২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০

জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ডেকে নিয়ে স্কুল ছাত্রীকে গণধর্ষণ, চার বন্ধু গ্রেফতার

জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ডেকে নিয়ে স্কুল ছাত্রীকে গণধর্ষণ, চার বন্ধু গ্রেফতার - ছবি: নয়া দিগন্ত

গাজীপুরের শ্রীপুরে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ডেনে নিয়ে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে ও হাত-পা ও মুখ বেঁধে ধর্ষণের অভিযোগে চার বন্ধুকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড এ্যকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)। শুক্রবার রাতে বিভিন্ন স্থান থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর থানার নৈয়পুরা এলাকার সোহরাব উদ্দিন ছেলে শরীফ হোসেন (১৮), ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ থানার উজান চন্দ্রপাড়া লিটন মিয়ার ছেলে ইমরান হাসান সুজন (১৯), ত্রিশালের গোলাভিটা এলাকার জসিম উদ্দিনের ছেলে আহসান ওরফে হাসান (১৬) এবং গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার নয়নপুর এলাকার সাবাজ উদ্দিন মোল্লার ছেলে শরিফ উদ্দিন মোল্লা (২০)। গ্রেফতারকৃত চার বন্ধু শ্রীপুর উপজেলার নয়নপুর এলাকায় নিজেদের পরিবারের সঙ্গে থাকতো।

র‌্যাব-১’র স্পেশালাইজ কোম্পানী পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লে: কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন শনিবার বিকেলে জানান, শ্রীপুর উপজেলার নয়নপুর এলাকার বাসায় স্বামী সন্তানদের নিয়ে থেকে স্থানীয় এক পোশাক কারখানায় অপারেটর পদে হিসেবে কাজ করেন এক নারী। তার মেয়ে (১৫) স্থানীয় শিশু শিক্ষা মডেল স্কুল এন্ড একাডেমীর অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী। গত ১৫ জানুয়ারি জন্মদিনের কথা বলে কিশোরী ওই স্কুল ছাত্রীকে (ভিকটিমকে) বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় এক প্রতিবেশী। সেখানে নিয়ে এনার্জি ড্রিংকের সঙ্গে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশ্রিয়ে কৌশলে ভিকটিমকে তা পান করায় এবং হত্যার ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক ৪ বন্ধু মিলে গণধর্ষণ করে। এ ঘটনা অন্যদের কাছে প্রকাশ না করার জন্য ভিকটিমকে নানা হুমকি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণকারীরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে গণধর্ষণের অভিযোগে শ্রীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন এবং ভিকটিমের পরিবার আসামীদের গ্রেফতারের জন্য র‌্যাবের সহযোগিতা কামনা করেন।

পরে শুক্রবার রাতে সদস্যরা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের রাজাবাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে গণধর্ষণ মামলার পলাতক প্রধান আসামী শরীফ হোসেনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। তার দেয়া তথ্যমতে ময়মনসিংহের বিভিন্ন এলাকা হতে অপর তিন আসামী ইমরান হাসান সুজন, শরিফ উদ্দিন মোল্লা, আহসান ওরফে হাসানকে গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাব আরো জানায়, আসামী ইমরান হাসান সজন তার মোবাইল ফোনে ধর্ষণের ওই ঘটনা ভিডিও ধারণ করে তার ফেসবুক আইডিতে আপলোড করেছিল বলে গ্রেফতারকৃতরা স্বীকার করেছে।


আরো সংবাদ