১৬ জানুয়ারি ২০১৯

সুদানে বশির বিরোধী বিক্ষোভে টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ

-

সুদানের রাজধানী খার্তুম ও পাশের শহর ওমদুরমানে প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশিরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভরত হাজার হাজার মানুষকে ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাস ছুড়েছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী। আগামী সপ্তাহে প্রেসিডেন্টের পদত্যাগের দাবিতে দেশব্যাপী আরো বিক্ষোভের ডাক দেয়া হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার নীল নদীর উপকূলে খার্তুমের দু’টি স্থান ও ওমদুরমানের একটি স্থানে জড়ো হয়ে বিক্ষোভকারীরা স্বাধীনতা, শান্তি, ন্যায়বিচারের দাবিতে স্লোগান দেয়। খবরে বলা হয়, বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে টিয়ার গ্যাস ছোড়ে দাঙ্গা পুলিশ। সুদানে এ বিক্ষোভের শুরু মূলত রুটির দাম বৃদ্ধির ঘোষণাকে কেন্দ্র করে। রুটির দাম ছিল ২ সেন্ট। সুদানের সরকার তার দাম বৃদ্ধি করে ৬ সেন্ট করেছে।
প্রথমে রাজধানীর বাইরে শুরু হলেও ক্রমেই তা খার্তুমে ছড়িয়ে পড়ে। গত ১৯ ডিসেম্বর থেকে রাজধানী খার্তুমসহ বিভিন্ন শহরের রাস্তায় বিক্ষোভ করছে সুদানের হাজার হাজার নাগরিক। এসব বিক্ষোভে পুলিশের হামলায় নিহত হয়েছে বেশ কয়েকজন। সরকারের তরফে ২০ জন বিক্ষোভকারীর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হলেও মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ৪০ জন নিহত হওয়ার খবরকে ‘বিশ্বাসযোগ্য’ আখ্যা দিয়েছে। এ বিক্ষোভ ক্রমেই ওমর আল বশিরের তিন দশকের শাসনবিরোধী বিক্ষোভে পরিণত হয়েছে।
বিক্ষোভের আয়োজক সুদানের পেশাজীবী অ্যাসোসিয়েশন বলেছে, আমরা সুদানের প্রতিটি শহর ও গ্রামে বিক্ষোভ সপ্তাহ শুরু করব। খার্তুম থেকে আলজাজিরার সংবাদদাতা হিবা মরগান জানিয়েছেন, বিক্ষোভ সত্ত্বেও প্রেসিডেন্ট ওমর আল বশির ক্ষমতায় থাকতে অনড়। আর এ কারণে বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিরোধীরা। যতক্ষণ পর্যন্ত না তার পদত্যাগের ঘোষণা আসছে ততক্ষণ কণ্ঠ জোরালো অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে পেশাজীবী অ্যাসোসিয়েশন। আর প্রেসিডেন্ট বশির বলেছেন ২০২০ সালের নির্বাচনের আগে সরে দাঁড়াবেন না তিনি।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানিয়েছে, ১৯ ডিসেম্বর বিক্ষোভ শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় এক হাজার মানুষকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে বিরোধীদলীয় নেতা থেকে শুরু করে সাংবাদিক ও বিভিন্ন অ্যাকটিভিস্টরাও রয়েছেন।

 


আরো সংবাদ