খালেদা জিয়ার মুক্তি : একটি পরোয়ানা প্রত্যাহার
খালেদা জিয়ার মুক্তি : একটি পরোয়ানা প্রত্যাহার

খালেদা জিয়ার মুক্তি : একটি পরোয়ানা প্রত্যাহার

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা পৃথক চার মামলায় কারাগার থেকে আদালতে উপস্থাপনের পরোয়ানা প্রত্যাহারের আবেদন করেছেন তার আইনজীবীরা। মামলাগুলো হলো- জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট, নাইকো, গ্যাটকো ও বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি দুর্নীতি মামলা। এর মধ্যে নাইকো দুর্নীতি মামলায় আদালতে উপস্থাপনের পরোয়ানা প্রত্যাহার করা হয়েছে। অপর তিনটি মামলায় পরে আদেশ দেবেন আদালত।


ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মাহমুদুল কবীর বৃহস্পতিবার আদালতে উপস্থাপনের পরোয়ানা প্রত্যাহারের আবেদনের শুনানি শেষে নাইকো মামলায় আদালতে উপস্থাপন করা পরোয়ানা প্রত্যাহারের আদেশ দেন।
অন্য দিকে ঢাকার ৩ নম্বর বিশেষ জজ আবু সৈয়দ দিলজার হোসেন গ্যাটকো দুর্নীতির মামলা ও বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি দুর্নীতি মামলা এবং ঢাকার ২ নম্বর বিশেষ জজ কে এস এম শাহ ইমরান শুনানি শেষে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় হাইকোর্টের দেয়া জামিন আপিল বিভাগে বহাল থাকা সংক্রান্ত আদেশ সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে দেখে আদেশ দেবেন বলে আইনজীবীদের জানিয়েছেন।


এ ছাড়া ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ ড. মো: আখতারুজ্জামান জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় আদালতে উপস্থাপন পরোয়ানা প্রত্যাহারের আবেদনের শুনানির দিন ৪ জুন ধার্য করেন। আদালত ওই আদেশ দেয়ার পর তা পুনর্বিবেচনার জন্য খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আবেদন করলেও আদালত তা নামঞ্জুর করেন।


গত ১০ মে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া জামিন আগামী ৪ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছেন ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালত। এছাড়া এ মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন ৪ জুন পর্যন্ত মুলতবি করেন। খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া আদালতে উপস্থাপিত পরোয়ানা প্রত্যাহারের আবেদনগুলোর ওপর শুনানি করেন।


এ বিষয়ে আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া নয়া দিগন্তকে বলেন, চার মামলায় খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে আদালতে উপস্থাপনের পরোয়ানা প্রত্যাহারের জন্য আমরা আবেদন করি। এর মধ্যে একটি মামলায় আদালতে উপস্থাপনের পরোয়ানা প্রত্যাহার করা হয়েছে। বাকি তিন মামলায় আদালত পরে আদেশ দেবেন।


খালেদা জিয়ার মুক্তি পেতে আর কয়টি মামলায় জামিন নিতে হবে- প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কুমিল্লার তিনটি, ঢাকার দুটি এবং নড়াইলের একটি মামলায় জামিন নিতে হবে। এর মধ্যে জাতীয় পতাকা অবমাননা ও ১৫ আগস্ট জন্মদিন পালনের অভিযোগে দায়ের করা পৃথক দুই মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা কার্যকর করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

সানাউল্লাহ মিয়া অভিযোগ করেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে জামিন দিলেও সরকারের কৌশলের কারণে অন্য মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন করানো যাচ্ছে না। তিনি বলেন, সরকার রাজনৈতিক কারণে খালেদা জিয়ার কারামুক্তিতে বাধা সৃষ্টি করছে।
এ বিষয়ে অপর আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় ইতোপূর্বে দেয়া প্রডাকশন ওয়ারেন্ট প্রত্যাহারের আদেশ ৪ জুন ধার্য তারিখে নির্ধারণ করা কোনো ক্রমে গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। এতে আমরা সংক্ষুব্ধ।

 

সম্পাদকঃ আলমগীর মহিউদ্দিন,
প্রকাশক : শামসুল হুদা, এফসিএ
১ আর. কে মিশন রোড, (মানিক মিয়া ফাউন্ডেশন), ঢাকা-১২০৩।
ফোন: ৫৭১৬৫২৬১-৯

Copyright 2015. All rights reserved.