ক্যারিয়ার গড়তে ডিআইইউতে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স  

বাংলাদেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় চালুর প্রথম দিকে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি প্রতিষ্ঠা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী। ১৯৯৫ সালের এপ্রিলে ১৬৮ জন ছাত্রছাত্রী নিয়ে ঝিগাতলার একটি বাড়িতে এর যাত্রা শুরু হলেও বর্তমানে এটি অনেক বিস্তৃতি লাভ করেছে। সে সময় আইন, ব্যবসায় প্রশাসন, ইংরেজি, সমাজবিজ্ঞান ও অর্থনীতি বিভাগ চালু করা হয়। এরপর চালু করা হয় সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ও ইলেকট্রিক্যাল ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, ফার্মেসি ও হিউম্যান রাইটস ‘ল’ বিভাগ। বর্তমানে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা প্রায় সাত হাজার। পূর্ণকালীন শিক্ষকের সংখ্যা ১৫০ জন। এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, জাহাঙ্গীরনগর ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকেরা খণ্ডকালীন পাঠদান করে থাকেন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির যুগে এর গুরুত্ব অনুধাবন করেই মূলত ঢাকা ইন্টান্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ বিএসসি ইন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স চালু করেছে। এ ইউনিভার্সিটির গ্রিন রোড ও বনানীতে বিভিন্ন কোর্সের ক্লাস পরিচালিত হলেও সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ক্লাস বাড্ডার সাতারকুলে একটি নান্দনিক ভবনে শুরু হয়েছে। এ ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসের কাজ প্রায় শেষপর্যায়ে। তাই অন্যান্য কোর্সও সেখানে চালু হয়েছে। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বা পুরকৌশল একটি পেশাদার শিল্প, যার মাধ্যমে নকশা প্রণয়ন, নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজে একজন শিক্ষার্থী সুশিক্ষিত হয়ে উঠবে। তাই বর্তমান বিশ্বে শিক্ষার বিষয় হিসেবে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বা পুরকৌশল গুরুত্ব বহন করছে এবং এর চাহিদাও উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই চাহিদার কথা মাথায় রেখেই এ কোর্স চালু করেছে ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ। আর এ কোর্সটির তত্ত্বাবধানে রয়েছেন অধ্যাপক গণেশচন্দ্র রায়। তিনি জানান, এ কোর্সের জন্য গ্রন্থাগার, ম্যাটেরিয়ালস ল্যাব, সার্ভেয়িং ল্যাব, কম্পিউটার ল্যাব ও এনভায়রনমেন্ট ল্যাব চালু করা হয়েছে। ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. কে এম মহসীন বলেন, ‘ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা মরহুম অধ্যাপক ড. মফিজুল ইসলাম পাটোয়ারী নি¤œবিত্ত পরিবারের ছেলে-মেয়েদের উচ্চশিক্ষার কথা চিন্তা করেই এটি প্রতিষ্ঠা করেন। অন্যান্য ইউনিভার্সিটির কোর্স ফির চেয়ে তুলনামূলক ফি এখানে কম। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএসসি ইন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সের ফি দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা। সান্ধ্যকালীন কোর্সের জন্য ফি দুই লাখ ২০ হাজার টাকা। এ ছাড়া ক্যাম্পাসের কাছাকাছি ছাত্রছাত্রীদের জন্য আলাদা ছাত্রাবাস ও স্বল্পমূল্যে আবাসন ব্যবস্থা রয়েছে। এ ছাড়া নিকুঞ্জ ও গ্রিন রোডে এ ইউনিভার্সিটির আরো দু’টি ছাত্রাবাস রয়েছে। বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান ডা: এস কাদির পাটোয়ারী বলেন, ১৯৯৫ সালে ‘জ্ঞানই শক্তি’ সেøাগানকে সামনে রেখে এ ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। এ সেøাগানের গুরুত্ব তা আজো বহন করে চলছে। যেসব কোর্স এখানে চালু রয়েছে, সেগুলো আমরা সুনামের সাথে পরিচালনা করে আসছি। সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সের ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম হচ্ছে না। এ ইউনিভার্সিটির বিশেষত্ব হলো, বিভিন্ন সামাজিক ও মানবকল্যাণকর কাজে অংশগ্রহণ। যেমনÑ সামাজিক ব্যবসা, অ্যান্টি-টোব্যাকো সেলের কার্যক্রম পরিচালিত করছে। পাশাপাশি উন্নত মানসিকতা গড়ে তুলতে ছাত্রছাত্রীদের দেশে এবং দেশের বাইরে বিভিন্ন সেমিনার ও সিম্পোজিয়ামে অংশগ্রহণ করানো হয়। মুক্তবুদ্ধি চর্চার জন্য তারা বিতর্ক প্রতিযোগিতায়ও অংশগ্রহণ করে। শিক্ষার্থীদের ইংরেজি ভাষার ওপর দক্ষতা বৃদ্ধি করতে ইতোমধ্যে ইন্টারন্যাশনাল ল্যাঙ্গুয়েজ ইনস্টিটিউটের সাথে এ ইউনিভার্সিটির ফাউন্ডেশন কোর্স চালু রয়েছে।
যোগাযোগ : স্থায়ী ক্যাম্পাস : সাতারকুল, বাড্ডা, ঢাকা। ক্যাম্পাস : ৬৬ গ্রিন রোড, ঢাকা। ক্যাম্পাস : বাড়ি-০৪, সড়ক-০১, ব্লক-এফ, বনানী, ঢাকা। ফোন : ৫৫০৪০৮৯৬, ০১৬১১ ৩৪৮৩৪৫-৮, ০১৯৩৯ ৮৫১০৬০-৪

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.