১৬ জানুয়ারি ২০১৯

বিদায় নেয়ার আগে যা বললেন বাদ পড়া মন্ত্রীরা

সোমবার ছিল দশম সংসদের মন্ত্রীদের শেষ কর্মদিবস। শেষ দিনে সচিবালয়ে এসে নিজ নিজ মন্ত্রণালয় থেকে বিদায় নিয়েছেন বর্তমান সংসদে বাদ পড়া মন্ত্রীরা। যাওয়ার আগে তারা নতুন মন্ত্রিসভা এবং তেমনি নিজেদের কর্মযজ্ঞ নিয়ে কথা বলেছেন।

নিজ মন্ত্রণালয়ে এসে প্রধানমন্ত্রী চমৎকার একটি মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন সদ্য বিদায়ী বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

তিনি বলেছেন, আমরা তো ছিলামই। নতুনদেরও জায়গা করে দিতে হবে। যারা মন্ত্রিত্ব লাভ করতে যাচ্ছেন সবাই চমৎকার মানুষ, সৎ। এটা তাদের প্রাপ্য। সংসদ সদস্য হিসেবেও ভালো ভূমিকা রাখা যায়। আমার কাছে এমপিই বড়। সংসদে থেকে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যেতে চাই।

আগামী ৫ বছর বাংলাদেশে অর্থনৈতিক বিজয় অর্জিত হবে আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মদিন এবং ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী আমরা জমজমাটভাবে উদযাপন করবো। ২০৩০ সালে বাংলাদেশ হবে বিশ্বের ২৬তম অর্থনৈতিক দেশ।

সদ্য সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, নতুনদের জায়গা করে দিতে পুরাতনদের জায়গা ছেড়ে দিতে হয়। এজন্য প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিসভায় নতুনদের সুযোগ দিয়েছেন। আমি আশা করবো নতুনরা যার যার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করবেন। নতুনরা সবাই যোগ্য। যোগ্যতা বিবেচনা করে প্রধানমন্ত্রী তাদের মন্ত্রিসভায় ঠাঁই দিয়েছেন।

তিনি বলেন, এ সরকারের আগামী ৫ বছর হবে বাংলাদেশের জন্য যুগান্তকারী ইতিহাস। কারণ এ পাঁচ বছরে দেশে অভাবনীয় উন্নয়ন হবে। আমি টানা ৯ বছর এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলাম। এসময় সরকারের বিভিন্ন গুরুদায়িত্ব অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করার চেষ্টা করেছি।

নতুন মন্ত্রিসভাকে স্বাগত জানিয়ে শাজাহান খান বলেন, প্রধানমন্ত্রী যে কাজটি করেছেন সেটি অত্যন্ত সঠিক। নতুন নতুন অনেকে আজকে মন্ত্রিসভায় এসেছেন। আমরাতো সাতবার সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছি। জীবিত থাকা অব্দি হয়ত হবোও। যারা নতুন আসছেন, তাদের উদ্দীপনা-শক্তি কাজে লাগাতে প্রধানমন্ত্রী নিয়ে এসেছেন। তারা অত্যন্ত যোগ্য। এই মন্ত্রণলায়ের দায়িত্বে যিনি আসছেন তিনি দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

মন্ত্রী থাকাকালীন নৌমন্ত্রণালয়ের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে শাজাহান খান বলেন, বাংলাদেশের ২৪ হাজার কিলোমিটার নৌপথের মধ্যে ২০ হাজার চারশ' কিলোমিটার নৌপথ হারিয়ে গেছে। বিগত সরকারের সময় সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ৫৩টি নৌপথ খনন শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার ৬শ' কিলোমিটার নৌপথ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রায় তিন হাজার একর জমি পুন:উদ্ধার করা হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সদ্য বিদায়ী মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, নতুনদের জায়গা করে দিতে নিজেই দায়িত্ব নেইনি। প্রধানমন্ত্রী আমাকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালনে শতভাগ চেষ্টা করেছি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমার সময়েই শিক্ষার মান বিশ্বে একটা কাঙ্খিত মানে গিয়ে পৌঁছেছে। বছরের প্রথম দিনে ছাত্রছাত্রীদের হাতে বই পৌঁছে দিতে পেরেছি আমরা। এটা একটি অনন্য সাফল্য।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বেলা ১১টার দিকে সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে আসেন। ১২টার দিকে তাঁকে বিদায়ী সংবর্ধনা দেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা-কর্মচারীরা। এরপর তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

এছাড়াও বিদায় অনুষ্ঠান করেন, গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী মোশাররফ হোসেন, সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর প্রমুখ।


আরো সংবাদ