১৮ নভেম্বর ২০১৯

ফতুল্লায় গৃহকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগে গৃহকর্ত্রী আটক

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার দেলপাড়ায় এক গৃহকর্মীকে অমানুষিক নির্যাতনকারী গৃহকর্ত্রীকে গ্রেফতার করেছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। বুধবার অভিযুক্ত সেলিনা বেগমকে দেলপাড়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর পুলিশ তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করার পর তাকে আদালতে পাঠায়।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন গৃহকর্মী ডালিয়ার বাবা জামাল উদ্দিন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ফতুল্লার দেলপাড়াস্থ পেয়ারা বাগান এলাকায় প্রবাসী বাবুর বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করতো ডালিয়া। বাবুর স্ত্রী সেলিনা বেগম সামান্য অজুহাতে ডালিয়ার উপর চালাতো অমানুষিক নির্যাতন। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে শতাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

সোমবার সকালে সেলিনা গৃহকর্মী ডালিয়াকে নির্যাতন করে। এরপরই কৌশলে ডালিয়া ওই বাড়ি থেকে ময়লা ফেলার কথা বলে পালিয়ে যায়। প্রতিবেশীর মোবাইলের মাধ্যমে তার উপর নির্যাতনের কথা তার বাবাকে জানায় সে।

ডালিয়ার বাবা জামাল উদ্দিন বলেন, তার তিন মেয়ে ও এক ছেলে। ছেলেটি মানসিক প্রতিবন্ধী। তার স্ত্রী লাইলীও মানসিক ভারসাম্যহীন। তিনি বয়সের ভারে কোনো কাজ করতে পারেন না। জীবন-জীবিকার তাগিদে তিনি তার মেয়ে ডালিয়াকে দেলপাড়াস্থ পেয়ারা বাগান এলাকায় প্রবাসী বাবুর স্ত্রী সেলিনার বাড়িতে গৃহপরিচারিকার কাজে দেন। প্রায় দেড় বছর ধরে তার মেয়ে সেলিনার বাড়িতে গৃহপরিচারিকার কাজ করছে। তার মেয়েকে কারণে-অকারণে অমানুষিকভাবে নির্যাতন করেছে বাড়ির মালিকের স্ত্রী।

তিনি আরো বলেন, এ বিষয়টি তিনি জানতেন না। তার মেয়ের মাধ্যমে তিনি আরো জানতে পেরেছেন যে, সামান্য ভুল করলেই সেলিনা তার মেয়ে ডালিয়াকে গরম খুন্তির ছ্যাঁকা দিতেন। আশপাশের বাড়ির মানুষ যাতে ডালিয়ার উপর নির্যাতনের বিষয়টি জানতে না পারে, সেজন্য তাকে বাড়ির বাইরেও যেতে দিতেন না গৃহকর্ত্রী। নির্যাতনের শিকার মেয়েটি নির্যাতনের সময় যাতে জোরে কান্না করতে না পারে সেজন্য তাকে মেরে ফেলারও হুমকি দিতেন সেলিনা বেগম।

ডালিয়ার বাবা আরো জানান, গত সোমবার সকালে ফ্রিজে গরুর দুধ না রাখাকে কেন্দ্র করে গৃহকর্ত্রী সেলিনা তার মেয়ের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালান। এক পর্যায়ে ধারালো বটি নিয়ে ডালিয়াকে আঘাত করেন তিনি। তবে তা লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে ডালিয়ার পায়ে লেগে রক্তাক্ত জখম হয়। সোমবার ময়লা ফেলার কথা বলে ওই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে আসে তার মেয়ে। পরে আশপাশের প্রতিবেশীরা মেয়ের কাছ থেকে ঘটনা জানতে পেরে তাকে ফোন করে।

ঘটনা শুনেই তিনি মঙ্গলবার ফতুল্লায় ছুটে আসেন বলে জানান। তার বাড়ি চাঁদপুর জেলার ছেঙ্গারচরের থানার কলাকান্দা ইউনিয়নের শানিরপাড় গ্রামে।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো: আসলাম হোসেন বলেন, একজন কাজের মেয়ের উপর এমন অমানুষিক নির্যাতন একজন মানুষ কিভাবে করে তা বোধগম্য নয়। নির্যাতনের শিকার ডালিয়ার শরীরে অনেকগুলো দাগ রয়েছে। অভিযুক্ত সেলিনাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে আদালতে তোলা হয়েছে।


আরো সংবাদ