১২ ডিসেম্বর ২০১৮

ছোট্ট নেপালের কাছে এমন হার বিশাল চীনের!

ছোট্ট নেপালের কাছে এমন হার বিশাল চীনের! - ছবি : সংগৃহীত

বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশ কিংবা দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে চীন পরিচিত হলেও একটি দিকে তারা নিজেদেরকে কোনোভাবেই এগিয়ে নিতে পারছে না। বিশ্বের বিভিন্ন ক্রীড়া ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক ভাবে নিজেদের সুনাম বৃদ্ধি পেলেও ক্রিকেট মাঠে চীনাদের বিপক্ষে প্রতিপক্ষ দলগুলো বেশ আধিপত্যই দেখাচ্ছে।

বুধবার আইসিসি টি-২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে নেপালের বিপক্ষে মাত্র ২৬ রানে অল আউট হয়ে আবারো ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে চীন। মাত্র ১১ বলেই নেপাল নির্ধারিত রান সংগ্রহ করে জয় তুলে নেয়। এই টুর্ণামেন্টে এর আগের ম্যাচগুলোতেও চীন এভাবেই ব্যাটিং ব্যর্থতা দেখিয়েছে। সিঙ্গাপুরের বিপক্ষেও তারা মাত্র ২৬ রানে অল আউট হয়।

এছাড়া অন্যান্য ম্যাচে থাইল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ উইকেটে ৩৫ ও ভূটান ও মায়ানমারের বিপক্ষে অল আউট হয়েছে মাত্র ৪৫ ও ৪৮ রানে।

২০১৬ সালে টি-২০ ক্রিকেটের ইতিহাসে শ্রীলংকার বিপক্ষে ৩ উইকেটে অস্ট্রেলিয়া সর্বোচ্চ ২৬৩ রানের ইনিংস উপহার দিয়েছিল। তার তুলনায় চীনের সামনে এখনো অনেক পথ বাকি।
নেপালের বিপক্ষে চীনের ওপেনিং ব্যাটসম্যান ইয়ান হংজিয়াং সর্বোচ্চ ১১ রান করেছেন। এরপর সবচেয়ে বেশি ১১ রান এসেছে অতিরিক্তের খাতা থেকে। আইপিএল বোলার সন্দীপ লামিচানে মাত্র ৪ রানে তুলে নিয়েছেন ৩ উইকেট।

আটজন চীনা ব্যাটসম্যান কোনো রান না করেই সাজ ঘরে ফিরে গেছেন।

২০১০ সালে এশিয়ান গেমসের মাধ্যমে চীনের ক্রিকেট প্রথম আন্তর্জাতিক আসরে পা রাখে। অলিম্পিকের বিভিন্ন ডিসিপ্লিন ও বিশেষ করে ফুটবলে চায়নার সমৃদ্ধ ইতিহাত থাকলেও ক্রিকেটটা চীনারা ঠিকমতো উপভোগ করতে পারছে না।

নেপালের সাবেক অধিনায়ক বিনোদ দাস বলেছেন, ‘দেশের আয়তন কিংবা শক্তি ক্রিকেটে কোনো বিষয় নয়। আমরা তাদেরকে খাটো করে দেখতে পারি না। কারণ ভবিষ্যতে তারাও নিজেদের শক্তিমত্তার পরিচয় দিবে। অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও দক্ষতা বৃদ্ধিতে চীন ইতোমধ্যেই গুরুত্বের সাথে কাজ শুরু করেছে।’

৯ রানে অল-আউট!

৯ রান, ৮ উইকেট, ১০.১ ওভার! অবিশ্বাস্য মনে হলেও এটাই একটা দলের স্কোর বোর্ড। টি-টোয়েন্টি বাছাই পর্বের এশিয়া অঞ্চলের খেলায় মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ৯ রানেই গুটিয়ে যায় মিয়ানমার।

এর আগে গত রোববার নেপালের বিপক্ষে মাত্র ১৮ রানেই অলআউট হয়ে যায় থাইল্যান্ড। নেপালের করা ১৭২ রানের জবাবে ১৮ রানেই গুটিয়েছিল থাইল্যান্ড।

মঙ্গলবার মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ১০.১ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে মাত্র ৯ রান তুলতেই গুটিয়ে যায় মিয়ানমার।

দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ রান করেন হ্যাঁ কো কো অং। অতিরিক্ত থেকে আসে ৩ রান।

অন্যদিকে এই ম্যাচেই মিয়ানমারের বিপক্ষে ৪ ওভারে মাত্র ১ রানে ৫ উইকেট শিকার করে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছেন মালয়েশিয়ার বাঁ-হাতি স্পিনার পবনদীপ সিং।

এর আগে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ৪ ওভারে ৮ রানে ৬ উইকেট নিয়ে রেকর্ড গড়েছিলেন শ্রীলংকান ক্রিকেটার অজন্তা মেন্ডিস। ২০১২ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হাম্বানটোটায় এই রেকর্ড গড়েছিলে লংকান এ অফ স্পিনার।

গত বুধবার সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে ২৬ রানে অলআউট হয়ে আরেকটি বাজে রেকর্ড গড়েছিল চীন।

শুধু কম রানের রেকর্ড নয়, টার্গেট তাড়া করতে নেমে সবচেয়ে কম বলের জয় নিশ্চিত করার রেকর্ড গড়েছে মালয়েশিয়া।

বৃষ্টি আইনে জয়ের জন্য মালয়েশিয়ার টার্গেট দাঁড়ায় ৮ ওভারে মাত্র ৬ রান। এই ছয় রান করতে ১০ বল খেলে ২ উইকেট হারায় মালয়েশিয়া। দলের জয়ে ৭ ও ৪ রান করে করেন সুহান আলগরাতনাম ও শারভিন মুনিইডি।


আরো সংবাদ