১২ ডিসেম্বর ২০১৮

কঠোর নিয়ন্ত্রণের মুখে ফেসবুক

কঠোর নিয়ন্ত্রণের মুখে ফেসবুক - ছবি : সংগৃহীত

ফেসবুকসহ বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মের মাধ্যমে ভুয়া সংবাদ ছড়ানো নিয়ে কয়েক বছর ধরেই সমালোচনা হচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠান তাদের গ্রাহকদের ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষা দিতেও ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে। এ কারণে বিশ্বব্যাপী সোস্যাল মিডিয়া জায়ান্টদের নিয়ন্ত্রণের পক্ষে মত দিয়েছেন বিশ্বনেতারা। ভুয়া সংবাদ ছড়ানো, নির্বাচনে হস্তক্ষেপ ও গ্রাহকদের ব্যক্তিগত তথ্যের অপব্যবহার নিয়ে লন্ডনে ব্রিটিশ হাউজ অব কমন্সে একটি শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। এতে ৯টি দেশের আইনপ্রণেতারা উপস্থিত ছিলেন। এ শুনানিতে সাক্ষ্য দিতে ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মার্ক জাকারবার্গকে আহ্বান জানালে জাকারবার্গের বদলে ফেসবুকের পলিসি সলিউশন বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট রিচার্ড অ্যালান হাজির হয়েছিলেন। যেখানে ফেসবুকের কার্যক্রম কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণের ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে।

শুনানিতে আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, কানাডা, আয়ারল্যান্ড, লাটভিয়া, সিঙ্গাপুর, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও বেলজিয়ামের আইনপ্রণেতারা উপস্থিত ছিলেন। আন্তর্জাতিক তদন্ত কমিটির শুনানিতে মার্ক জাকারবার্গ হাজির না হওয়ার কড়া সমালোচনা করেন তারা।

নয় দেশের আইনপ্রণেতারা ফেসবুক প্রতিনিধি রিচার্ড অ্যালানকে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন। শুনানি শেষে তারা একটি যৌথ ঘোষণাপত্রে সই করেন। এতে বলা হয়েছে, বৈশ্বিক ইন্টারনেট পরিচালনার জন্য একটি নীতিমালা প্রণয়ন আবশ্যক হয়ে পড়েছে। ভুয়া সংবাদ ছড়ানো ও গ্রাহক তথ্যের গোপনীয়তা সুরক্ষা দিতে ব্যর্থতার কারণে কয়েক বছর ধরেই বিশ্বব্যাপী চাপের মুখে পড়েছে ফেসবুক।
শুনানির সময় কানাডার হাউজ অব কমন্স স্ট্যান্ডিং কমিটি অন অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন, প্রাইভেসি অ্যান্ড এথিকসের ভাইস প্রেসিডেন্ট চার্লস অ্যাঙ্গাস বলেন, স্বনিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আস্থা হারিয়েছে ফেসবুক। এ কারণে তারা নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের কথা ভাবছেন। এর জবাবে রিচার্ড অ্যালান বলেন, এ বিষয়ে আইনপ্রণেতাদের সাথে তিনি দ্বিমত পোষণ করছেন না।

অ্যালান বলেন, প্লাটফর্মের সবকিছুর জন্যই ফেসবুককে আইনত দায়ী করার বিষয়টি তিনি সমর্থন করেন না। গ্রাহক তথ্য ও গোপনীয়তা নিশ্চিত করতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে। চলতি বছরের শুরুর দিকে ইউরোপে জেনারেল ডাটা প্রটেকশন রেগুলেশন বা জিডিপিআর কার্যকর হয়েছে। এ আইন মানতে ব্যর্থ হলে কোম্পানিগুলোকে বিপুল অঙ্কের জরিমানা গুনতে হবে।


আরো সংবাদ