১৯ অক্টোবর ২০১৯

‘জাহালমের কারাভোগ দুদকের ভুলে’

-

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) তদন্তকারী কর্মকর্তার ভুলের কারণে আসামি না হয়েও পাটকল শ্রমিক জাহালমকে কারাভোগ করতে হয়েছে বলে দুদকের অভ্যন্তরীণ তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, জাহালমকে আবু সালেকরূপে চিহ্নিত করার যে ভুলটি হয়েছে, তা দুদকের তদন্তকারী কর্মকর্তাদের কারণেই ঘটেছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার হাইকোর্টে তদন্ত প্রতিবেদনটি দাখিলের পর বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ বিষয়টি শুনানির জন্য আগামী মঙ্গলবার দিন ধার্য রেখেছেন। আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। জাহালমের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী অমিত দাস গুপ্ত। ব্র্যাক ব্যাংকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো: আসাদুজ্জামান।
জাহালম কাণ্ডে কে বা কারা দায়ী তা দেখার জন্য গত ১৭ এপ্রিল দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রতিবেদন চেয়েছিলেন আদালত। সে অনুযায়ী দুদকের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন গতকাল বৃহস্পতিবার আদালতে দাখিল করা হয়।
প্রতিবেদনে বলা হয়, জাহালমকে আবু সালেকরূপে চিহ্নিত করার যে ভুলটি হয়েছে, তা দুদকের তদন্ত কর্মকর্তাদের কারণেই ঘটেছে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, সঠিক ঘটনা তথা সত্য উদঘাটন করে আদালতের কাছে উপস্থাপন করা তদন্ত কর্মকর্তাদের দায়িত্ব। এ ক্ষেত্রে ব্যাংক কর্মকর্তা বা অন্য কারো ওপর এই দায়িত্ব অর্পণের কোনো সুযোগ নেই।
দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান প্রতিবেদনের বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, সমন্বয়হীনতার কারণেই এমনটি হয়েছে। জাহালম তিন বছর জেল খেটেছে এটি কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। এখন এর জন্য কে কতটুকু দায়ী তা আদালত নির্ধারণ করবেন।
অমিত দাস গুপ্ত বলেন, দুদক স্বচ্ছভাবেই তদন্তটা করেছে বলে আমি মনে করি। প্রকৃত দোষীদের বের করে আনার জন্য তদন্তে সঠিক প্রয়াস ছিল বলেই মনে হয়েছে। ভবিষ্যতে দুদক যাতে এরকম ভুল আর না করে তার জন্য সুপারিশও আছে প্রতিবেদনে। সেই সুপারিশগুলোর বাস্তবায়ন হলে এমনটি আর ঘটবে না বলে আমি মনে করি।
সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির অভিযোগে আবু সালেক নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ৩৩টি মামলা করে দুদক। কিন্তু তদন্ত কর্মকর্তাদের ভুলে সালেকের বদলে তিন বছর ধরে কারাগারে কাটাতে হয় টাঙ্গাইলের জাহালমকে।
জানুয়ারির শেষ দিকে গণমাধ্যমে প্রকাশিত এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন আইনজীবী অমিত দাস গুপ্ত আদালতের নজরে আনলে দুদকের ব্যাখ্যা চাওয়া হয়। কারাগারে থাকা ‘ভুল’ আসামি জাহালমকে কেন অব্যাহতি দেয়া হবে না এবং তাকে মুক্তি দিতে কেন ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে স্বতঃপ্রণোদিত একটি রুলও জারি করা হয়। আদালতের আদেশে ৩ ফেব্রুয়ারি গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্তি পান জাহালম। পাটকল শ্রমিক জাহালমের তিন বছর কারাগারে থাকার ঘটনায় তদন্ত কর্মকর্তাদের গাফিলতি ছিল কি না তা খতিয়ে দেখতে একটি কমিটি করে দুদক।
গত ১৭ এপ্রিল আসামি না হয়েও জাহালমের কারাভোগের জন্য কে বা কারা দায়ী তা দেখতে দুদকের কাছে প্রতিবেদন চান হাইকোর্ট। গতকাল বৃহস্পতিবার হাইকোর্টে সেই প্রতিবেদন দাখিল করা হয়।


আরো সংবাদ

কাশ্মির প্রশ্নে যুদ্ধের ঝুঁকি কতটা নেবে পাকিস্তান? অভিযানের মধ্যেই সিন্ডিকেটের কারসাজি : কমছে না পেঁয়াজের ঝাঁজ ১২ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধ অভিযান মা-বাবার কোলে অপহৃত শিশু অপূর্ব ধর্মের সাথে সম্পর্ক না রাখা মার্কিনিদের সংখ্যা বাড়ছে সিরিয়া অভিযানে তুরস্কের সাফল্য উড়োজাহাজে বার্ডহিট : আতঙ্কে কন্ট্রোল টাওয়ার খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আইনজীবীরা ঢাকায় আসবেন : তৈমূর আলম খালেদাকে কারাগারে ‘হত্যার’ পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার : বিএনপি গণতন্ত্র না থাকলে দুর্নীতির দাপট বাড়বে : গয়েশ্বর পদোন্নতি ও গেজেটভুক্তকরণের দাবিতে পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকাদের সংবাদ সম্মেলন অপরাধী যত শক্তিশালীই হোক তাকে আইনের আওতায় আনবই : ডিআইজি হাবীবুর

সকল