২১ নভেম্বর ২০১৮
শিশু মৃত্যুর ২৪ শতাংশ কমায়

কাল দুই কোটি শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ খাওয়ানো হবে

-

ভিটামিন ‘এ’ শিশু মৃত্যুর হার ২৪ শতাংশ কমায়। ভিটামিনটির অভাবে শিশুর চোখে প্রদাহ হয়, চোখে চর্বির স্পট জমে, এমনকি চোখে গর্তের সৃষ্টি হয়। এটা বয়স্কদের চেয়ে পাঁচ বছরের শিশুদের বেশি হয় অত্যাবশ্যক এ ভিটামিনটির অভাবে। বাংলাদেশে দরিদ্র জনসংখ্যা বেশি। ভিটামিন ‘এ’যুক্ত খাবার কম পেয়ে থাকে। ফলে প্রয়োজনীয় ভিটামিন ‘এ’ শিশুরা পায় না বলে সরকার বছরে দু’বার জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন করে। আগামীকাল সরকারের পক্ষ থেকে সারা দেশে দুই কোটি ১৯ লাখ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ খাওয়ানো হবে।
চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, প্রকৃতপক্ষে এক লিটার রক্তে এক হাজার ভাগের এক ভাগ ভিটামিন ‘এ’ প্রয়োজন হয়। এর চেয়ে কম হলে রক্ত পরীক্ষা করে অতিরিক্ত ভিটামিন ‘এ’ দিতে হবে শিশুকে। ঢাকা জেলার সিভিল সার্জন ডা: মো: এহসানুল করিম বলেন, রক্তের রেটিনল পরীক্ষার মাধ্যমে রক্তে ভিটামিন ‘এ’ প্রয়োজনীয় মাত্রায় আছে কি না জানা যায়। ভিটামিন ‘এ’-এর ঘাটতি হলে শিশুর রাতকানা রোগ হয়, রাতে ভালো করে দেখতে পায় না। বেশি ঘাটতি হলে শিশু অন্ধ হয়ে যেতে পারে।
চিকিৎসকেরা বলছেন, শিশুর দেহে প্রয়োজনীয় ভিটামিন ‘এ’ থাকলে শিশু মৃত্যু হার ২৪ শতাংশ হ্রাস করা ছাড়াও হামের প্রকোপ হ্রাস করে ৫০ শতাংশ, ডায়রিয়ার জীবাণুর আক্রমণ থেকে শিশুকে রক্ষা করে ৩৩ শতাংশ।
সারা দেশে এক কোটি ২০ লাখ স্থায়ী স্থাস্থ্য কেন্দ্র এবং আরো ২০ হাজার মোবাইল কেন্দ্রের মাধ্যমে আগামীকাল শনিবার শিশুদের ভিটামিন ‘এ’ খাওয়ানো হবে।
ডিএনসিসির ১৪৯৯টি কেন্দ্রে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ১৪৯৯টি স্থায়ী ও অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রে আগামীকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন পরিচালনা করা হবে।
শিশুর সুস্থভাবে বেঁচে থাকা, স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও দৃষ্টি শক্তির জন্য ভিটামন ‘এ’ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এক অনুপুষ্টি। ভিটামিন ‘এ’ চোখের স্বাভাবিক দৃষ্টিশক্তি ও শরীরের স্বাভাবিক বৃদ্ধি বজায় রাখে এবং বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে রোগ প্রতিরোধ মতা তৈরি করে। ভিটামিন ‘এ’ এর অভাবে রাতকানাসহ চোখের অন্যান্য রোগ, শরীরের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যাহত হওয়া, রক্তশূন্যতা এমনকি শিশুর মৃত্যুও হতে পারে। বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য নীতিমালা অনুযায়ী, বছরে দুইবার ভিটামিন ‘এ’ এর অভাব পূরণে সম্পূরক খাদ্য হিসেবে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়।


আরো সংবাদ