্রাম। এর কম হলে জাকাত দিতে হবে না। কারো কাছে ২০ মিসকাল পরিমাণ স্বর্ণ যদি এক বছর অতিক্রম করে তবে তাতে অর্ধ মিসকাল স্বর্ণ জাকাত ওয়াজিব হবে। (-নূরুল আনওয়ার, শরহে বিকায়া)
৫২ তোলা রুপা অথবা ৭.৫০ তোলা সোনা অথবা সমপরিমাণ অর্থ। শর্ত হলো নিসাব পরিমাণ সম্পদ এক বছর অতিক্রান্ত হওয়া। উপরিউক্ত নিসাব পরিমাণ সম্পদ যার আছে তার ওপর জাকাত ফরজ। তবে গরু, ছাগল, ভেড়া ও দুম্বার েেত্র জাকাত আদায় পদ্ধতি ভিন্ন।
জাকাতের হকদার : আল্লা তায়ালা কুরআনে সুস্পষ্ট ভাষায় জাকাতের হকদ্বার সম্পর্কে বলে দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘নিশ্চই সদকাহ হচ্ছে, ফকির ও মিসকিনদের জন্য এবং এতে নিয়োজিত কর্মচারীদের জন্য, আর যাদের অন্তর আকৃষ্ট করতে হয় তাদের জন্য, দাস আজাদ করার েেত্র, ঋণগ্রস্তদের মধ্যে, আল্লাহর রাস্তায় এবং মুসাফিরদের মধ্যে। এটি আল্লাহর প থেকে নির্ধারিত, আর আল্লাহ মহাজ্ঞানী, প্রজ্ঞাময়’। -(সূরা তওবা:৬০)।
জাকাতের খাত : জাকাতের খাত ৮টি: ১.ফকির; ২. মিসকিন; ৩. জাকাতের কাজে নিযুক্ত ব্যক্তি; ৪. মুআল্লাফাতুল কুলুব; ৫. দাসমুক্তি; ৬. ফি সাবিলিল্লাহ; ৭. ঋণগ্রস্ত; ৮. মুসাফির। উপরিউক্ত ৮টির মধ্যে সবচেয়ে প্রাপ্যের অগ্রাধিকার হচ্ছে, ফকির ও মিসকিন। অর্থাৎ সমাজের দরিদ্র শ্রেণী।
রাসূল সা: যখন হজরত মুয়াজ বিন জাবাল রা:কে ইয়েমেনের গভর্নর হিসেবে প্রেরণ করছিলেন তখন মুয়াজ রা: বলেছিলেন, বিত্তবানদের থেকে জাকাত আদায় করে গরিবদের মাঝে বণ্টন করবে। এর দ্বারা প্রমাণ বহন করে গরিবরাই সবচেয়ে বেশি হকদার। ইসলামে অর্থনৈতিক নিরাপত্তা- কারজাভী ইমাম বায়হাকী রা: ‘আদদালায়েল’ নামক গ্রন্থে বর্ণনা করেন, হজরত ওমর বিন আজিজ রা:-এর শাসনামলে জাকাত দেয়ার মতো লোক খোঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। জাকাত দেয়ার মতো লোকের অভাব ছিল না, বরং জাকাত নেয়ার মতো লোকের অভাব ছিল। কিন্তু আমাদের সমাজে জাকাত নেয়ার মতো লোকের অভাব নেই। কিন্তু অভাব জাকাত দেয়ার মতো লোকের।
লেখক: প্রবন্ধকার

 

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.