২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এ কেমন শিক্ষক !

-

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের উপর শারীরিক শাস্তি নিষেধ হলেও দামুড়হুদায় শিক্ষকের বেতের আঘাতে এক শিশুর শরীরে পচন ধরেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার লোকনাথপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই ঘটনা ঘটেছে।

শিশুটির পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত দুই সপ্তাহ আগে উপজেলার লোকনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্র শহীদ মিয়া স্কুলে যায়। এরপর তুচ্ছ কারণে শিক্ষিকা উম্মে ছালমা খাতুন শহীদকে প্রহার করেন। এতে শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়ে। তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চারদিন আগে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হাসপাতালের সার্জারি কনসালটেন্ট ডা: তারিক হাসান জানান, অস্ত্রপাচারের মাধ্যমে তার ক্ষতস্থানে জমে থাকা পুজ রক্ত বের করে আনতে হবে।

সার্বিক বিষয় উল্লেখ করে শিশুটির নানি মমতাজ বেগম বুধবার দামুড়হুদা মডেল থানা ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এদিকে সদর হাসপাতালে বৃহস্পতিবার দুপুরের পর অপারেশন করা হয়েছে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান। দামুড়হুদা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাকি সালাম জানান, শিশুটিকে কোন শিক্ষক প্রহার করে ছেন তা দেখা হচ্ছে। আমরা আহত শিক্ষার্থী শহীদ কে হাসপাতালে দেখতে যাব।

দামুড়হুদা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ জুয়েল জানান, কোমলমতি ছেলে-মেয়েদের মারপিট তো দুরের কথা তাদের সাথে উচ্চস্বরে কথা বলা বা ধমক দেয়া পর্যন্ত নিষেধ।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল ইসলাম নয়া দিগন্তের সংবাদদাতাকে জানান, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

 

 


আরো সংবাদ