২৩ আগস্ট ২০১৯

ধর্ষিতা ছাত্রীকে পরীক্ষা দিতে না দেয়ার অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের শিকার অষ্টম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে পরীক্ষা না দিতে দেয়ার অভিযোগ করেছেন শিক্ষার্থীর অভিভাবকেরা। বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় সাংবাদিকের কাছে ঐ শিক্ষার্থীর অভিভাবকেরা এ অভিযোগ করেন। নবাবগঞ্জ উপজেলার বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান মোঃ নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেন ওই ছাত্রীর মা।

নির্যাতনের শিকার ছাত্রীর মা (৪২) জানান, আমার মেয়ে ঢাকার নবাবগগঞ্জ উপজেলার বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। সম্পতি তার জীবনে একটি দুর্ঘটনা ঘটে যায়। দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষার জন্য আমি গত ৯ জুলাই মেয়ের বকেয়া বেতন, জরিমানা, কোচিং ফি ও পরীক্ষার ফিসহ অন্যান্য পাওনাদি পরিশোধ করে দেই। পরে ১১জুলাই মেয়ে পরীক্ষা দিতে গেলে প্রধান শিক্ষক তাকে পরীক্ষা না দিতে দিয়ে স্কুল থেকে বের করে দেয়।

তিনি আরো বলেন, পরে আমি মেয়েকে বিদ্যালয়ে নিয়ে গেলে প্রধান শিক্ষক তার কক্ষে আমাকে ডেকে নিয়ে বলে- আপনার মেয়েকে আর স্কুলে পাঠাবেন না। আমাদের বিদ্যালয়ে তাকে আর পড়ানো হবে না।

ভূক্তভোগী স্কুলছাত্রীর মা আরো অভিয়োগ করেন, ধর্ষণের মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় যা হবার হবে। তবে মেয়েকে আমি পড়াতে চাই। লেখা-পড়া করতে না পারলে ও কি করবে? আমার মেয়েরই বা কি দোষ?

এ ব্যাপারে বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ নজরুল ইসলাম বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়েছিলো কিনা সেটা আমার জানা নেই। তাহলে তাকে পরীক্ষা দিতে দেয়া হলো না কেন? এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি এ প্রতিবেদক বলেন, এর জবাব আপনাকে দিবো না। আপনি সামনে আসেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ সিদ্দিকী নুর আলম বলেন, এ বিষয়টি বৃহস্পতিবার সকালে শুনেছি। তবে সে যদি পড়ালেখা করতে চায় তাহলে আমরা সহযোগিতা করবো।

এ বিষয়ে দোহার থানার ওসি মোঃ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, নির্যাতিত শিক্ষার্থীকে প্রধান শিক্ষক স্কুল থেকে তাকে বের করে দিয়েছেন শুনে আমি নবাবগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে বিষয়টি জানিয়েছি।

এ বিষেয়ে নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এইচএম সালাউদ্দিন মনজু বলেন, বিষয়টি আমি শোনা মাত্র উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছি। কোনো মেয়ের পড়াশোনা হুমকিতে পড়ুক তা কাম্য নয়। মেয়েটির লেখা-পড়ার ব্যাপারে সকল ধরণের সহযোগিতা করা হবে।

উল্লেখ্য, গত জুন মাসের ১৯ তারিখ ঐ স্কুল শিক্ষার্থীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে দোহারের এক যুবক তার দুই বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে দোহারের জয়পাড়া বাজারের ড্রীম চাইনিজে নিয়ে তাকে ফুসলিয়ে বন্ধুদের সহায়তায় জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে ঐ রাতেই ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে দোহার থানায় তিনজনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।


আরো সংবাদ