১০ ডিসেম্বর ২০১৯

কাশ্মিরে বিধিনিষেধ নিয়ে সব প্রশ্নের জবাব চায় ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট

-

কাশ্মির নিয়ে ওঠা সমস্ত প্রশ্নের জবাব দিতে হবে বলে জম্মু কাশ্মির প্রশাসনকে জানিয়ে দিয়েছে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট। কাশ্মিরে বিধিনিষেধ চ্যালেঞ্জ করে আদালতে যেসব আবেদন জমা পড়েছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল বৃহস্পতিবার এই নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বিচারপতি এনভি রামানার নেতৃত্বাধীন এক বেঞ্চ সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতাকে জানিয়েছেন আবেদনকারীরা এই বিধিনিষেধগুলোকে চ্যালেঞ্জ করে বিস্তারিত সওয়াল করেছেন এবং তাকে উত্থাপিত সমস্ত প্রশ্নের জবাব দিতে হবে।
উল্লেখ্য জম্মু কাশ্মির প্রশাসনের কৌঁসুলি সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা। এনভি রামানা, আর সুভাষ রেড্ডি এবং বি আর গভাইকে নিয়ে গঠিত বেঞ্চ বলে, মিস্টার মেহতা, আবেদনকারীদের বিস্তারিত সওয়ালে যেসব প্রশ্ন উঠে এসেছে আপনাকে তার সব কটার জবাব দিতে হবে। আপনার পাল্টা হলফনামায় আমাদের সিদ্ধান্তে আসার সুবিধা হবে না। এমন কিছু করবেন না যাতে আমাদের মনে হয় এ ব্যাপারে আপনি যথেষ্ট মনোযোগ দেননি।
তুষার মেহতা বলেন, আবেদনকারীরা বিধিনিষেধ নিয়ে যেসব প্রশ্ন তুলেছেন তার প্রায় সব ক’টিই ‘বেঠিক’ এবং তিনি যখন আদালতে সওয়াল করবেন সব পরিপ্রেক্ষিত নিয়েই আলোচনা করবেন। সলিসিটর জেনারেল বলেন, এ ব্যাপারে তার কাছে একটি স্ট্যাটাস রিপোর্ট থাকলেও তা তিনি জম্মু কাশ্মিরের নিয়ত পরিবর্তনশীল পরিস্থিতির সাপেক্ষে আদালতে দাখিল করেননি। তিনি বলেন, তার সওয়ালের সময়ে ঠিক কী পরিস্থিতি তা তিনি আদালতকে জানাবেন।
শীর্ষ আদালত ব্যাখ্যা করে বলেন একটি আবেদন ছাড়া অন্য কোনো আবেদনে আটক রাখার বিষয়টি নেই। আমরা জম্মু কাশ্মিরে আটক রাখার কোনো আবেদন শুনছি না। আমরা যে দু’টি আবেদন শুনছি সে দু’টি অনুরাধা ভাসিন ও গুলাম নবি আজাদের করা। এ দু’টি আবেদন চলাফেরার স্বাধীনতা সংবাদমাধ্যম ইত্যাদি বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত। আদালত আরো বলেছে, কেবলমাত্র একটি হেবিয়াস কর্পাসের আবেদন মুলতবি রয়েছে।
ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, এক ব্যবসায়ীর আটক রাখার পরিপ্রেক্ষিতে ওই হেবিয়াস কর্পাস মামলা মুলতবি রাখা হয়েছে কারণ আবেদনকারী একই সাথে জম্মু কাশ্মির হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। বেঞ্চ বলেছে, এখন তারা হাইকোর্ট থেকে আবেদন তুলে নিয়েছেন, এবার ওই আবেদন এখানে মুলতবি রয়েছে।
বুধবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেন, উপত্যকার পরিস্থিতি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক। রাজ্যসভায় তিনি বলেন রাত ৮টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত সময়কাল বাদ দিয়ে জম্মু কাশ্মিরে ১৯৫টি থানা এলাকার কোথাও ১৪৪ ধারার আওতায় বিধিনিষেধ বহাল থাকছে না। তিনি আরো জানান স্কুলে উপস্থিতির পরিমাণ ৯৮ শতাংশ এবং জম্মু কাশ্মির প্রশাসনের সমর্থন মিললেই ইন্টারনেট পরিষেবা ফিরিয়ে আনা হবে।


আরো সংবাদ