১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

তাজমহল চত্বরে নামাজে নিষেধাজ্ঞা!

তাজমহল চত্বরে নামাজে নিষেধাজ্ঞা! - সংগৃহীত

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট দেশটির আগ্রায় অবস্থিত ঐতিহাসিক মুসলিম স্থাপনা তাজমহল চত্বরে ‘অস্থানীয়’ ব্যক্তিদের জন্য জুমার নামাজসহ সব ধরনের নামাজ আদায়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

বিচারপতি একে সিক্রি ও বিচারপতি অশোক ভূষণের সমন্বয়ে গঠিত সুপ্রিম কোর্টের একটি বেঞ্চ সোমবার এ রায় দিয়েছে।

রায়ে বলা হয়েছে, তাজমহল পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যের একটি এবং এটিকে রক্ষা করা উচিত। এজন্য এটির চত্বরে অনেক মানুষ একত্রে নামাজ আদায় করতে পারবেন না।

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে আগ্রার স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ‘বহিরাগত’ ব্যক্তিদের জন্য তাজমহল চত্বরে জুমার নামাজসহ অন্যান্য নামাজ আদায় নিষিদ্ধ করে।  কিন্তু এ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে মুসলমানরা আদালতে শরণাপন্ন হন।

আগ্রার মুসলমানরা বলছেন, নামাজ আদায়ের ক্ষেত্রে তাদের সঙ্গে ভারতের অন্যান্য স্থানের কিংবা বিদেশ থেকে আগত মুসলমানদের কোনো পার্থক্য করা স্থানীয় কর্তৃপক্ষের উচিত হবে না।

ভারতের পুরাতত্ত্ব বিভাগ কয়েক বছর আগে তাজমহল চত্বরে বিদেশি নাগরিকদের নামাজ আদায়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল।

তাজমহল পরিচালনা কমিটির সভাপতি মুনাওয়ার আলী বলেছেন, এই ঐতিহাসিক স্থাপনার চত্বরে ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনে বিধিনিষেধ আরোপ করা যাবে না।

 

তাজমহলে নামাজ পড়া বন্ধ করতে চাইছে হিন্দুত্ববাদীরা

২৭ অক্টোবর ২০১৭

এ বার তাজমহলে নামাজ পড়ায় নিষেধাজ্ঞার দাবিতে সোচ্চার হলো ভারতের হিন্দুত্ববাদী সংগঠন আরএসএসের ইতিহাস শাখা। নামাজ পড়ায় নিষেধাজ্ঞা জারি না-হলে তাজমহলে শিবের পূজা করতে দিতে হবে বলেও দাবি তুলেছে তারা।

রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের অখিল ভারতীয় ইতিহাস সংকলন সমিতির সচিব ড. বালমুকুন্দ পাণ্ডে শুক্রবার ইন্ডিয়া টুডেকে দেওয়া সাক্ষাত্‍কারে বলেছেন, ‘তাজ হল একটি জাতীয় ঐতিহ্য। কেন সেটিকে মুসলিমদের ধর্মীয় ক্ষেত্র হিসেবে ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হবে? আগ্রার তাজমহলে নামাজ পাঠের অনুমোদন প্রত্যাহার করে নেওয়া উচিত।'

বিতর্ক আরও উসকে দিতে তিনি বলেছেন, তাজমহলে নামাজ পড়া হলে, শিবের পূজাও করতে দিতে হবে।

পাণ্ডের দাবি, ‘এমন অনেক প্রমাণ রয়েছে যে তাজমহল একটা শিবমন্দির ছিল। আর এটি তৈরি করেছিলেন এক হিন্দু রাজা। তাজ মোটেই ভালোবাসার প্রতীক নয়। সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রী মুমতাজ মহলের মৃত্যুর চার মাসের মধ্যেই ফের বিয়ে করেছিলেন। আমরা সমস্ত তথ্য-প্রমাণ জোগার করছি। খুব শিগগিরই সব জড়ো করতে পারব।'

দিনদুয়েক আগেই হিন্দু যুব বাহিনীর সমর্থকরা তাজের অন্দরে দাঁড়িয়ে শিব চালিসা পড়তে গেলে তাদের বাধা দিয়ে বের করে দেন নিরাপত্তারক্ষীরা। হিন্দু বাহিনীর সমর্থকদের দাবি ছিল, তাজ সমাধিক্ষেত্রে পরিণত হওয়ার আগে শিব মন্দিরই ছিল।

তাজমহল যে রাজ্যে অবস্থিত অর্থাৎ উত্তরপ্রদেশের সরকারি পর্যটন পুস্তিকা থেকে সেটির নাম বাদ পড়ার পর থেকেই তাজমহল বিতর্কের শুরু। এ নিয়ে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়ে বিজেপিশাসিত উত্তরপ্রদেশ সরকার। সেই বিতর্ক উস্কে এক বিজেপি নেতার তাজমহল সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর বয়ান আসে সংবাদমাধ্যমে। যার জেরে সমাজবাদী পার্টি নেতা আজম খানও পাল্টা মন্তব্য করেন তাজমহলসহ দেশের নানা সৌধ নিয়ে। এ বিতর্কের মাঝেই গতকাল বৃহস্পতিবার তাজমহল পরিদর্শনে যান রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী যোগি আদিত্যনাথ। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশের সস্ত্রীক তাজমহল পরিদর্শনের পর এটি আবারো কোনো মুখ্যমন্ত্রীর পরিদর্শন।

তাজমহল নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য হরিয়ানার মন্ত্রীর
ভারতে মুঘল সম্রাট শাহজাহানের স্মৃতি বহনকারী এবং বিশ্বের সপ্তাশ্বর্যের একটি আগ্রায় অবস্থিত তাজমহল সম্পর্কে এবার বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন হরিয়ানার মন্ত্রী অনিল ভিজ।

বিজেপিশাসিত উত্তর প্রদেশ রাজ্যের পর্যটন বিভাগের নতুন এক পুস্তিকায় বিশ্বের সপ্তম আশ্চর্যের অন্যতম তাজমহল নিয়ে কোনো কথা না থাকায় বিতর্কের সৃষ্টি হয়। সমালোচনা চলতে থাকে সর্বত্র। এরই মাঝে এই প্রসিদ্ধ সৌধ সম্পর্কে আলোড়ন ফেলে দিয়ে বিজেপির উত্তরপ্রদেশের সারদানার বিধায়ক সঙ্গীত সোম বলেন, তাজমহল ভারতীয় সংস্কৃতির কলঙ্ক, যিনি এর নির্মাতা, নিজের বাবাকেই বন্দি করেছিলেন তিনি! দেশের ইতিহাসে তাজমহলের স্থান কোথায়, সেই প্রশ্ন করেন সঙ্গীত।

এর রেশ কাটতে না কাটতেই হরিয়ানার স্বাস্থ্য ও ক্রীড়ামন্ত্রী ভিজের ট্যুইট, তাজমহল এক চমত্কার সুন্দর কবরখানা! তবে এটা নতুন কিছু নয়, অতীতেও ভিজের নানা মন্তব্য বিতর্কের ঝড় তুলেছে।

সঙ্গীতের তাজমহল সম্পর্কে মন্তব্য খারিজ করেছেন খোদ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথই। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশ সরকার প্রকাশিত দ্রষ্টব্য পর্যটনস্থলগুলোর তালিকা থেকে তাজমহল বাদ পড়ায় প্রবল বিতর্ক শুরু হয়েছিল। সঙ্গীতের মন্তব্য তাতে ঘি ঢাললেও শেষ পর্যন্ত আদিত্যনাথ জানিয়ে দেন, তাজমহল তৈরি হয়েছিল ভারতমাতার সন্তানদের ঘাম-রক্তে এবং তার সুরক্ষা সুনিশ্চিত করা উত্তরপ্রদেশ সরকারের দায়িত্ব।

তবে আদিত্যনাথের স্পষ্ট ঘোষণা সত্ত্বেও বিতর্ক থামেনি। বিজেপির আরেক শীর্ষ নেতা বিনয় কাটিয়ার দাবি করেন, তাজমহল আদতে ছিল শিবের মন্দির, যার নাম ছিল তেজো মহল, পরবর্তীকালে তাকে স্মৃতিসৌধে পরিণত করেন মুঘল সম্রাট শাহজাহান।


আরো সংবাদ