২৩ অক্টোবর ২০১৮

নির্বাচনের আগে সিঙ্গাপুরে এরশাদ

সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ। - ছবি: সংগৃহীত

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ১৫ দিনের মধ্যে ফের সিঙ্গাপুর গেলেন। বৃহস্পতিবার সকালে তিন দিনের সফরে তিনি সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্যে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন।

সাবেক এই রাষ্ট্রপতির সফরসঙ্গী হিসেবে রয়েছেন পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি ও মেজর (অব:) খালেদ আখতার। এরশাদ আগামী ১৩ অক্টোবর দেশে ফিরবেন। এর আগে এরশাদ গত ২৫ সেপ্টেম্বর মেডিক্যাল চেকআপ করাতে সিঙ্গাপুরে যান। ওই চেকআপ শেষে গত ২৯ সেপ্টেম্বর তিনি দেশে ফেরেন।

এ দিকে সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদকে বিদায় জানাতে হজরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য এম এ সাত্তার, গোলাম কিবরিয়া টিপু, আলহাজ সাহিদুর রহমান টেপা, ফখরুল ইমাম এমপি, শ্রম ও জনশক্তি প্রতিমন্ত্রী মজিবুল হক চুন্নু এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মোহাম্মদ আবদুল মান্নান, সুনীল শুভরায়, এস এম ফয়সল চিশতী, মীর আবদুস সবুর আসুদ, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, ব্যারিস্টার দিলারা খন্দকার, আলহাজ শফিকুল ইসলাম সেন্টু, জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের চিফ হুইপ নুরুল ইসলাম ওমর এমপি, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট হাসান সিরাজ সুজা, ভাইস চেয়ারম্যান মাহজাবীন মোরশেদ এমপি, অধ্যাপক নুরুল ইসলাম মিলন এমপি প্রমুখ নেতারা।

 

আরা পড়ুন: এরশাদ ৫ দিনের সফরে ভারত যাচ্ছেন আজ

বিশেষ সংবাদদাতা, ২২ জুলাই ২০১৮

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ভারত সরকারের বিশেষ আমন্ত্রণে পাঁচ দিনের সফরে দিল্লি যাচ্ছেন। আজ রোববার সকালে দিল্লির উদ্দেশে তিনি ঢাকা ত্যাগ করবেন। দলের মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সুনীল শুভ রায়, মেজর (অব:) খালেদ আখতার তার সাথে থাকবেন। ২৬ জুলাই তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।
গত মঙ্গলবার বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধণ শ্রীংলা এরশাদের বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কের বাসভবনে তার সাথে দেখা করেন। এ সময় তিনি ভারত সরকারের প থেকে সাবেক রাষ্ট্রপতির হাতে আমন্ত্রণপত্র তুলে দেন।

পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও এরশাদের প্রেস অ্যান্ড পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভ রায় বলেন, দিল্লি সফরে এরশাদ বিজেপি সরকারের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের সাথে দেখা করবেন।

এ দিকে ভারত সরকারের বিশেষ আমন্ত্রণে এরশাদের দিল্লি সফর হলেও আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের আগে এ সফর নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে কৌতূহল সৃষ্টি হয়েছে। রাজনীতিকদের অনেকেই এরশাদের এ সফরকে গুরুত্বের সাথে দেখছেন। তারা মনে করছেন, আসন্ন নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রতি দিল্লির সমর্থন লাভের আশায় এরশাদের এ সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

 

আরো পড়ুন: ছাত্রলীগের হামলা দুঃখজনকএক হাসিতেই দেশ অস্থিতিশীল : এরশাদ

বিশেষ সংবাদদাতা ০৪ আগস্ট ২০১৮, ১৯:২৩


ক্ষমতাসীর দলের নৌপরিবহন মন্ত্রী শাহাজাহান খাঁনের কঠোর সমালোচনা করে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, তার একটি হাসি গোটা দেশকে অস্থিতিশীল করে তুলেছে। তারা আজ মানুষ মরলে হাসে। তাদের কাছে মানুষের কোনো মুল্য নেই। কোমলমতি শিশুরা রাজনীতি বুঝে না। তারা বাচঁতে চায়। তারপরও তাদের উপর ছাত্রলীগ যেভাবে হামলা করছে তা দুঃখজনক। তিনি বলেন, পরিবহন শ্রমিকদের কাছে আজ আমরা জিম্মি। বাস চলুক আর না চলুক, সরকারকে অনুরোধ করবো তাদের সাথে কোনো আপোষ নয়। আইন সবাইকে মানতে হবে।

শনিবার সুপ্রীমকোর্ট বার মিলনায়তনে জাতীয় আইনজীবী ফেডারেশনের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এরশাদ এসব কথা বলেন। আইনজীবি ফেডারেশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে জাতীয় পার্টির কো চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট বাসেত মজুমদার, অ্যাডভোকেট তোফাজ্জল হোসেন, পরিমল কুমার বিশ্বাস, অ্যাডভোকেট ইয়াহিয়, গিয়াস উদ্দিন, ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বক্তৃতা করেন।


এরশাদ বলেন, রাজনীতিবিদদের এখন কোনো সম্মান নেই, ঘৃণার চোখে দেখে। সেজন্য নিজেকে সৈনিক পরিচয় দেই। বর্তমান সংসদে ১৫৪ জন এমপি বিনা ভোটে নির্বাচিত, তাদেরকে রাজনীতিবিদ বলিই-বা কি করে। আমার মত নির্যাতিত রাজনীতিবিদ আর দেখিনি। আমি ক্ষমতায় থেকে একদিনের জন্যও শান্তিতে দেশ চালাতে পারিনি। ৩৬৮দিন হরতাল দেয়া হয়েছে। এখনও শান্তিতে ঘুমাতে পারি না, মামলায় জর্জরিত। আমি কি এমন খারাপ কাজ করেছি, কি অন্যায় করেছি? যে আমাকে এত অত্যাচার সইতে হবে।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, ১৪ বছর নয় মাস পর মঞ্জু হত্যা মামলা করা হলো আমার বিরুদ্ধে। জিয়া হত্যার বিরুদ্ধে অভিযুক্ত মঞ্জু। অথচ তারা জিয়া হত্যার বিচার চায় না। যখনই মঞ্জু হত্যার রায় ঘোষণার সময় হয়, তখনই জজ পরিবর্তন করা হয়। এই পর্যন্তু ৭টি জজ পরিবর্তন করা হয়েছে। আমার মত নির্যাতিত রাজনীতিবিদ যেন আর জন্মগ্রহণ না করে। তিনি বলেন, সামনে নির্বাচন। এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেই নেই। গত কয়েকবছর অনেক বঞ্চণার শিকার হয়েছি। আর হতে চাইনা। ভেবে চিন্তেই সঠিক সিদ্ধান্ত নেবো।

এরশাদ বলেন, আমি রাস্তায় বেরুলেই দেখি ফুটপাতে মানুষ শুয়ে আছে। খাবার নেই, চাকরি নেই। কেউ দেখে না। আর এটাই হচ্ছে আমাদের উন্নয়নের মহাসড়ক। তারেক রহমানের সমালোচনা করে এরশাদ বলেন, ১/১১-’র আগে তারেক আমার বাসায় এসে আমাকে হাওয়া ভবনে যেতে বললেন। বললেন আপনি আমাদের সাথে জোট করবেন এবং আপনাকে ১৮টি আসন দেয়া হবে। না হলে আপনাকে দেশ ছাড়তে হবে। আমি ওর পিতৃসমতূল্য, সে আমার সাথে এ ভাষায় কথা বলতে পারে ভাবতেও অবাক লাগে। তারপর আওয়ামী লীগকে সমর্থন করেছিলাম। কিন্তু কি পেলাম? তারাও আমার প্রতি অবিচার করলো। দল ভাঙ্গলো, আমাকে জেলে নিয়ে নির্বাচনে অযোগ্য করলো।

ছাত্রদের চলমান আন্দোলনে সমর্থন জানিয়ে এরশাদ বলেন, ছাত্রদের চলমান আন্দোলন কোন রাজনৈতিক ইস্যু নয়, নিরাপদ সড়কের দাবিতে এই আন্দোলন। এটা তাদেও বাঁচতে চাওয়ার আন্দোলন। ছাত্রলীগের কর্মীরা আন্দোলনরত শিশুদের ওপর যে হামলা করেছে তা খুবই দুঃখজনক। প্রতিদিন মৃত্যুও মিছিল বড় হচ্ছে, এমন দেশের মুক্তিযুদ্ধ হয়নি। বাঁচার দাবিতে রাজপথে ছাত্ররা আন্দোলন করবে, এমন দেশের জন্য কি মুক্তিযোদ্ধারা জীবন দিয়েছিলেন ? মানুষের জীবনের যেনো কোন মূল্য নেই। তিনি বলেন, এদেশে গাড়ি চালাতে হলে অবশ্যই শ্রমিকদের আইন মানতে হবে। এজন্য সরকারকে আরো দায়িত্বশীল হতে হবে।

এরশাদ বলেন, দেশে খুন, গুম, সন্ত্রাস, নৈরাজ্য চলছে- এভাবে দেশ চলতে পারেনা। ছাত্ররা জেগে উঠেছে, সাধারন মানুষ জেগে উঠেছে। এবার আমাদেরও জেগে উঠতে হবে। দেশের মানুষকে বাঁচাতে হবে। দেশে সুশাসন ফিরিয়ে দিতে আমাদের দায়িত্ব নিতে হবে। তিনি বলেন, মানুষ জাতীয় পার্টির ন’বছরের শাসনামলকে স্বর্নযুগ মনে করে। সাধারন মানুষ জাতীয় পার্টির শাসনামলে ফিওে যেতে চায়। আমরা উন্নয়ণ আর ভালোবাসা দিয়ে মানুষকে জয় করেছি। 

সভাপতির বক্তব্যে শেখ সিরাজুল ইসলাম আইনের শাসন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, সাম্পদ্রায়িক সম্প্রীতির দুর্ণীতিমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সকলকে জাতীয় আইনজীবি ফেডারেশনের পতাকাতলে সমবেত হওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।


আরো সংবাদ

মেয়েদের দেহে স্পর্শ নিয়ে ট্রাম্পের মন্তব্য, এরপর যা হলো ব্রেক্সিট নিয়ে ফের গণভোটের দাবিতে লন্ডনে লাখো মানুষের বিক্ষোভ কিভাবে ফাঁস হয় ফোনালাপ? আইন যা বলেছে কারাগারের আমদানী সেলে ব্যারিস্টার মইনুলের প্রথম রাত কেশবপুরে সরকারদলীয় নেতাদের অবৈধ পশুহাট মইনুল হোসেনকে ‘রাজনৈতিকভাবে’ নিয়েছে আওয়ামী লীগ, বিবিসির জিজ্ঞাসা নিখোঁজের ২৪ দিন পর কিশোরের লাশ উদ্ধার মইনুলের গ্রেফতার কিভাবে দেখছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বুধবার সিলেটের জনসভা থেকে কী বার্তা দেবে ঐক্যফ্রন্ট কলড্রপের ক্ষতিপূরণ ও অনাকাঙ্খিত ম্যাসেজ নিয়ন্ত্রণে সংসদীয় কমিটির সুপারিশ মইনুল হোসেনকে গ্রেফতার করা জরুরি ছিল : কাদের 

সকল