১৩ ডিসেম্বর ২০১৮

নির্বাচনের আগে ইসিতে ২ হাজার নতুন পদ সৃষ্টি

নির্বাচনের আগে ইসিতে ২ হাজার নতুন পদ সৃষ্টি - সংগৃহীত

জাতীয় নির্বাচনের আগে তিন স্তরে ৭৫জন কর্মকর্তার পদোন্নতি দেয়ার সুপারিশ করেছে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নিয়োগ, পদোন্নতি, প্রশাসনিক সংস্কার সংক্রান্ত সংক্রান্ত কমিটি। এতে দশটি আঞ্চলিক কর্মকর্তা পদে ৯জন, উপ-সচিব বা সমমান পদে ২৯জন ও সিনিয়র সহকারি সচিব বা সমমান পদে ৩৭জন কর্মকর্তা রয়েছেন। এ সুপারিশ কমিশনের অনুমোদনের পর শিগগিরই তা প্রজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ করা হবে।

এদিকে ইসির অর্গানোগ্রাম (জনবল কাঠামো) সংশোধন করে নতুন ২ হাজার পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। এর আওতায় আগামী নির্বাচনের আগেই ৫১৭জন সহকারি উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হবে। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশনার ও ইসির নিয়োগ, পদোন্নতি, প্রশাসনিক সংস্কার সংক্রান্ত কমিটির প্রধান মাহবুব তালুকদার ৭৫জন কর্মকর্তার পদোন্নতির সুপারিশের কথা সাংবাদিকদের জানান।

ইসির কর্মকর্তারা জানান, শূন্য পদের বিপরীতে জ্যেষ্ঠতা তালিকা অনুযায়ি পদন্নোতির সুপারিশ করেছে কমিটি। দীর্ঘ অনেক বছর অপেক্ষার পর পদোন্নতি পেলেন তারা। কেউ কেউ ২৭ বছরের চাকুরির জীবনে এ প্রথম পদোন্নতি পেলেন। পদন্নোতির এমন খবরে ইসির কর্মকর্তাদের উচ্ছাস দেখা গেছে। তাদের মধ্যে হতাশা কেটে গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কর্মকর্তা উচ্ছাস প্রকাশ করে বলেন, দীর্ঘ অনেক বছর পদোন্নতি না পাওয়ায় পারিবারিক ও সামাজিকভাবে হেয় অবস্থায় ছিলাম। পদোন্নতি না পাওয়ায় অনেকেই চাকুরি ছেড়ে দিয়েছেন।

নতুন পদন্নোতিতে ইসির কাজে গতি আরও বাড়বে বলে আশা প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, নির্বাচন সামনে রেখে জনপ্রশাসন, পুলিশে পদোন্নতি হচ্ছে। ইসিতেও পদোন্নতির ঢেউ লেগেছে। কমিটি ৭৫ জন কর্মকর্তার পদোন্নতির সুপারিশ করেছেন। নির্বাচন কমিশন এই সুপারিশ অনুমোদন করলে তা কার্যকর হবে।

তিনি বলেন, পদোন্নতিতে ইসির কর্মকর্তারা উৎসাহিত ও উদ্দীপ্ত হবে। তবে আগামী নির্বাচনে ইসির নিজস্ব কর্মকর্তাদের মধ্যে কতজন বা কী সংখ্যক রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হবে সে বিষয়ে কমিশন এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি বলে জানান তিনি।

পদোন্নতি প্রসঙ্গে মাহবুব তালুকদার বলেন, যুগ্ম সচিব পদে কাউকে পদোন্নতির সুপারিশ করা হয়নি। ৯ জন আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তাকে চতুর্থ গ্রেড দেয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। এ ছাড়া ২৯ জনকে উপসচিব বা সমমান পদে (পঞ্চম গ্রেড) এবং সিনিয়র সহকারী সচিব বা সমমান পদে ৩৭ জনকে পদোন্নতি দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

তিনি জানান, নতুন জনবল অবকাঠামোতে দুই হাজার পদে নতুন জনবল নিয়োগ হলে ইসি আরও বেশি শক্তিশালী হবে। এর মধ্যে ৫১৭জন উপজেলা সহকারি নির্বাচন কর্মকর্তা রয়েছেন। সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) মাধ্যমে আগামী নির্বাচনের আগে এসব পদে নিয়োগ দেয়া হবে বলে আশা করেন তিনি।

ইসি সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনের কমিশনের ১০টি আঞ্চলিক কর্মকর্তা পদে ৯জনকে পদোন্নতির সুপারিশ করেছে কমিটি। এর মধ্যে ৭জনই ইসির যুগ্ম সচিব পদে কর্মরত রয়েছেন। বাকি দুজন আঞ্চলিক কর্মকর্তার পদে চলতি দায়িত্বে রয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ি, ইসির যুগ্ম সচিব পদে পদোন্নতি পেতে হলে অন্তত দুই বছর আঞ্চলিক কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করতে হয়। কিন্তু বর্তমান কমিশন ওই নিয়ম উপেক্ষা করে আটজনকে যুগ্মসচিব পদে চলতি দায়িত্ব দেয়।

এর মধ্যে একজন অবসরে গেছেন। বর্তমানে যে ৯জনকে আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার পদে পদোন্নতির সুপারিশ করা হয়েছে তারা হলেন- (জ্যোষ্ঠতা তালিকা অনুযায়ি) খোন্দকার মিজানুর রহমান (সচিবালয়), মোঃ মুজিবুর রহমান খান (আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা, বরিশাল), রকিব উদ্দিন মন্ডল (আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা, ঢাকা), নুরুজ্জামান তালুকদার (আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা, ফরিদপুর), মোঃ আবুল কাশেম (সচিবালয়), মোস্তফা ফারুক (মহাপরিচালক, নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট), ফরহাদ আহম্মদ খান (সচিবালয়), মোঃ আব্দুল বাতেন (পরিচালক, এনআইডি), ও মোঃ এস এম আসাদুজ্জামান (পরিচালক, জনসংযোগ)। একজন আঞ্চলিক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধে মামলা চলমান থাকায় তাকে পদোন্নতি দেয়া হয়নি।


আরো সংবাদ