২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

মালয়েশিয়া ‘ওপেন ফর অল’ পদ্ধতি থেকে সরে যাচ্ছে!

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার - ছবি : সংগৃহীত

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার স্থগিতের প্রায় এক বছর অতিবাহিত হতে যাচ্ছে। সম্ভাবনাময় এ শ্রমবাজারটি খোলার ব্যাপারে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী যে ডেটলাইন দিয়েছিলেন সেই সময়ও আজ শনিবার শেষ হচ্ছে। এ সময়ের মধ্যে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ (তখন প্রতিমন্ত্রী) মালয়েশিয়া সফরে গিয়ে বাংলাদেশ কমিউনিটির একটি অনুষ্ঠানে আগস্ট মাসের মধ্যেই শ্রমবাজার উন্মুক্ত হয়ে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন। তার এমন বক্তব্যে হতাশাগ্রস্ত হাজারো রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক এবং শ্রমিক পাঠানোয় সম্পৃক্ত সারা দেশের লাখো মানুষ আশায় বুক বেঁধেছিলেন। কিন্তু দিন যতই যাচ্ছে ততই তারা হতাশায় নিমজ্জিত হচ্ছেন। কারণ গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত মাহাথির মোহাম্মদ সরকারের পক্ষ থেকে বিদেশী শ্রমিক নেয়ার ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক কোনো ঘোষণাই আসেনি। 

এ দিকে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ দায়িত্ব নেয়ার পর পরই মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে আর কোনো সিন্ডিকেটকে প্রশ্রয় দেয়া হবে না বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন। তারপর থেকে সেভাবেই দুই দেশে কার্যক্রম চলছে। তবে সম্প্রতি মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনে দেশটির হিউম্যান রিসোর্স মিনিস্ট্রির পাঠানো এক চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, মালয়েশিয়ায় শ্রমিক আমদানির ক্ষেত্রে আগের মতো আর ১০ রিক্রুটিং এজেন্সিকে মনোপলি ব্যবসা (সিন্ডিকেট) করতে দেয়া হবে না। আগের ‘জি টু জি প্লাস’ পদ্ধতিতেই কর্মী নিতে চাইলেও তারা এবার ‘মোর বিআরএ’ (বেশি সংখ্যক বাংলাদেশী রিক্রুটিং এজেন্সি) পারটিসিপেশন চাচ্ছে বলে ওই চিঠিতে উল্লেখ রয়েছে। 

মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে দেয়া ওই চিঠিতে ‘মোর বিআরএ’ শব্দ উল্লেখ থাকার বিষয়ের সত্যতা জানাতে গতকাল শুক্রবার রাতে মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহ: শহীদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। পরে তাকে খুদে বার্তা পাঠানো হলেও তিনি এর কোনো উত্তর দেননি। 
গতকাল জনশক্তি রফতানিকারকদের সংগঠন বায়রার একজন সদস্য নাম না প্রকাশের শর্তে নয়া দিগন্তকে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার সম্পর্কে বলেন, একটি মহল নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য এখন মরিয়া হয়ে উঠেছে। তারা এবার শ্রমবাজার নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে মনে হয় মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারের পরিস্থিতিকেই ঘোলাটে করতে নানাভাবে পাঁয়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। 

এক বছর ধরে গুরুত্বপূর্ণ শ্রমবাজার এখনো স্থগিত থাকার কারণ কী জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার জানা মতে মালয়েশিয়ার হিউম্যান রিসোর্স মিনিস্ট্রি থেকে চলতি আগস্ট মাসের ৮ এবং ২৩ তারিখ দু’টি চিঠি মালয়েশিয়ায় আমাদের বাংলাদেশ হাইকমিশনকে দেয়া হয়েছে। ওই দু’টি চিঠির এক জায়গায় শুধু বলা হয়েছে আমরা আগের মতো আর ১০ জনের (মনোপলি) সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে কোনো শ্রমিক আর নেবো না। তবে আমরা চাচ্ছি এবার মোর বিআরএ (বাংলাদেশ রিক্রুটিং এজেন্সিজ) সদস্য শ্রমবাজারে পার্টিসিপেশন করুক।

এখানে মোর বিআরএ সদস্য বলতে কী বোঝানো হয়েছে জানতে চাইলে ওই বায়রা সদস্য নয়া দিগন্তকে বলেন, মালয়েশিয়া সরকার এখনো ‘ওপেন ফর অল’ অর্থাৎ সব রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে কর্মী নেয়ার পক্ষে অটল। তবে তারা চাচ্ছে না এই মার্কেট খোলার পর কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা হোক। এ ক্ষেত্রে তারা ‘মোর’ বলতে ১০ এজেন্সির পরিবর্তে ৩০-৫০টি রিক্রুটিং এজেন্সিকে বুঝিয়ে থাকতে পারে। পাশাপাশি চিঠিতে তারা আরেকটি বিষয়ের ওপর বেশি জোর দিয়েছে। সেটি হচ্ছে অভিবাসন ব্যয়। আসলে এবার কত কম টাকার মধ্যে একজন শ্রমিককে মালয়েশিয়ায় পাঠানো হবে সে বিষয়ে তারা বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে গ্যারান্টি চাচ্ছে। বিদেশগামীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মেডিক্যাল সেন্টারের তালিকা করা সংক্রান্ত এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, মেডিক্যাল সেন্টার নিবন্ধনের জন্য প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্প্রতি পত্রিকায় একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। এখানে সবাইকে নিবন্ধনের সুযোগ দেয়ার কথা বলা হয়েছে। তিনি বলেন, এখানে মেডিক্যাল নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের চাওয়ার কিছু নেই। এটা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে মালয়েশিয়ান সরকার। তবে এবার স্বচ্ছপ্রক্রিয়ায় মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ থেকে কর্মী যাবে এটি শতভাগ নিশ্চিত করতে চাচ্ছে দুই দেশই। আর তা সম্পন্ন হলে শ্রমবাজার যেকোনো সময় খুলে যাওয়ার ঘোষণা আসতে পারে। 

অবশ্য এর আগেই প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব রৌনক জাহান নয়া দিগন্তকে বলেছিলেন, মালয়েশিয়ায় শ্রমিক পাঠাতে আমাদের দিক থেকে আমরা সবধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। এখন আমরা মালয়েশিয়ার দিক থেকে অপেক্ষায় আছি। 

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে মালয়েশিয়া সরকার সিনারফ্লাক্সের এসপিএএ সিস্টেম স্থগিত করার ঘোষণা দেয়। এর পর থেকে শ্রমবাজারে বৈধভাবে কর্মী যাওয়া বন্ধ রয়েছে। শুধু বাংলাদেশ নয়, সোর্স কান্ট্রিভুক্ত ১৪টি দেশ থেকেও কর্মী যাওয়া বন্ধ রয়েছে। মালয়েশিয়ার সরকার নতুন পদ্ধতিতে কর্মী নেয়ার ঘোষণা দিলেও কোন পদ্ধতিতে দেশটিতে কর্মী যাবে সেটি এখনো তারা চূড়ান্ত করতে পারেনি। তবে এ নিয়ে দেশটির উচ্চপর্যায়ের কমিটি কাজ করছে। তাদের প্রতিবেদন চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য পাঠানোর কথা রয়েছে ক্যাবিনেটে। 

গত রাতে মালয়েশিয়া থেকে একজন ব্যবসায়ী নয়া দিগন্তকে বলেন, আমরা একটি খবর শুনতে পাচ্ছি সেটি হচ্ছে এবার নতুন কৌশলে সিন্ডিকেট হতে যাচ্ছে। আর এই সিন্ডিকেটে বায়রাকে অন্তর্ভুক্ত করার পাঁয়তারা চলছে। যেমন বিদেশগামী শ্রমিকদের বহির্গমন ক্লিয়ারেন্সের যাচাই-বাছাইয়ের বিষয়টি বায়রার ওপর ন্যস্ত করার পরিকল্পনার কথা শোনা যাচ্ছে। এটা হলেই মনোপলি ব্যবসার দিকেই মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার যেতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা করছেন। তবে অপর একজন সদস্য বলছেন, এবার মালয়েশিয়া সরকার যে প্রক্রিয়ায় লোক নিবে তাতে প্রতিটি শ্রমিক অল্প টাকায় যেতে পারবে এবং তারা যখন দেশে ফিরে আসবে তখন প্রত্যেক শ্রমিক ভালো পরিমাণ জমানো টাকা সাথে আনতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে সিন্ডিকেটের কোনো সুযোগ নেই।


আরো সংবাদ

সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলা চলতে বাধা নেই টেকসই উন্নয়নে প্রজনন স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে হবে ছাত্রলীগের পর যুবলীগ ধরেছি: প্রধানমন্ত্রী স্কুল ছাত্রকে খ্রিষ্টান ধর্মে দীক্ষিতের প্রতিবাদে আলেম-উলামাদের মানববন্ধন তিউনিসিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট বেন আলীর ইন্তেকাল বিএনপির সাথে ব্রিটিশ কনজারভেটিভ পার্টির বৈঠক গ্রাহকদের কাছ থেকে ইচ্ছেমতো তথ্য সংগ্রহ করছে ব্যাংকগুলো আদালতে বোরকা পরিহিত মিন্নির ছবি তোলা ব্যক্তি কে? কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটেই হলো ছাত্রদলের নেতৃত্ব নির্বাচন উন্নয়নের নামে মানুষকে বিপথগামী করা হয়েছে : ড. মঈন খান ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নেমে যাওয়ায় সময় এসেছে বৃষ্টির পানি ব্যবহারের

সকল