২০ মে ২০১৯

কোটালীপাড়ায় প্রতিপক্ষের বাড়ি-ঘরে হামলা, লুটপাটের অভিযোগ

হামলা ও ভাংচুরের পর ভাংচুরকৃত আসবাবপত্র এভাবেই ফেলে রাখা হয় - নয়া দিগন্ত

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় বিবাদমান দু’দল গ্রামবাসীর এক পক্ষ হামলা চালিয়ে এক মুক্তিযোদ্ধার বাড়িসহ প্রতিপক্ষের ১২টি বাড়ি ভাংচুর করেছে। এ সময় হামলাকারীরা লুটপাট ও মহিলাদের শ্লীলতাহানী করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ হিরণ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, গত ৩১ ডিসেম্বর দক্ষিণ হিরণ গ্রামে ভলিবল খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে রফিকুল ইসলাম ফয়জর নামে এক ব্যবসায়ী নিহত হয়। এ ঘটনায় ১ জানুয়ারী নিহত রফিকুল ইসলাম ফয়জরের স্ত্রী মিনা বেগম বাদী হয়ে কোটালীপাড়া থানায় ১০জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পর থেকে বাদীপক্ষ বিভিন্ন সময়ে বিবাদীপক্ষের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও আত্মীয় স্বজনদের ওপর হামলা করে আসছিল।

এর ধারাবাহিকতায় শুক্রবার দুপুরে জুমার নামাজের পর ফয়জরের আত্মীয়স্বজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে প্রতিপক্ষের বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে মুক্তিযোদ্ধা সাহেবালী শেখ, হাজী সাখাওয়াত হোসেন, হাজী রইচ উদ্দিন, পান্নু শেখ, রবিউল শেখ, শরাফত শেখ, জামশেদ শেখ, হায়দার শেখ, জায়েদ শেখ, বশার শেখ, আতাউর শেখ, সোলায়মান শেখের বসতঘরে ব্যাপক ভাংচুর করে। পাশাপাশি হামলাকারীরা লুটপাট ও মহিলাদের শ্লীলতাহানী করে। খবর পেয়ে কোটালীপাড়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছালে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

মামলার আসামী পান্নু শেখের স্ত্রী রাবেয়া খানম (৩০) বলেন, জুমার নামাজের পর নাইম, মামুন, হাসান, কামরুল ও সুফিয়ানের নেতৃত্বে প্রায় ৩০-৪০জন যুবক দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে।

অপর আসামী আতাউর রহমানের স্ত্রী শেফালী বেগম (৪০) বলেন, হামলাকারীরা শুধু আমাদের বাড়ি ঘরই ভাংচুর করেনি। তারা আমাদের টাকা পয়সা, স্বর্ণালঙ্কার লুট করে এবং আমাদের গায়ে হাত দিয়ে শ্লীলতাহানী করেছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনের সময় কোটালীপাড়া থানার এস আই সুজিত দাস বলেন, হামলাকারীরা ১২টি বসত ঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করেছে। ক্ষতিগ্রস্থদের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরো সংবাদ