২০ নভেম্বর ২০১৮

ত্রিমুখী লড়াইয়ে আ’লীগ বিএনপি ও জামায়াত

কক্সবাজার-৪ আসন
আ’লীগ বিএনপি ও জামায়াত - ছবি : সংগৃহীত

ত্রিমুখী লড়াই হবে কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পাশাপাশি জামায়াতে ইসলামীও এ আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। এই তিন দলের ১৩ প্রার্থী আছেন নির্বাচনী মাঠে। তবে শেষ পর্যন্ত জামায়াতে ইসলামী ২০ দলীয় জোটের ব্যানারে নির্বাচনে অংশ নিলে কপাল পুড়বে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীর। এ নিয়ে টানাপড়েন চলছে জামায়াতে ইসলামীর সাথে বিএনপির। আওয়ামী লীগের এমন অবস্থা না থাকলেও এ আসনে তাদের মাথাব্যথার কারণ দলে দ্বিধাবিভক্তি। আগামী নির্বাচনে বর্তমান এমপি আবদুর রহমান বদিকে চ্যালেঞ্জ জানাতে বেশ আগেভাগেই আটঘাট বেঁধে নেমেছেন আওয়ামী লীগের ছয়জন সম্ভাব্য প্রার্থী। বিএনপি-জামায়াতের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইবেন বর্তমান এমপি আবদুর রহমান বদি। তবে এবার তাকে চ্যালেঞ্জ জানাবেন সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী, ড. হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা শাহ আলম চৌধুরী, (প্রকাশ রাজা শাহ আলম) তাঁতী লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্তা এবং উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্য হামিদুল হক চৌধুরী।

অন্য দিকে ধানের শীষ প্রতীক পেতে মরিয়া হয়ে মাঠে রয়েছেন কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি ও চারবারের নির্বাচিত সাবেক এমপি শাহজাহান চৌধুরী। জামায়াতে ইসলামীর হয়ে এখানে মনোনয়ন যুদ্ধে আছেন ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মোহাম্মদ শাহজাহান, কক্সবাজার জেলা বারের সাবেক সভাপতি এ কে এম শাহজালাল চৌধুরী ও চেয়ারম্যান নুর আহমদ আনোয়ারী। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগের আলহাজ আবদুর রহমান বদি এই আসনে টানা দ্বিতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন চাওয়া প্রসঙ্গে আবদুর রহমান বদি জানান, যুগের পর যুগ এই আসন বিএনপি-জামায়াতের ঘাঁটি ছিল। বিএনপির চারবারের নির্বাচিত সাবেক এমপি শাহজাহান চৌধুরীকে পরাজিত করে টানা দ্বিতীয়বার তিনিই প্রথম আওয়ামী লীগের বিজয় পতাকা ওড়ান এ আসনে। তার সময়ে শত শত কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ হয়েছে। মতানৈক্য কাটিয়ে দলকে শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে যাওয়ায় তার বিশ্বাস, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারো তার ওপর আস্থা রাখবেন। তবে এমপির বক্তব্যের সাথে ভিন্ন মত পোষণ করেন আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য অন্য প্রার্থীরা। তারা বলছেন, আওয়ামী লীগ উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলা কমিটির অনেক নেতার সাথে এমপির বিরোধ রয়েছে। আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী জানান, দলের নেতাকর্মীদের সাথে তার নিবিড় যোগাযোগ রয়েছে। স্থানীয় ভোটারদের সাথেও তার সখ্য রয়েছে। তিনি আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আবারো দলের মনোনয়নপ্রত্যাশা করছেন।

কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের নেতা শাহ আলম চৌধুরী রাজা বলেন, এমপির কারণে উখিয়া-টেকনাফে দলের সাংগঠনিক অবস্থা ক্রমশ দুর্বল হচ্ছে। নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে বিভক্তি। এ অবস্থা থেকে উত্তরণ প্রয়োজন পরিবর্তন। দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা পরির্তনের পইে আগামীতে অবস্থান নেবেন বলে বিশ্বাস তার। তেমন হলে তিনি এ আসন থেকে মনোনয়ন পেতে পারেন। কেন্দ্রীয় তাঁতী লীগের সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্তা বলেছেন, দলীয় মনোনয়নের যুদ্ধে তিনি আছেন। তার বিশ্বাস, দলের জন্য ত্যাগ ও নারীর মতায়নের দিক বিবেচনায় নিলে তিনি মনোনয়ন পেতে পারেন। 

কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি চারবারের সাবেক এমপি অত্যন্ত অমায়িক আলহাজ শাহজাহান চৌধুরী দলীয় চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আস্থাভাজন হিসেবে এবারও মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন, এটা অনেকটাই নিশ্চিত বলে সাধারণভাবে ধারণা চালু আছে। সাংগঠনিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকায় নেতাকর্মীদের সাথে তার যোগাযোগ সবচেয়ে বেশি। তা ছাড়া দলকে শক্তিশালী করতেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। অভ্যন্তরীণ কোন্দলও নেই বিএনপিতে। সেদিক থেকে বিবেচনা করলে এখানে বিজয়ী হবে ধানের শীষ।


আরো সংবাদ