২১ নভেম্বর ২০১৯

জাবিতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ

জাবিতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ - ছবি : নয়া দিগন্ত

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ক্যাম্পাসের বাইরে অবস্থানরত কোনো শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে এসে সভা-সমাবেশ, মিছিল কিংবা কোনো অফিস বা আবাসিক এলাকায় অবস্থান করতে পারবেন না।

বুধবার রাত ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কার্যালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, গত মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের জরুরি সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বুধবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ক্লাস ও পরীক্ষা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে শিক্ষার্থীরা আবাসিক হলসমূহ ত্যাগ করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরের দোকানপাটও বন্ধ করা হয়েছে। তাই এই সময়ে ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে কোনো শিক্ষার্থীর অবস্থান সমীচীন নয়।

‘এ অবস্থায় যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনারোধ এবং সার্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাইরে অবস্থানরত কোনো শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে এসে সভা-সমাবেশ, মিছিল কিংবা কোনো অফিস বা আবাসিক এলাকায় অবস্থান করতে পারবে না।’

অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণার পরেও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ভিসি অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে।

বুধবার সকাল থেকে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও সংহতি সমাবেশ করেছে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে থাকা আন্দোলনকারীরা।

এরআগে, ভিসি পদত্যাগের দাবিতে মঙ্গলবার ক্যাম্পাসে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং ‘ভিসিপন্থী শিক্ষক ও ছাত্রলীগ কর্মীদের’সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত হয়। এ ঘটনার পর অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্যাম্পাস বন্ধ ঘেষাণা দিয়ে শিক্ষার্থীদের সন্ধ্যার মধ্যে হল ত্যাগের নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ। তবে আন্দোলনকারীরা কর্তৃপক্ষের এ সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করে উপাচার্য বিরোধী আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন।

গত ৯ আগস্ট ভিসি বাসভবনে শাখা ছাত্রলীগকে ‘ঈদ সালামি’ হিসেবে এক কোটি টাকা দেয়ার অভিযোগ উঠেছিল। সেই থেকে আন্দোলন শুরু।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদ্য বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ও শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইনের মধ্যে হওয়া ফোন রেকর্ড ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে ফাঁস হলে সেই কল রেকর্ডে উঠে আসে টাকা দেয়ার ‘সত্যতা’। সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ