১৯ আগস্ট ২০১৯

এফ-৩৫ চুক্তি বাতিল হবে ডাকাতি : এরদোগান

এফ-৩৫ বিক্রি : এরদোগান - ছবি : সংগৃহীত

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান বলেছেন, ‘তুরস্কের কাছে এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান বিক্রি করতে অস্বীকার করা হবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি ডাকাতি। যদি আপনার কোনো গ্রাহক থাকে এবং সেই গ্রাহক সময় মতো অর্থ প্রদান করে থাকে তবে আপনি সেই গ্রাহককে কোনোভাবেই পণ্য না দিয়ে পারবেন না। যদি পণ্য না দেন এর নাম হবে ডাকাতি’। 

তুরস্কের পত্রিকা হুররিয়াত গতকাল বৃহস্পতিবার এরদোগানকে উদ্ধৃত করে বলেছে, রাশিয়ার এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র সিস্টেম ক্রয়ের ওপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্ভাব্য নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হচ্ছে তুরস্ক। এরদোগান বলেন, এফ-৩৫ এর জন্য এখন পর্যন্ত ১৪০ কোটি মার্কিন ডলার দিয়েছে তুরস্ক এবং ইতোমধ্যে চারটি যুদ্ধবিমান হস্তান্তরও করা হয়েছে। তুর্কি পাইলটরাও প্রশিক্ষণের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছে। আমরা ১১৬টি এফ-৩৫ কিনতে একটি চুক্তি করেছি। আমরা শুধু এককজন ক্রেতা নই, আমরা যৌথ উৎপাদনকারীও। আমরা তুরস্কেই এফ-৩৫ এর কিছু অংশ উৎপাদনও করি’। এফ-৩৫ বিমানগুলো বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই রয়েছে এবং দুই পক্ষের টানাপড়নে এফ-৩৫ চালনায় প্রশিক্ষণরত তুর্কি পাইলটদের কিছু প্রশিক্ষণ দেয়া স্থগিত করা হয়েছে।

নিষেধাজ্ঞা : গত সপ্তাহে জাপানে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের এক ফাঁকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে দেখা করার পর এরদোগান বলেন, রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনলে তুরস্কের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পরিকল্পনা করেনি যুক্তরাষ্ট্র। এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের আপত্তির সমাধান হয়েছে। আমরা ব্যক্তিগতভাবে ট্রাম্পের কাছ থেকে শুনেছি যে তুরস্কের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের মতো কোনো ঘটনা ঘটবে না। আমরা একে অপরের কৌশলগত অংশীদার। কৌশলগত অংশীদার হিসেবে তুরস্কের সার্বভৌমত্বে হস্তক্ষেপ করার অধিকার কোনো দেশের নেই। প্রত্যেকের এটি জানা উচিত। নিম্ন মানসিকতার কিছু মানুষ ট্রাম্পের সঙ্গে কোনোভাবেই জোট না করার জন্য বলছে। কিন্তু আমি মনে করি এসব দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করবে না এবং এটিই আমাদের অঙ্গীকার।
অবশ্য মার্কিন সরকারের কর্মকর্তারা সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন যে মার্কিন প্রশাসন তুরস্কের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে চায় এবং এফ-৩৫ যুদ্ধ বিমান কর্মসূচি থেকে বের হয়ে যেতে পারে যদি তুরস্ক রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সংগ্রহ করে।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র বলেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বারবার স্পষ্টভাবে বলেছে যে রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ক্রয় করলে বাস্তবিকই নেতিবাচক পরিণতির মুখোমুখি হবে তুরস্ক এবং এফ-৩৫ সংক্রান্ত কর্মসূচির আওতায় উৎপাদন কারখানায় যৌথ অংশগ্রহণে ও ক্রয়ের ক্ষেত্রে কাউন্টারিং আমেরিকাস অ্যাডভারসারিজ থ্র স্যানশনস অ্যক্টের (সিএএটিএসএসএ) অধীনে স্থগিতাদেশ ও নিষেধাজ্ঞা আসবে।

সূত্র : আল জাজিরা


আরো সংবাদ